স্বর্ণ বসুন্ধরা – সয়াবিনের নতুন এক উন্নত জাত প্রচলন করল আইসিএআর (ICAR launches a new improved variety of soybean)

Monday, 14 December 2020 06:37 PM
Soybean cultivation  (Image credit - Google)

Soybean cultivation (Image credit - Google)

সয়াবিনকে বলা হয় হলুদ স্বর্ণ। কৃষকরা বিশ্বাস করেন যে, সয়াবিন চাষ নিশ্চিতভাবে তাদের পক্ষে লাভজনক, কারণ এতে ক্ষতির সম্ভবনা কম। মধ্য প্রদেশ কালো সোনা (আফিম) এবং হলুদ সোনা (সয়াবিন)-র জন্য খ্যাত। বিশ্বের ৬০% সয়াবিন আমেরিকাতে উত্পাদিত হয়, এছাড়াও মধ্য প্রদেশ ভারতের সয়াবিনের বৃহত্তম উত্পাদক। সয়াবিন গবেষণা কেন্দ্রটি ইন্দোরে রয়েছে। সয়াবিনের বৈজ্ঞানিক নাম 'গ্লাইসিন ম্যাক্স'। এতে প্রোটিন বেশি থাকে, নিরামিষ হলেও এর থেকে মানুষ মাংসের মতো প্রোটিন পান। প্রধান উপাদানগুলি হ'ল প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট এবং ফ্যাট। সয়াবিনে ৩৮-৪০ শতাংশ প্রোটিন, ২২ শতাংশ অয়েল, ২১ শতাংশ কার্বোহাইড্রেট, ১২ শতাংশ ময়েশ্চার এবং ৫ শতাংশ কনসাম্পশন রয়েছে। সয়াবিন একটি ডাল ফসল, এটিতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন রয়েছে।

প্রায় ৫৩.০০ লক্ষ জমিতে সয়াবিনের চাষ হয়ে থাকে। পশ্চিমবঙ্গে এখনও ব্যাপকভাবে এর চাষ শুরু হয়নি ঠিকই। আমাদের দেশে মধ্যপ্রদেশে সয়াবিন সবচেয়ে বেশি উৎপাদিত হয়। তবে লাভজনক ফসল হওয়ায় অনেকেই এর চাষে আগ্রহ দেখিয়েছেন।

আইসিএআর পূর্ব অঞ্চলের জন্য, পার্বত্য ও মালভূমি অঞ্চল, প্লান্দু, রাঁচি, ঝাড়খণ্ডের জন্য এবং ভারতে বাণিজ্যিক উন্নয়নের জন্য ‘স্বর্ণ বসুন্ধরা’ নামে, সয়াবিনের এক উন্নত জাত প্রচলন করেছে। এই জাত প্রস্তুত হতে সময় লাগে ৭০-৭৫ দিন।

এটি ভোজ্য প্রোটিন, কার্বস, লিপিডস, প্রয়োজনীয় ফ্যাট, ফসফরাস, আয়রন, ক্যালসিয়াম, জিঙ্ক, থায়ামিন, রাইবোফ্লাভিন, ভিটামিন ই, ফাইবার এবং শর্করার এক আশ্চর্যজনক উত্স। সবুজ মটরশুটিগুলি রান্নায় ব্যবহার করা হয় এবং শুকনো বীজ পণ্য তৈরির জন্য ব্যবহৃত হয়।

২০১৯ সালে পুনে থেকে আগত এগ্রিপ্রিনার চন্দ্রকান্ত দেশমুখ আইসিএআর (প্লান্দু) থেকে ৫০ কিলো স্বর্ণ বসুন্ধরার বীজ সংগ্রহ করেন এবং তার চাষাবাদ করেন। ২০২০ সালে, তিনি মহারাষ্ট্রের পার্বনী তালিকার ওয়ারপুদে ১০ একর জমিতে স্বর্ণ বসুন্ধরার বিকাশ করেন এবং স্প্রিংকলার সেচের ব্যবস্থাপনায় (৬০ সেমি x ১৫ সেমি.) তিনি প্রতি একর জমির জন্য ১৫ কুইন্টাল (২ য় এবং ৩ য় চাষযুক্ত) শুটি সংগ্রহ করেছিলেন।

স্বর্ণ বসুন্ধরার আর্থিক লাভ (Soybean new variety) -

চাষাবাদ ব্যয়: ৩০,০০০/- টাকার মধ্যে জমি ইজারা মূল্য, জমি, সার ও সার প্রস্তুতকরণ, সেচ ব্যবস্থা, আন্তঃসংস্কৃতিক ক্রিয়াকলাপ, কীটনাশক, ফসল সংগ্রহ ইত্যাদি রয়েছে।

মোট আয়: ৩,০০,০০০/- (১৫ কুইন্টাল, বাজারের মূল্য: ২০০ টাকা কেজি)

ব্যয় পরবর্তী আয় :

২,৭০,০০০ টাকা।

বিপণনের জন্য দেশমুখ শুভ্র সবুজ দানাগুলি ১৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে রেখে দেন। দেড় বছর অবধি এগুলি সংরক্ষণ করা যেতে পারে। এই সবুজ দানা কেজি প্রতি ৩০০ টাকা দরে ​​বিক্রি হয়। বাজারের চাহিদা অনুযায়ী তিনি হিমশীতল দানাগুলি পুনে, মুম্বই, বেঙ্গালুরু এবং হায়দ্রাবাদে প্রেরণ করছেন। শাঁসযুক্ত সবুজ বীজ প্রক্রিয়াকরণের পরে প্রতি কেজি ৪০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এটি নুন দিয়ে কাঁচাও খাওয়া হয়।

স্বর্ণ বসুন্ধরার থেকে তৈরি টোফু প্রতি কেজি ৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। স্বর্ণ বসুন্ধরার ১ কিলো দানা থেকে ২২৫ কেজি সয়া পনির তৈরির ব্যয় ১৩,০০০ টাকা। এই সয়া পনির বিক্রয় থেকে নিখরচায় লাভ হয় ৫৪,৫০০ টাকা। এই দানা আটা তৈরিতেও ব্যবহার করা হচ্ছে। এছাড়া সয়া দই, চানা, গুলাব জামুন মিষ্টি, হিমায়িত দই এবং আরও অনেক পণ্য স্বর্ণ বসুন্ধরার শস্য থেকে অতিরিক্তভাবে তৈরি করা হচ্ছে। এই পণ্য ব্যতিক্রমীভাবে লাভজনক এবং কৃষকদের অর্থনৈতিক ক্ষেত্র এতে বিস্তারলাভ করছে।

আরও পড়ুন - শীতকালীন অর্থকরী ফসল আলুতে পোকার আক্রমণ ও তার প্রতিকার (Cash Crop Potato)

English Summary: Swarna Bashundhara - ICAR launches a new improved variety of soybean

আপনার সমর্থন প্রদর্শন করুন

প্রিয় অনুগ্রাহক, আমাদের পাঠক হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আপনার মতো পাঠকরা আমাদের কৃষি সাংবাদিকতা অগ্রগমনের অনুপ্রেরণা। গ্রামীণ ভারতের প্রতিটি কোণে কৃষক এবং অন্যান্য সকলের কাছে মানসম্পন্ন কৃষি সংবাদ বিতরণের জন্যে আমাদের আপনার সমর্থন দরকার। আপনার প্রতিটি অবদান আমাদের ভবিষ্যতের জন্য মূল্যবান।

এখনই অবদান রাখুন (Contribute Now)

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.