Cabbage farming guide: জেনে নিন বাঁধাকপি চাষ করে কিভাবে লাভবান হয়ে উঠবেন

রায়না ঘোষ
রায়না ঘোষ
Cabbage farming (image credit- Google)
Cabbage farming (image credit- Google)

বাঁধাকপি রবি মৌসুমের একটি পুষ্টিকর সবজি যার বৈজ্ঞানিক নাম Brassica oleracea var capitata । দেশের প্রায় সব অঞ্চলেই বাঁধাকপির চাষ হয়ে থাকে। এদেশে উৎপাদিত বাঁধাকপির প্রায় সব জাতই বিদেশি ও হাইব্রিড। সব জাতের বীজ এদেশে উৎপাদন করা যায় না। তবে এদেশে বীজ উৎপাদন করা যায় বারি উদ্ভাবিত এমন জাতও আছে। বাঁধাকপি একটি অন্যতম পুষ্টিকর পাতা জাতীয় সবজি। এত প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ‘এ‘ রয়েছে। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য এটি বেশ উপকারী।

মাটি(Soil):

অত্যধিক বেলে মাটি ছাড়া প্রায় সব ধরণের মাটিতে বাঁধাকপি জন্মে। তবে বেলে দোঁআশ থেকে পলি দোঁআশ মাটি এ ফসলের জন্য উপযোগী।

চাষের সময়ঃ

বাঁধাকপি শীতকালে ভালো হয়ে থাকে। শীত মৌসুমে আগাম ও নাবী করেও চাষ করা যায়।

বীজের পরিমাণঃ

জাত ভেদে শতক প্রতি ২-৩ গ্রাম এবং হেক্টর প্রতি ৫০০-৭০০ গ্রাম বীজের প্রয়োজন হয়ে থাকে।

চারা উৎপাদন পদ্ধতিঃ

বাঁধাকপির চারা বীজতলায় উৎপাদন করে জমিতে লাগানো হয়। বীজতলার আকার ১ মিটার পাশে ও লম্বায় ৩ মিটার হওয়া উচিত। সমপরিমাণ বালি, মাটি ও জৈবসার মিশিয়ে ঝুরাঝুরা করে বীজতলা তৈরি করতে হয়। দ্বিতীয় বীজতলায় চারা রোপণের আগে ৭/৮ দিন পূর্বে প্রতি বীজতলায় ১০০ গ্রাম ইউরিয়া, ১৫০ গ্রাম টিএসপি ও ১০০ গ্রাম এমওপি সার ভালোভাবে মিশিয়ে দিতে হবে। পরে চারা ঠিকমত না বাড়লে প্রতি বীজতলায় প্রায় ১০০ গ্রাম পরিমাণ ইউরিয়া সার ছিটিয়ে দিতে হবে।

আরও পড়ুন -Soil borne diseases of crops: জেনে নিন ফসলের মাটিবাহিত রোগের ক্ষয়-ক্ষতির সমাধান

জমি তৈরিঃ

গভীর ভাবে ৪-৫টি চাষ দিয়ে মাটি ঝুরঝুরে করে তৈরি করে নিতে হবে।

চারা রোপণঃ

বীজ বপনের ৩০-৩৫ দিন পর বা ৫/৬টি পাতা বিশিষ্ট ১০-১৫ সেন্টিমিটার লম্বা  চারা সাধারণত বিকেল বেলা জমিতে রোপণ করতে হয়। তবে সুস্থ ও সবল হলে চারা এক-দেড় মাস বয়সের চারা রোপণ করা যায়। রোপণের জন্য সারি থেকে সারির দুরত্ব ৬০ সেন্টিমিটার  এবং প্রতি সারিতে চারা থেকে চারার দূরত্ব ৪৫ সেন্টিমিটার দেওয়া ভালো। এ হিসেবে প্রতি শতকে ১৫০ টির মতো চারার প্রয়োজন হবে। আঙ্গিনায় ৫ মিটার লম্বা একটা বেডের জন্য ২০-২২ টি চারার প্রয়োজন হয়ে থাকে। বেডে দুই সারিতে চারাগুলো লাগাতে হবে। আঙ্গিনায় লাগানোর জন্য যেহেতু কম চারার দরকার হয় সেজন্য কোন বিশ্বস্ত নার্সারি থেকে চারা কিনে লাগানো ভালো। তবে একটা বেডে বাঁধাকপির চারা তৈরি করে অল্পদিনের মধ্যেই তা বিক্রি করে যেমন অধিক লাভবান হওয়া যায় তেমনি নিজের প্রয়োজনও মেটানো যায়। ফলে নিশ্চিতভাবে ভালো চারা পাওয়া যায়।

সার প্রয়োগ:

প্রতি শতকে গোবর ১২৫ কেজি, ইউরিয়া ১ কেজি, টিএসপি ৮০০ গ্রাম, এমওপি ৬৫০ গ্রাম সার দিতে হবে। সম্পূর্ণ গোবর ও টিএসপি সার জমি তৈরির সময় প্রয়োগ করতে হবে। ইউরিয়া  ও এমওপি সার ২ কিস্তিতে চারা রোপণের ২০-২৫ দিন পর  একবার এবং ৩০-৪০ দিন পর আর একবার উপরি প্রয়োগ করতে হবে। সার দেওয়ার পর পরই সেচ দিতে হবে। এ ছাড়া ২-৩ দিন পর পরই সেচ দিতে হবে। গাছ বড় হবার সাথে সাথে দুই সারির মাঝখান থেকে মাটি তুলে সারি বরাবর আইলের মতো করে দিতে হবে। ফলে  দু’সারির মাঝে নালা তৈরি হবে। এতে সেচ দিতে বেশ সুবিধে হবে।

ফসল সংগ্রহ ও ফলনঃ

চারা রোপণের ৯০-১০০ দিন পর বাঁধাকপি সংগ্রহ করা যাবে। প্রতিটি বাঁধাকপি গড়ে ২-২.৫ কেজি হয়ে থাকে। ফলন এক শতকে ১৫০-১৬০ কেজি, একরে ২০-২৫ টন, প্রভাতী জাতের ফলন ৫০-৬০ টন/হেক্টর।

আরও পড়ুন -Weed management methods: দেখে নিন ক্ষেতের আগাছা দমন করার উপায়

Like this article?

Hey! I am রায়না ঘোষ . Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters