MFOI 2024 Road Show

কাঁঠাল চাষে ফিরতে পারে ভাগ্য,লাভ হবে দ্বিগুন,শিখে নিন পদ্ধতি

ভারতের অধিকাংশ কৃষক ঐতিহ্যবাহী কৃষি থেকে দূরে সরে অপ্রচলিত চাষাবাদে যেতে পছন্দ করছেন এবং এতে কৃষকরা সফল হচ্ছেন এবং ভালো আয়ও করছেন।

KJ Staff
KJ Staff
কাঁঠাল চাষের মাধ্যমে ধনী হবেন কৃষক (ছবির ক্রেডিট- ফ্রিপিক)

ভারতের অধিকাংশ কৃষক ঐতিহ্যবাহী কৃষি থেকে দূরে সরে অপ্রচলিত চাষাবাদে যেতে পছন্দ করছেন এবং এতে কৃষকরা সফল হচ্ছেন এবং ভালো আয়ও করছেন। কম সময়ে অধিক মুনাফা অর্জনের জন্য দেশের কৃষকরা সবজি চাষ করতে পছন্দ করেন। এর মধ্যে কাঁঠাল চাষও রয়েছে, চাষিরা কম সময়ে ভালো আয় করতে পারেন। কাঁঠাল চিরহরিৎ গাছে জন্মায়। এতে অনেক ধরনের পুষ্টিকর উপাদান পাওয়া যায়, যা আমাদের শরীরের জন্য খুবই উপকারী বলে মনে করা হয়। কাঁঠাল বেশিরভাগ কেরল এবং তামিলনাড়ুতে চাষ করা হয়।

কৃষি জাগরণ-এর এই প্রবন্ধে জেনে নেওয়া যাক কীভাবে কাঁঠাল চাষ করা হয় এবং এর জন্য উপযুক্ত জলবায়ু ও মাটি কী?

কাঁঠাল চাষ

কাঁঠাল গাছের উচ্চতা ৮ থেকে ১৫ মিটার এবং এর ফল বসন্ত ঋতু থেকে শুরু হয় এবং বর্ষাকাল পর্যন্ত ফল দেয়। এর গাছ আকারে ছোট ও মাঝারি এবং বেশ বিস্তৃত। কাঁঠালকে সেরা সবজি হিসাবে বিবেচনা করা হয়, কৃষকরা এর গাছ থেকে বছরে ৮০ থেকে ৯০টি ফল পাওয়া যায়। এই গাছ থেকে প্রাপ্ত ফলের রং গাঢ় সবুজ এবং এর আকৃতি গোলাকার। কাঁঠালের বীজের অংশ নরম হওয়ায় এর ফল পাকতে বেশি সময় লাগে।

আরও পড়ুনঃ কি এমন কৌশল যার মাধ্যমে আমরা জানতে পারি তরমুজ ভেতর থেকে লাল হবে কি না?

উপযুক্ত মাটি ও জলবায়ু

কৃষক যে কোনো ধরনের মাটিতে কাঁঠাল চাষ করতে পারে, তবে বেলে ও দোআঁশ মাটি তার জন্য উপযুক্ত বলে বিবেচিত হয়। এটি একটি গ্রীষ্মমন্ডলীয় ফল, কারণ এটি আর্দ্র এবং শুষ্ক উভয় আবহাওয়ায় উত্পাদিত হতে পারে। কাঁঠাল চাষে বেশি পানির প্রয়োজন হয় না। এর ফসলে খুব বেশি সেচের প্রয়োজন হয় না, অতিরিক্ত সেচও এর ফসল নষ্ট করতে পারে। এর শিকড় পানি শোষণ করতে সক্ষম নয়, তাই কৃষকদের তার ক্ষেতে সঠিক নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করতে হবে।

কাঁঠালের উন্নত জাত

  • সরস

  • আঁচড়

  • সিঙ্গাপুরের

  • গোলাপী

  • রুদ্রাক্ষী

কিভাবে কাঁঠাল গাছ রোপণ করতে হবে?

এই গাছ লাগানোর আগে পাকা কাঁঠাল থেকে বীজ বের করে নিতে হবে। বীজ বপনের জন্য উর্বর মাটি নির্বাচন করতে হবে। বীজ বপনের আগে জৈব সার ও অন্যান্য সার মাটিতে ভালোভাবে মিশিয়ে দিতে হয়, যাতে সঠিকভাবে চাষ করা যায়। বীজ বপনের পরপরই জল স্প্রে করতে হবে। চারা বপনের পর ১ বছর গাছের যত্ন নিতে হয়।

আরও পড়ুনঃ এপ্রিল মাসে লিচু ফেটে যেতে পারে, কৃষকদের উচিত অবিলম্বে এই সার স্প্রে করা

সার প্রয়োগ

কাঁঠাল গাছে প্রতি বছর ফল ধরে। তাই গাছের ভালো উর্বরতা ও উৎপাদনশীলতা বজায় রাখতে সময়ে সময়ে সার ব্যবহার করতে হয়। কৃষকরা তাদের জমিতে গোবর, ইউরিয়া, পটাশ ও ফসফরাসের মতো সার প্রয়োগ করতে পারেন। গাছের আকার বাড়ার সাথে সাথে আপনাকে এর সারও বাড়াতে হবে। এই গাছে সার দেওয়ার জন্য একটি গর্ত তৈরি করা হয় যাতে সার দেওয়া হয়।

কীটপতঙ্গ এবং রোগ

কাঁঠাল ফসলে পোকামাকড় ও রোগবালাই হওয়ার প্রধান কারণ সময়মতো সার প্রয়োগ না করা এবং কম সেচ না দেওয়া। এ ছাড়া কাঁঠাল ক্ষেতে আর্দ্রতাও রোগের প্রধান কারণ হতে পারে। অনেক সময় ফসলের অত্যধিক সেচ এবং অতিরিক্ত বৃষ্টিপাতের ফলেও জমিতে আর্দ্রতা তৈরি হয়, যা ফসলের উৎপাদনশীলতাকে প্রভাবিত করে।

Published On: 05 June 2024, 06:06 PM English Summary: Luck can return to jackfruit cultivation, profit will be doubled, learn the method

Like this article?

Hey! I am KJ Staff . Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters