জানুন বাঁকুড়ার বিভিন্ন হস্তশিল্প সম্পর্কে অজানা কিছু তথ্য (Different Handicrafts Of Bankura)

Thursday, 24 December 2020 01:21 PM
Hand Work Of Bankura (Image Credit - Google)

Hand Work Of Bankura (Image Credit - Google)

পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়া জেলা কলকাতা থেকে ১৩২ কিমি দূরে অবস্থিত। অঞ্চলটি তার পোড়ামাটির মন্দির এবং বালুচরি শাড়ির জন্য বিখ্যাত। এই শহরের একটি গৌরবময় অতীত রয়েছে যা স্থাপত্য, সংগীত এবং মৃৎশিল্প এবং বুননের মতো হস্তশিল্পগুলিতে প্রতিফলিত। এই হস্তশিল্পই অঞ্চলটিকে সমৃদ্ধ করে তুলেছে।

টেরাকোটা শিল্প (Terracotta art)-

একটি লাতিন শব্দ: 'টেরা' অর্থ মাটি, আর 'কোটা' অর্থ পোড়ানো। মানুষের ব্যবহার্য পোড়ামাটির তৈরি সকল রকমের দ্রব্য টেরাকোটা নামে পরিচিত। আঠালো মাটির সঙ্গে খড়কুটো, তুষ প্রভৃতি মিশিয়ে কাদামাটি প্রস্তুত করা হয়। সেই মাটি থেকে মূর্তি, দৃশ্যাবলি তৈরি করে রোদে শুকিয়ে আগুনে পুড়িয়ে টেরাকোটা ভাস্কর্য তৈরি করা হয়। মানবসভ্যতার বিকাশকাল হতে পোড়ামাটির ভাস্কর্যের ব্যবহার পরিলক্ষিত হচ্ছে। সুমেরীয় সভ্যতা, ব্যাবীলনীয় সভ্যতা, মায়া সভ্যতায় এই শিল্পের প্রচলন ছিল। পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশে মৌর্য সাম্রাজ্য, গুপ্ত সাম্রাজ্য-এর বহু টেরাকোটার নিদর্শন পাওয়া গেছে।পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়া জেলার বিষ্ণুপুর শহর টেরাকোটা শিল্পের জন্য বিখ্যাত।

*প্রণালী*

প্রথমে কাদা দিয়ে কোনো অবয়ব তৈরি করা হয় তারপর রৌদ্রে শুকানো হয় এবং পরে তা আগুনে পুড়িয়ে মজবুত করা হয়। এই পদ্ধতিতে মাটির ফলকে কোনো শিল্পকর্ম উপস্থান করলে, তখন তাকে টেরাকোটা বলা হয়। মূলত টেরাকোটা সাংসরিক কাজে ব্যবহারের জন্য তৈরি করা হয়। গৃহাদি অলঙ্করণ বা কোনো শৈল্পিক প্রদর্শনের জন্য টেরাকোটা তৈরি করা হয়। কিছু কুশলী শিল্পীরা টেরাকোটা তৈরি করে থাকে।

এই সুন্দর শিল্পকর্মগুলি মূলত বাঁকুড়া জেলার বিষ্ণুপুর এবং পাঁচমুড়ায় কেন্দ্রীভূত।

পঞ্চমুরায় টেরাকোটার আর্ট -

অল ইন্ডিয়া হস্তশিল্পের লোগো লম্বা গলা পোড়ামাটির ঘোড়া দিয়ে আপনার অঙ্কন কক্ষের করুণা বাড়ান। আপনি দেখতে পাবেন যে ঘোড়াটি সাতটি পৃথক পৃথক অংশে আসে যেমন একটি ফাঁকা লম্বা ঘাড়, চার পা, মুখ, কান, লেজ ইত্যাদি কাঠামোর মতো ঘোড়া পেতে আপনাকে এই অংশগুলি একত্রিত করতে হবে। লম্বা কান এবং আলংকারিক শরীরের মতো পাতা অবশ্যই লাবণ্য এবং গর্বের চিহ্ন।

বিকনায় ডোকরা আর্ট -

ডোকরা, উপজাতি কারিগরদের অপরিসীম প্রতিভা প্রদর্শন করে উপজাতি শিল্পের একটি সুন্দর রূপ। বিভিন্ন ধরণের অলংকার এবং উজ্জ্বল বাড়ির সজ্জা নমুনা, দেবদেবীর মূর্তি এবং ডোকরা তৈরি করা যেতে পারে। ডোকরা শিল্পে ব্যবহৃত ধাতব ঢালাইয়ের পদ্ধতিটি ধাতব ঢালাইয়ের প্রাচীনতম রূপ হিসাবে বিবেচিত হয় এবং এটি প্রযুক্তিগতভাবে ‘cire perdue’ হিসাবে পরিচিত। বাঁকুড়া জেলার বিকনা গ্রাম এই রাজকীয় শিল্পের আবাস।

বাঁকুড়া জেলার বিকনাতে ডোকরা আর্ট -

বালুচরী (Baluchari) -

বিষ্ণুপুর বালুচরি শাড়ির জন্য বিখ্যাত। বিশ্বখ্যাত বালুচরি- নকশাগুলি, মন্দিরগুলির পোড়ামাটির টালি দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছিল। পৌরাণিক কাহিনী, উপজাতির জীবনধারা এবং সামাজিক জীবনযাত্রা বালুচরি নকশায় প্রতিবিম্বিত হয়েছে।

বিষ্ণুপুরের মল্ল রাজারা যে বিখ্যাত ঘরোয়া খেলা খেলতেন তা হল ‘দশাবতার তাশএবং এটি সংগ্রাহকের নমুনা হিসাবে আন্তর্জাতিকভাবে বিখ্যাত। এই তাসের খেলাটি মল্ল রাজা বীর হাম্বির আবিষ্কার করেছিলেন এবং ভগবান বিষ্ণুর দশ অবতারের উপর ভিত্তি করে তৈরি করেছিলেন। দশাবতার তাসে ১২ টি তাসের ১০ দফা থাকে। বর্তমানে বিষ্ণুপুরের ফৌজদার পরিবার এই অনন্য লোকশিল্পের একমাত্র অনুশীলনকারী। তারা কাপড়, তেঁতুলের বীজের আঠা, খড়ি ধুলা, রঙ, সিঁদুর এবং লাক্ষা ব্যবহার করে তাস তৈরি করে।

ল্যান্টার্ন (Lantern) -

লন্ঠন শিল্প বিষ্ণুপুরেও খুব জনপ্রিয়। সংগ্রাহকের নমুনা হিসাবে ব্যবহার করতে আপনি এই সুন্দর লণ্ঠন কিনতে পারেন। লণ্ঠনগুলি বিলাসবহুল হোটেল, অফিস, বাড়ির সজ্জা হিসাবে ব্যবহৃত হয়। এটি পাশাপাশি একটি সুন্দর উপহার নমুনা হিসাবে বিবেচিত হয়।

শঙ্খ শিল্প (Conch industry) -

এটি বাঁকুড়া জেলায় খুব বিখ্যাত। ‘শঙ্খবনিকবা শাঁখারিনামে পরিচিত লোকেরা বিবাহিত হিন্দু মহিলাদের জন্য নকশাদার শঙ্খের চুড়ি বা শাঁখাতৈরি করতেন। তারা জটিলতর নিদর্শন এবং নকশা ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরণের বাদ্য শাঁখও তৈরি করে। দক্ষ কারিগররা খুব সুন্দরভাবে ঈশ্বর এবং দেবীর ক্ষুদ্র আকারগুলিও শঙ্খ-এর মধ্যে নকশা করেছেন। কাঠের খোদাই করা জিনিসগুলিতে বিভিন্ন ধরণের চিত্র, প্রতিমা, খেলনা এবং অন্যান্য আলংকারিক পণ্য রয়েছে। বাঁকুড়া এবং বিষ্ণুপুর সেই জায়গাগুলি যেখানে আপনি মেধাবী কাঠের কারিগর পাবেন। শুশুনিয়া গ্রামের স্থানীয় লোকেরা বালু-পাথর থেকে নিদর্শনগুলি তৈরি করে এবং নিশ্চিতভাবে অতিরিক্ত মনোযোগের দাবি রাখে। আপনি যখন বাঁকুড়া জেলা অন্বেষণ করবেন, তখন আপনি এখানে প্রতিভা কীভাবে নিরবে ও শান্তিতে কাজ করেন তা দেখে অবাক হয়ে যাবেন। কাঁসা কারুকাজ শিল্পে নৈপুণ্য সিংহভূম অঞ্চলের ধলভূম থেকে উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত এবং পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়া-পুরুলিয়া- মেদিনীপুর অঞ্চলে কেন্দ্রীভূত। এই তামা ভিত্তিক খাদ দিয়ে তৈরি গৃহস্থালি পাত্র এবং অন্যান্য দরকারী আইটেমগুলি কাঁসারিহিসাবে সম্বোধিত প্রতিভাবান লোকেরা তৈরী করে।

আরও পড়ুন - ভ্রমণ কুলধারা 'রাজস্থানের ঘোস্ট ভিলেজ' (Haunted Place Kuldhara)

English Summary: Learn some unknown facts about different handicrafts of Bankura

আপনার সমর্থন প্রদর্শন করুন

প্রিয় অনুগ্রাহক, আমাদের পাঠক হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আপনার মতো পাঠকরা আমাদের কৃষি সাংবাদিকতা অগ্রগমনের অনুপ্রেরণা। গ্রামীণ ভারতের প্রতিটি কোণে কৃষক এবং অন্যান্য সকলের কাছে মানসম্পন্ন কৃষি সংবাদ বিতরণের জন্যে আমাদের আপনার সমর্থন দরকার। আপনার প্রতিটি অবদান আমাদের ভবিষ্যতের জন্য মূল্যবান।

এখনই অবদান রাখুন (Contribute Now)

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.