কিভাবে হাইব্রিড করলা চাষ করবেন, জেনে নিন সম্পূর্ণ পদ্ধতি

Saikat Majumder
Saikat Majumder

অনেক কৃষক তাদের জমিতে হাইব্রিড বিজ চাষ করতে চায়। কিন্তু সঠিক পদ্ধতি না জানার কারণে তারা তাদের ফসল নষ্ট হয়ে যায়। এমন পরিস্থিতিতে, আজ আমরা আপনাদের বলব হাইব্রিড করলার চাষ কীভাবে করবেন।

হাইব্রিড করলা

  • হাইব্রিড করলা গাছ দ্রুত বৃদ্ধি পায়।

  • হাইব্রিড করলা গাছে বড় আকারের ফল আসে এবং অধিক পরিমানে ফসল হয়।

  • অধিকাংশ চাষে কৃষকরা হাইব্রিড করলার বীজ ব্যবহার করেন।

  • হাইব্রিড করলা আকারে যেমন বড় হয় তেমনি পুষ্টিকর হয়।

  • তবে দেশি করলার চেয়ে স্বাদে কিছুটা তফাত পাওয়া যায়।

  • আপনি যদি প্রথমবারের মতো করলা চাষ করেন, তাহলে অবশ্যই হাইব্রিড জাতের করলার বীজ লাগাতে পারেন। কারণ হাইব্রিড বীজ থেকে উৎপন্ন করলা গাছে করলার ফল খুব তাড়াতাড়ি আসে।

  • হাইব্রিড করলার বীজ একটু দামি।

হাইব্রিড করলা চাষের জন্য কেমন মাটি  প্রয়োজন

ভালো নিষ্কাশন এবং পিএইচ রেঞ্জ ৬.-.৫ সহ জৈব পদার্থ সমৃদ্ধ বেলে দো-আঁশ মাটি করলা চাষের জন্য উপযুক্ত । এই ফসলের জন্য মাঝারি উষ্ণ তাপমাত্রা প্রয়োজন।

হাইব্রিড করলার বীজের হার

.৮ কেজি/হেক্টর

হাইব্রিড করলা জন্য জমি প্রস্তুতি

সূক্ষ্ম চাষের জন্য ক্ষেত লাঙ্গল করুন এবং ২ x ১.৫ মিটার দূরত্বে ৩০ সেমি x ৩০ সেমি x ৩০ সেমি আকারের গর্ত খনন করুন। ২ মিটার দূরত্বে তৈরি গর্তে রোপণ বা বপন করা হয়। ৮-১২ ঘন্টা একটানা ড্রিপ সিস্টেম চালিয়ে বিছানায় সেচ দেওয়া হয়।

করলা লাগানোর পদ্ধতি

আমাদের দেশে কৃষকরা তাদের সুবিধামত ফসল উৎপাদন করে থাকে। ভারতের অনেক কৃষক করলার বীজ সরাসরি জমিতে বপন করেন এবং কিছু কৃষক নার্সারি থেকে চারা এনে রোপন করেন। তবে নার্সারি পদ্ধতি গাছের জন্য অধিক উপকারী ও রোগমুক্ত বলে বিবেচিত হয়। ভালো পরিমাণে করলা উৎপাদন করতে চাইলে নার্সারি পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে।

আরও পড়ুনঃ ২.৫৯ কোটি হেক্টর জুড়ে বনভূমি বিলীন হয়ে গেছে,আপনি কি এখনও চিন্তিত নন

আপনি যদি সরাসরি জমিতে বীজ বপন করতে চান তবে প্রথমে আপনাকে প্রায় ১০থেকে ১২ ঘন্টা বীজ ভিজিয়ে রাখতে হবে। এরপর বীজ বপনের ১ ঘণ্টা আগে ম্যানকোজেব ওষুধ দিয়ে বীজ বপন করতে হবে। বীজ বপনের সময় খেয়াল রাখবেন বীজ যেন মাটিতে প্রায় ২ থেকে ২.৫ সেন্টিমিটার গভীরে থাকে।

করলা চাষের জন্য সার

যে কোনো জমিতে সার ব্যবহার নির্ভর করে ওই জমির মাটির উর্বরতার ওপর। তবে করলা ফসল বপন বা চারা রোপণের আগে গোবর সার বা কম্পোস্ট প্রয়োগ করা প্রয়োজন।

যেহেতু করলা ফসল খুব দ্রুত রোগাক্রান্ত হয়ে পড়ে, তাই কীটপতঙ্গ প্রায়শই এর শিকড় থেকে গাছের বাকি অংশে পৌঁছায় এবং গাছকে ধ্বংস করে। গাজর, লাল পোকা ও মহু রোগ এ ফসলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করে। তাই সময়ে সময়ে কৃষি বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে কীটনাশক বা রাসায়নিক সার ব্যবহার করতে হবে।

আরও পড়ুনঃ রং দ্বারা শনাক্ত করুন কোন কীটনাশক ফসলের জন্য বিপজ্জনক

হাইব্রিড করলা লাগানোর সময় সতর্ক থাকুন

বন্ধুরা, মনে রাখবেন বাজারের সবজির বীজ দিয়ে জন্মানো গাছে ভালো ফল আসবে না, আকারও বড় হবে না। কারণ বাজারে যেসব সবজি আসে সেগুলো হাইব্রিড বীজ থেকে জন্মায় এবং আপনি যখন হাইব্রিড বীজ থেকে তৈরি সবজির বীজ পুনরায় ফলান, তখন সেই বীজ থেকে উৎপন্ন গাছে ভালো সবজি আসে না। হাইব্রিড শাকসবজির বীজ পরীক্ষাগারে প্রস্তুত করা হয় এবং শুধুমাত্র একবার জন্মানো যায়। আপনাকে আবার রোপণের জন্য নতুন বীজ কিনতে হবে।

Published On: 08 March 2022, 11:35 AM English Summary: Learn how to cultivate hybrid karla, complete method

Like this article?

Hey! I am Saikat Majumder. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters