পানিফলচাষের উপকারিতা অনেক!

Monday, 01 January 0001 12:00 AM

পানিফল (Trapa bispinosa ) একটি বর্ষজীবী জলজ উদ্ভিদ। ইংরেজি নাম Water chestnut, হলেও স্থানভেদে Water caltrop, Buffalo nut, Devil Pod, সিঙ্গারা ফল ইত্যাদি নামে পরিচিত। আমরা পানিফল কাঁচা ফল হিসেবে খাই । কিন্তু চীনের খাদ্য তালিকায় পানিফল বেশ জনপ্রিয় এবং আবশ্যকীয়। চীনারা পানিফলকে শুকিয়ে আটা তৈরি করে সে আটা দিয়ে  রুটি, পিঠে, কেক, বিস্কুট তৈরি করে খায়। পানিফল গোখাদ্য হিসেবেও ব্যবহার করা হয়।

 

পানিফল পুষ্টিতে ভরপুর। প্রায় ৯০ % কার্বোহাইড্রেড, ৬০% শর্করা আছে। তাছাড়া বেশ ভালো পরিমাণ আঁশ, রাইবোফ্লেবিন, ভিটামিন বি, পটাসিয়াম, কপার, ম্যাঙ্গানিজ, প্রোটিন ও ভিটামিন আছে। পুষ্টিগুনের বিচারে পানিফলে খাদ্য শক্তি আছে ৬৫ কিলোক্যালরি, জলীয় অংশ ৮৪.৯ গ্রাম, খনিজ পদার্থ ০.৯ গ্রাম, খাদ্য আঁশ ১.৬ গ্রাম, প্রোটিন ২.৫ গ্রাম, চর্বি ০.৯ গ্রাম, শর্করা ১১.৭ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ১০ মিলিগ্রাম, আয়রন ০.৮ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি ১০.১৮ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি ২০.০৫ মিলিগ্রাম, ভিটামিন সি ১৫ মিলিগ্রাম। পানিফলের শুধু খাদ্যগুণই নয় রয়েছে ঔষধি গুণও। পানিফলের শাঁস শুকিয়ে রুটি বানিয়ে খেলে অ্যালার্জি ও হাত পা ফোলা রোগ কমে যায়। উদরাময় ও তলপেটে ব্যথায় পানিফল খুবই উপকারী। এছাড়া উচ্চ রক্ত চাপ কমাতে সহায়তা করে পানিফল।

চাষ পদ্ধতি

জুন মাসের বৃষ্টি হলে চারা লাগানো হয়। তবে জলের ব্যবস্থা থাকলে অনেকে মে মাসেও চারা লাগান। বাংলা আষাঢ় মাস থেকে ভাদ্র আশ্বিন মাস পর্যন্ত চারা লাগানো যায়। পাকা ফল কোনো পুকুরে, জলযুক্ত স্থানে, কিংবা কাদা জলযুক্ত পাত্রে রেখে দেওয়া হয়। কয়েক মাস পর ফল থেকে চারা গজায়। সে চারা পরে মূল জমিতে লাগানো হয়। চারা লাগানোর ৬০ থেকে ৬৫ দিন পর ফুল আসে মানে অগ্রহায়ণ পৌষ মাসে। ফুল আসার ১৫ থেকে ২০ দিন পর ফল তোলার মতো পরিপক্ব হয়। সেপ্টেম্বর থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত পানিফল পাওয়া যায়। তবে সবচেয়ে বেশি পাওয়া যায় নভেম্বর ডিসেম্বর মাসে।

মোট জীবনকালের ৭ থেকে ৮ মাস মেয়াদি এ ফলটির পরিপক্ব বীজ রোপণ করতে হয় জ্যৈষ্ঠ মাসে। অল্প খরচে জলেই এই ফলের চাষ করা যায়। ১ থেকে দেড় ফুট জল থাকাকালীন পুকুর বা বিলে কৃষক পানি ফলের চারা রোপণ করেন। এক চারা থেকে আরেক চারা দূরত্ব ১ থেকে দেড় হাত। লাগানো বা রোপণের সময়ের ওপর দূরত্ব কম বেশি করেন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে পানিফল জমির যেটুকু থেকে চারা তৈরি করা হবে সেটুকু পানিফল গাছ না তুলে রেখে দেয়া হয়। পরে পরিপক্ব ফল গাছ থেকে ফল ঝরে মাটিতে পড়ে। ওখান থেকে চারা হয়। নতুন একটি চারা থেকে অনেক চারা হয়। মে জুন মাসে বৃষ্টি শুরু হলে চারা লাগানো হয়। ফুল আসে লাগানোর ৬০ থেকে ৬৫ দিন পরে ফুল আসে। ফুল আসার ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যে ফল তোলার মতো পরিপক্ব হয়। একটি গাছে ৫০-৭০টি ফল হয়। চারা লাগানোর আগে শুকনা মাটিকে বা জলযুক্ত মাটিতে এমওপি, ডিএপি, টিএসপি, জিপসাম সার দেওয়া হয়। তবে সারের মাত্রা সব জায়গায় একরকম না। জমির প্রকৃতি অনুযায়ী সারের মাত্রা নির্ধারণ করতে হবে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে কৃষি অফিসের সহায়তা নিয়ে সারের মাত্রা নির্ধারণ করা হয়। কেউ কেউ জৈবসারও ব্যবহার করেন। ফল চাষ শুরু হয় ভাদ্র-আশ্বিন মাসে এবং ফল সংগ্রহ করা হয় অগ্রহায়ণ পৌষ মাসে। ফল কচি অবস্থায় লাল, পরে সবুজ এবং পরিপক্ব হলে কালো রঙ ধারণ করে।   
ময়লা কলুষিত জল পরিশোধের ক্ষমতা রয়েছে পানিফল গাছের। সে কারণে নোংরা স্বল্প গভীর জলাশয় যেখানে মাছ চাষ করা যায় না এমন পরিত্যক্ত জায়গায় পানিফলের গাছ লাগিয়ে জল পরিষ্কার করে পরের বছর তাতে মাছ চাষ করা যায়

- রুনা নাথ

Share your comments



Krishi Jagran Bengali Magazine Subscription Subscribe Online


Download Krishi Jagran Mobile App

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.