রুক্ষ জমি থেকে কিভাবে করবেন ফসল এর অধিক উৎপাদন

Friday, 26 March 2021 11:55 PM
Draught area crop cultivation (Image Credit - Google)

Draught area crop cultivation (Image Credit - Google)

পর্যাপ্ত গাছের অভাবে বৃষ্টি কম হয় আর সেই কারণে জলের অভাব হলে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় আমাদের দেশের কৃষকরা। রুক্ষ এলাকায় অপর্যাপ্ত মৌসুমি বৃষ্টিপাত ও হঠাৎ মুশলধারে বৃষ্টিপাতে হঢ়কা বাণে ভূমিক্ষয় হয় আর এর দরুণ প্রচন্ডভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় কৃষক। তাই রুক্ষ জমির জলধারণ ক্ষমতা বাড়াতে, টপ সয়েল বা মাটির উপরিভাগকে সুরক্ষিত করার কিছু পদ্ধতি আলোচনায় রইলো।

জৈব আচ্ছাদন এর সুবিধা (Advantages of Organic Poly Munch) -

  • জৈব আচ্ছাদন ব্যবহারের ফলে সূর্যরশ্মি প্রতিফলিত হয় ফলে মাটির অনুকূল তাপমাত্রা বজায় রাখতে সাহায্য করে।

  • জৈব আচ্ছাদন এর উপকরণ মাটির ভৌত-রাসায়নিক এবং জৈব চরিত্রের মান উন্নয়ন করে, মাটি ঝুরঝুরে হয় এবং মাটির মধ্যে উপকারী অণুজীবের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। এমনকি মাটির জৈব কার্বনের পরিমান বৃদ্ধি করে যার ফলে গাছের শেকড়ের বৃদ্ধি ভালো হয়।

  • আচ্ছাদন ব্যবহারের ফলে মাটি থেকে বাষ্পীভবনের হার নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে এবং জলের অপচয় কম হয়। সরাসরি সূর্যালোক প্রবেশ করতে না পারার জন্য এটি উষ্ণ এবং শুষ্ক আবহাওয়ার জন্য খুবই উপযোগী।

  • আগাছা নিয়ন্ত্রণে আচ্ছাদন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে কারন চাষের জমির উপরিভাগ আচ্ছাদন উপাদান দিয়ে ঢাকা থাকার ফলে সূর্যালোক সরাসরি মাটিতে প্রবেশ করতে পারে না।

  • জৈব আচ্ছাদন ব্যবহারের ফলে মাটির ক্ষয় কম হয় এবং জল ধারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

  • মাটির আর্দ্রতা ধরে রাখার পদ্ধতি - রুক্ষ জমিতে কৃষকরা যখন বৃষ্টি নির্ভর চাষ আবাদ করেন তখন তাদের বৃষ্টির প্রতিটি ফোঁটাকে সংরক্ষণ করা উচিত। এর জন্য জমির আর্দ্রতা ধরে রাখার ক্ষমতা বাড়াতে হবে। অল্প জল ব্যবহার করে উৎপাদন বৃদ্ধি করার দক্ষতা অর্জন করতে হলে মিশ্র চাষের ব্যবস্থা, গাছ লাগানো ও তাকে বাড়তে দেওয়া, পশুপালন সব কিছু এক সাথে করতে হবে যাতে একটি বিভাগের ‘বাই প্রোডাক্ট’ অন্য বিভাগে ব্যবহার করা যায়। কৃষিকাজের উদ্বৃত্ত অংশ যেমন পশুখাদ্য হিসেবে ব্যবহার করা যাবে তেমনই পশুরপালনের উদ্বৃত্ত পদার্থগুলি কম্পোস্ট সার তৈরিতে ব্যবহার করা যাবে বা সরাসরি সার হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। এই ভাবে উৎপাদন খরচ কমানোর সাথে সাথে জল সম্পদের সংরক্ষণও সম্ভব হবে।

  • সঠিক পরিকল্পনা – রুক্ষ জমিতে প্রথমিকভাবে কৃষক খরা প্রতিরোধী দেশীয় জাতগুলি লাগাতে পারেন যাতে কম জল লাগে। সাথে জমির একটা অংশে ছোট ছোট পুকুর বানিয়ে রাখলে বৃষ্টির জল সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করা যায়। পুকুরের জল বেড়ে গেলে সেখানে রুই, কাতলা, মৃগেল ইত্যাদি কাটাপোনা মাছ চাষ করা যাবে। পুকুরের জল চাষের কাজে ব্যবহার করা যাবে।

  • অ্যাজোলা চাষ – এই সমস্ত ছোট পুকুরে অ্যাজোলা চাষ করা যেতে পারে যা গরু, পোলট্রি এমনকি মাছেরও উৎকৃষ্ট পুষ্টিকর আহার যা গরুর দুধ উৎপাদন ও পোলট্রির ডিম উৎপাদন বাড়াতে সাহায্য করে। অ্যাজোলা পুকুরের জলের বাস্পীভবন কমিয়ে জলকে ধরে রাখতে সাহায্য করে।

আরও পড়ুন - এই মরসুমে চিনেবাদাম চাষ করে আয় করুন অতিরিক্ত অর্থ

  • জমিতে গোবর সার মেশানো হলে ৩-৫ বছর পর সেই জমির উৎপাদনশীলতা অনেকগুণ বেড়ে যাবে। জমির চারিধারে বড় বড় গাছ থাকলে সেই সমস্ত গাছের পাতা জমিতে বিছিয়ে রাখলে তা প্রাকৃতিক মাল্চিং এর কাজ করে জমির জল ধরে রাখতে সাহায্য করবে ও বন্ধুপোকাদের ও কেঁচোর সংখ্যা বাড়িয়ে জমিকে অনেক বেশী ফলনশীল করবে। ধৈর্য্যের সাথে ৩-৫ বছর সঠিক নির্দেশনার সাথে এই ভাবে জমির দেখাশোনা করলে জমির উৎপাদনশীলতা কয়েকগুণ বেড়ে যাবে।

আরও পড়ুন - ভারত-সহ সতেরোটি দেশে জলসংকট, দেখা দিতে পারে বিশ্বব্যাপী খ্যাদাভাব

English Summary: How to produce more crop from draught land

আপনার সমর্থন প্রদর্শন করুন

প্রিয় অনুগ্রাহক, আমাদের পাঠক হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আপনার মতো পাঠকরা আমাদের কৃষি সাংবাদিকতা অগ্রগমনের অনুপ্রেরণা। গ্রামীণ ভারতের প্রতিটি কোণে কৃষক এবং অন্যান্য সকলের কাছে মানসম্পন্ন কৃষি সংবাদ বিতরণের জন্যে আমাদের আপনার সমর্থন দরকার। আপনার প্রতিটি অবদান আমাদের ভবিষ্যতের জন্য মূল্যবান।

এখনই অবদান রাখুন (Contribute Now)

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.