মাটির অভিনব বিকল্প কোকো পিট

KJ Staff
KJ Staff

মৃৎ বৈজ্ঞানিকদের গবেষণা অনুযায়ী দেখা গেছে যে, শহুরে উদ্যানগুলিতে মৃত্তিকার পরিবর্তে পুষ্টিকর সমৃদ্ধ কোকো পিট ব্যবহার করা ব্যয়বহুল এবং নিরাপদ।  এক দশকেরও বেশি সময় ধরে নগরে সবুজ-বিপ্লবের সূচনা করে নতুন ধরণের উদ্যানের প্রবণতা নিয়ে এটি পরীক্ষার দ্বারপ্রান্তে। ক্রমবর্ধমান অরণ্যের প্রয়োজনীয়তা শহরের বহুতল ভবনের অনেক বাসিন্দাদের টেরেস ফার্মিংয়ের আগ্রহকে উত্সাহিত করেছিল।

তবে কংক্রিটের পাত্র, ছাদে ড্যাম্প এবং উদ্ভিদের পোকা এবং ধূলিকণা, বিল্ডিংয়ের কাঠামোগত ক্ষতির সম্ভাবনা – ইত্যাদির কারণে অনেক মানুষই শহুরে চাষ অনুশীলন থেকে বিরত ছিলেন।

এই সকল সমস্যার সমাধানযুক্ত পুষ্টি সমৃদ্ধ কোকো পিট ব্যবহার করে মৃত্তিকাবিহীন চাষ শহুরে উদ্যানের পক্ষে এক অন্যতম পন্থা।

নগরবাসীর আশঙ্কা দূরীকরণের উদ্দেশ্যে, মৃত্তিকা বিজ্ঞানী কালাভানান, (ব্যাঙ্গালোর), (ভারতীয় উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা ইনস্টিটিউট) প্রাঙ্গণে কোকো পিটের মাধ্যমে মরিচের উদ্ভিদ উত্থিত করে এবং সবজির উদ্ভিদ প্রদর্শন করে দেখিয়েছেন। 

যখন অনুর্বর মৃত্তিকা (লাল মাটি) শহুরে পরিবেশে দেখা যায়, তখন কেবলমাত্র পুষ্টি সমৃদ্ধ কোকো পিট ব্যবহার করে জৈব পদ্ধতিতে উদ্ভিদের উত্থানের সমস্যার সমাধান মেলে। মৃত্তিকাবিহীন চাষের কৌশল অবলম্বন করে, বেশ কয়েকজন উদ্যানবিদ মৃত্তিকার ব্যবহারের সাথে তার ব্যবহারের তুলনায় সাফল্যের সাথে তাদের প্রতিদিনের শাকসব্জির অনেক কম মূল্যে চাষ করেছেন এবং সাশ্রয় করেছেন।

মাটির ওজন এবং ভারী পাত্রের কারণে অনেকেই তাদের টেরেসের কাঠামোগত ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে থাকেন, কোকো পিট মাটির ওজনের দশ ভাগের এক ভাগ হওয়ায় তাদের জন্য এ এক অভিনব উপায়। একশ কেজি কোকো পিট আপনার বারান্দায় রাখা এক হাজার কেজি মাটির সমান। তদ্ব্যতীত, পুষ্টির ক্ষেত্রে এটির অধিক তাত্পর্য রয়েছে বলে “আইআইএইচআর –এর পরিচালক ডঃ এম আর দীনেশ জানিয়েছেন।

তাঁর বক্তব্য অনুযায়ী, ৫০০ জনেরও বেশি মানুষ এক গ্রামও মাটি ব্যবহার না করে, এই পদ্ধতি অবলম্বন করে ব্যালকনি এবং টেরেসে শোভাময় উদ্ভিদের উত্থান ছাড়াও, প্রতিদিনের নিত্যপ্রয়োজনীয় সবজি এবং ফল চাষ করেছেন।

আইআইএইচআর-এর বিজ্ঞানী (মৃত্তিকা বিজ্ঞানী) ডি কালাভানান বলেছেন, “প্যাথোজেনমুক্ত মাটি খুঁজে পাওয়া প্রায় অসম্ভব।  ক্ষারের মাত্রা, কীটপতঙ্গের উপস্থিতি এবং মাটিতে থাকা বিষাক্ত রাসায়নিক সর্বদা উত্পাদনকে প্রভাবিত করে। জলের তীব্র ঘাটতি কাটিয়ে উঠার জন্য কোকো পিট দ্বারা উদ্ভিদ প্রতিস্থাপন করাও একটি সমাধান। যদিও উপরের স্তরটি শুষ্ক বলে মনে হয়, তথাপি পিটের নিম্নাংশ সর্বদা পর্যাপ্ত পরিমাণে আর্দ্র থাকে। "

২০১০ সালে বিকশিত আরকা মাইক্রোবিয়াল কনসোর্টিয়াম সমৃদ্ধ আরকা-ফেরমেন্টেড কোকো পিট, নাগরিক উদ্যানপালকদের মধ্যে মৃত্তিকাবিহীন শাকসবজির সম্ভাব্য উপায় হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। প্রতিটি উদ্ভিদের জন্য প্রায় ৪ থেকে ৫ কেজি কোকো পিটের প্রয়োজন হয় এবং দু'তিন বছর ধরে তা স্থায়ী হয়। টমেটো, মরিচ, বেগুন, শিম, লাউ জাতীয় শাক সবজি এই পদ্ধতিতে জন্মাতে পারে। পালক জাতীয় পাতাযুক্ত শাকসব্জী থেকে শুরু করে ক্যাপসিকামের মতো সব্জীও জন্মাতে পারে কোকো পিটে ভরা সিমেন্ট ব্যাগের তৈরি পাত্র ব্যবহারে। এই চাষের দিকে ঝুঁকছেন অনেকেই, অন্যান্য ব্যয়ও এতে সাশ্রয় হয়।এছাড়াও কোকো পিট মাধ্যম উল্লম্ব বাগান করার জন্যও সুবিধাজনক। পিটটি পরজীবী মুক্ত হওয়ায় উদ্ভিদের মাটিবাহিত রোগ হওয়ার কোনও ভয় থাকে না। এটি আগাছা বৃদ্ধিকেও নিয়ন্ত্রণ করে। ব্যবহৃত কোকো পিট আবার পুষ্টিকর সমৃদ্ধ কম্পোস্ট হিসাবে পুনরায় ব্যবহার করা যেতে পারে।

স্বপ্নম সেন (swapnam@krishijagran.com)

 

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters