ICAR - ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অফ রাইস রিসার্চ বিকশিত করেছে ৪ টি নতুন প্রজাতির ধান

KJ Staff
KJ Staff
Paddy (Image Credit - Google)
Paddy (Image Credit - Google)

ভারতীয় ধান্য গবেষণা কেন্দ্র (IIRR) সম্প্রতি কৃষকদের জন্য চারটি নতুন ধানের নাম প্রকাশ করেছে: ডিআরআর ধান ৫৩, ডিআরআর ধান ৫৪, ডিআরআর ধান ৫৫ এবং ডিআরআর ধন ৫৬। কৃষকদের জন্য এই জাতগুলি এক অভাবনীয় উদ্বোধন।

আইসিএআর-আইআইআরআর -এর পরিচালক প্রকাশ করেছেন যে এই চার জাতের ধান দেশের ধান উত্পাদন অবস্থাকে অবশ্যই স্থিতিশীল করবে। তাঁর বক্তব্য অনুযায়ী, সেরা ধানের দানা ব্যাকটেরিয়াজনিত রোগ এবং সংক্রমণের কারণে প্রভাবিত হয়, এই বিষয়টির উপর মনোনিবেশ করে ভারতীয় ধান গবেষণা কেন্দ্র চারটি জাতের চাল তৈরি করেছে, যা তাদের নিজস্ব উপায়ে অনন্য।

কীট এবং রোগ প্রতিরোধী জাত (Pest & Disease resistant Variety) - 

আইসিএআর এর বৈজ্ঞানিকরা এই ধরণের জাতগুলি উদ্ভাবন করেছেন। এই জাতের বিশিষ্টতা হল, এই প্রজাতিটি ধানকে সমস্ত ধরণের ব্যাকটিরিয়ার আক্রমণ থেকে বাঁচাতে পারে, যে সকল অঞ্চলে জলের সীমাবদ্ধতা রয়েছে, সেই সকল স্থানে এই জাতের ধানগুলির আবাদ কৃষকদের জন্য সাশ্রয়ী হবে এবং কৃষকরা অধিক ফলন পাবেন। সাম্বা মহাসুরির মতো সূক্ষ্ম শস্য ধানের জাতগুলি সাধারণত ব্যাকটিরিয়া রোগের দ্বারা আক্রান্ত হয়। Xanthomonas oryzae pv. oryzae ধানের অন্যতম মারাত্মক রোগ হিসাবে বিবেচিত হয়, যা ফসলের ফলন হ্রাস করে। এই ধরণের সংক্রমণটি রোধ করতে, আইসিএআরের বিজ্ঞানীরা ডিআরআর ধান ৫৩ উদ্ভাবন করেছেন। এটি একটি টেকসই ব্যাকটেরিয়াল ব্লাইট প্রতিরোধী উচ্চ ফলনশীল সূক্ষ্ম শস্য ধানের জাত। এটিতে চারটি বড় ব্যাকটিরিয়া ব্লাইট রেজিস্ট্যান্স জিন রয়েছে এবং এগুলি হ'ল মার্কার সাহায্যে নির্বাচিত মাধ্যমে ইন্ট্রোগ্রেসড Xa21 + Xa38 + Xa13 + Xa5।

এটির বীজ পরিপক্কতার সময়কাল প্রায় ১৩০ থেকে ১৩৫ দিন এবং ৫.৫০ প্রতি হেক্টর গড় ফলন সহ এই জাতগুলিতে রয়েছে উন্নত মানের এইচআরআর এবং পছন্দসই শস্য গুণমানের গুণাগুণ সহ অন্যান্য অনেক বৈশিষ্ট্য।

তেলঙ্গানা, কর্ণাটক, অন্ধ্র প্রদেশ, তামিলনাড়ু, ছত্তিসগড়, ওড়িশা, মহারাষ্ট্র, গুজরাট এবং বিহারের উন্নত সেচ ব্যবস্থায় স্থানীয় অঞ্চলে ব্যাকটেরিয়াল ব্লাইট প্রতিরোধী জাত চাষ করার জন্য এই জাতগুলির বিকাশ করা হয়েছে।

ভারতের বেশিরভাগ অঞ্চলে জলের ঘাটতির কারণে ডিআরআর ধান ৫৪ এবং ডিআরআর ধান ৫৫ এয়ারোবিক সিস্টেমের অধীনে এবং শুকনো বীজ ধানের আওতায় চাষের জন্য তৈরি করা হয়েছে। এই জাতটি মূলত হরিয়ানার জল-সীমিত জোন ২, ওড়িশা জোন ৩, বিহার ও ঝাড়খণ্ড; এবং গুজরাট জোন ৪, তেলেঙ্গানা জোন ৮ ইত্যাদি অঞ্চলে প্রকাশ করা হয়েছে;।

ডিআরআর ধান ৫৪ এবং ডিআরআর ধান ৫৫ এর মধ্যে রয়েছে প্রধান কীট ও ধানের বিভিন্ন  রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা। পাশাপাশি নেক ব্লাস্ট, লিফ ব্লাস্ট, থ্রিপস্‌, স্টেম বোরার এবং প্ল্যান্ট হপারের মতো রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা রয়েছে এই জাতের ধানের।

চতুর্থ জাতের ধান হ'ল ডিআরআর ধান ৫৬, যা হুয়াং-হুয়া-জা্‌ন/ফাল্গুনান (Huang-Hua-Zhan/Phalgunan) থেকে উদ্ভূত একটি সংকর জাত, যা আফ্রিকার দরিদ্র ও এশিয়া পর্বের দরিদ্রদের জন্য সহযোগী প্রকল্প "গ্রিন সুপার রাইস" এর আওতায় নির্মিত ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অফ রাইস রিসার্চ - হায়দ্রাবাদ ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অফ রাইস রিসার্চ ফিলিপাইন- এর উদ্যোগে।

আরও পড়ুন - Organic Farming: গবাদি পশুর জৈবিক কার্যাবলী মাটিকে উর্বর করে তোলে

এই জাতের ধান কুয়াশা, লিফ ব্লাস্ট ইত্যাদি রোগের প্রতিরোধী এবং এটি ব্যাকটিরিয়া গত আক্রমণ, যেমন লিফ ব্লাইট-এর মত রোগও প্রতিরোধ করতে পারে, পাশাপাশি এই জাত স্টেম বোরার-এর ক্ষেত্রেও সহনশীল। ডিআরআর ধান ৫৬ পাঞ্জাব ও হরিয়ানাতে উন্নত সেচব্যবস্থায় চাষের জন্য মুক্তি পেয়েছে।

আরও পড়ুন - Farming In Shade Net – শেড নেটে কেন চাষ করবেন? কি কি সুবিধা রয়েছে এতে? চাষে লাভের সহজ উপায় ছায়াজাল

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters