MFOI 2024 Road Show

সন্তোষ কাইতের চ্যালেঞ্জ থেকে সাফল্যের বিস্ময়কর গল্প

এই গল্পটি একটি শক্তিশালী ইচ্ছাশক্তির; অক্ষমতা স্বীকার করতে না চাওয়ার গল্প।যা অনুপ্রেরণা উৎসের যোগান হিসাবে কাজ করে।

KJ Staff
KJ Staff

প্রতিটি জীবনের প্রতিকূল সময়ে সফলতার শীর্ষে ওঠার কাজগুলি অবশ্যই অতুলনীয় বিশ্বাস, সাহস এবং ইচ্ছাশক্তির মাধ্যমে সম্পন্ন হয়।

এই গল্পটি একটি শক্তিশালী ইচ্ছাশক্তির; অক্ষমতা স্বীকার করতে না চাওয়ার গল্প।যা অনুপ্রেরণা উৎসের যোগান হিসাবে কাজ করে।

সন্তোষ কাইত পান্ডুর্ণা, কেদারলির বাসিন্দা। তিনি তার অতুলনীয় ইচ্ছাশক্তি এবং অদ্ভুত সংঘর্ষের মাধ্যমে তার অপ্রতিম দিব্যাংগতা পরাজিত করেছেন।তিনি প্রমান করেছেন যোগ্য মার্গনির্দেশন, উৎসাহ, থাকলে একজন ব্যক্তি  সমস্ত প্রতিবন্ধকতাকে অতিক্রম করে সাফল্যের শিখরে পৌঁছতে পারে।

সন্তোষের কাজ শুরু হয় তাঁর গ্রাম পান্ডুরনা থেকে। পাঁচ বছর বয়সে পোলিওতে আক্রান্ত হওয়ার পরেও, তিনি হাল ছাড়েননি এবং নিজের আত্মবিশ্বাসের উপর নির্ভর করতে শিখেছিলেন; নিজের অস্তিত্বকে মেনে নিয়ে তিনি এতে বিশেষ ক্ষমতা গড়ে তুলেছিলেন।

আরও পড়ুনঃ মৌমাছি পালনকে আয়ের উৎস বানিয়েছেন এই কৃষক, এখন বছরে আয় ১৫ লাখ

২০০৬ সালে সন্তোষের বাবা মারা গেলে পরিবারের জন্য সমস্যা বেড়ে যায়। সন্তোষ তখন চাষাবাদকে তার পেশা হিসেবে চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন; এবং পূর্ণ বিশ্বাস নিয়ে এগিয়ে যান।

২০১৪ সালে, তার অক্ষমতার কারণে তাকে আবার নতুন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয়েছিল। কৃষি কাজ বৃদ্ধি পেয়েছিল, কিন্তু বলদ চাষের মতো চ্যালেঞ্জ এবং আরও শ্রমের প্রয়োজনের কারণে সন্তোষ আবারও কাজে বাঁধা দেখতে শুরু করেন। কিন্তু এই কঠিন সময়কে অনুপ্রেরণার উৎস করে আবারও সাফল্যের পথে পা বাড়ালেন তিনি। তাঁর স্বপ্ন পূরণের জন্য পুসদ যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

পুসাদে মাহিন্দ্রার সদস্যদের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পান তিনি। মাহিন্দ্রা দলের সহায়তায় সন্তোষ একটি ট্রাক্টর কিনে চাষের কাজে ব্যবহার শুরু করেন। এর মাধ্যমে তিনি অল্প সময়ের মধ্যে চাষাবাদে যে অসুবিধার সম্মুখীন হন তা কাটিয়ে ওঠেন। একটি ট্রাক্টর দিয়ে শুরু করে, আজ তার চারটি ট্রাক্টর, তার নিজস্ব বাড়ি এবং একটি সুপ্রতিষ্ঠিত শিল্প রয়েছে। আত্মনির্ভরশীল হওয়া খুবই জরুরি বলে মনে করেন সন্তোষ। কিন্তু কারো সাহায্যে যদি কোনো কাজ ভালোভাবে সম্পন্ন হয়, তাহলে সেই সাহায্যও গুরুত্বপূর্ণ।

কৃষি কাজে ট্রাক্টর ব্যবহার এবং এ ধরনের প্রযুক্তিগত উন্নতির মাধ্যমে তিনি অনেক চ্যালেঞ্জের ঊর্ধ্বে উঠে নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠা করেছেন। সন্তোষ আন্তরিকভাবে বিশ্বাস করে যে জীবনে সাফল্য পেতে হলে আমাদের অসুবিধাগুলিকে মেনে নিতে হবে এবং সেগুলি অতিক্রম করার সাহস থাকতে হবে।

আরও পড়ুনঃ আধুনিক পদ্ধতিতে চাষ, আজ তাঁর বার্ষিক আয় ৩০ লাখ ছাড়িয়েছে,এই কৃষকদের গল্প আপনাকে মুগ্ধ করবে

তিনি শুধু এসব সমস্যার মোকাবিলা করেননি, তার অনুপ্রেরণামূলক পদক্ষেপে গ্রামের মানুষকে উদ্বুদ্ধ করেছেন। তার সবচেয়ে বড় এবং প্রিয় স্বপ্ন হল পুরো গ্রাম একটি স্বনির্ভর উদ্যোগে পরিণত হয়। এবং এর জন্য তারা প্রতিদিন তাদের কাজের প্রতি নিষ্ঠার সাথে অবদান রাখে। সন্তোষ তার পুরো গ্রামকে একটি শক্তিশালী এবং স্বনির্ভর জীবনযাপন করতে অনুপ্রাণিত করেছে। তিনি প্রমাণ করেছেন যে একজনের যদি মানসিক শক্তি, প্রিয়জনের সমর্থন এবং উপযুক্ত নির্দেশনা থাকে তবে তারা যে কোনও অসুবিধা কাটিয়ে উঠতে পারে।

সন্তোষ শুধুমাত্র তাঁর জীবনকে উজ্জীবিত করেননি, গ্রামের সবাইকে সমৃদ্ধি ও সাফল্যের দিকে এগিয়ে যেতে অনুপ্রাণিত করেছেন। যে ব্যর্থতার বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে এবং সর্বদা নতুন উচ্চতার সন্ধানে থাকে তার দ্বারাই সাফল্য অর্জিত হয়, এটাই সন্তুষ্টির আদর্শ। সন্তোষের কাজ আমাদের অনুপ্রাণিত করে যে জীবনে একটি সফল যাত্রার জন্য, আমাদের কখনই হাল ছেড়ে দেওয়া উচিত নয়, তবে প্রতিটি সংকটকে একটি নতুন দিকে পরিণত করার আত্মবিশ্বাস থাকা উচিত।

Published On: 28 February 2024, 11:42 AM English Summary: amazing-story-santosh-kait-from-challenge-to-success

Like this article?

Hey! I am KJ Staff . Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters