বিশুদ্ধ দুধ বা ক্লিন মিল্ক

Saturday, 30 June 2018 01:58 PM

সুস্থ, স্বাস্থ্যবতী গাভী থেকে স্বাস্থ্যকর পরিবেশে উৎপাদিত, পরিচালিত (handled) ও  পরিবাহিত(transported) যে দুধের মধ্যে মানুষের ক্ষতি সাধনকারী জীবানু থাকে না এবং অন্যান্য জীবাণুর (commensal) সংখ্যা অল্পই থাকে, যে দুধ কাঁচা অবস্থাতেই দীর্ঘস্থায়ী হয়, তাকেই ক্লিন মিল্ক বলে। অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, গাভী ও অব্যবস্থায় উৎপাদিত দুধের মধ্যে প্রচুর জীবানু থাকে যা দ্রুত হারে বৃদ্ধি পায় ও পান করলে রোগগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

ভারতবর্ষ পৃথিবীতে প্রথম দুগ্ধ উৎপাদক দেশ হিসেবে চিহ্নিত হলেও সেই দুধের মান আন্তর্জাতিক মানের নয়। উন্নত দেশগুলিতে স্বাস্থকর পরিবেশে উৎপাদিত দুধ ৪ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড বা তার নীচে ঠান্ডা করে পরিষ্কার ও জীবাণুমুক্ত পাত্রে ঢাকা অবস্থায় ডেয়ারি প্লান্টে নিয়ে যাওয়া হয়। অপরদিকে আমাদের দেশের ৯০% দুধ উৎপাদিত হয় গ্রাম্য পরিনেশে ও দুধ উৎপাদনের প্রচলিত রীতিসমূহ ক্লিন মিল্ক উৎপাদনের সহায়ক নয়।

ক্লিন মিল্ক উৎপাদনের ন্যূনতম করণীয় বিষয় গুলি হল –

  • গাভী থেকে যে সমস্ত জীবাণু দুধের মধ্যে সংক্রমিত হয় ঐ সমস্ত জীবাণুঘটিত রোগমুক্ত কিনা তা পরীক্ষা দ্বারা নিশ্চিত হতে হবে।

  • গাভীর দেহ পরিষ্কার রাখতে হবে।

  • দুধ দোহনকারী ও গোপালককে সংক্রামক রোগ মুক্ত হতে হবে।

  • দুধ সংগ্রহের পাত্রসমূহ জীবাণুমুক্ত হতে হবে।

  • গাভীকে পরিষ্কার পরিবেশে পালন করতে হবে।

  • দুধ ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার নীচের তাপমাত্রায় রাখতে হবে, যতক্ষণ না সেই দুধ স্বাস্থ্যসম্মত ভাবে প্রস্তুত হয়ে সাধারণের ব্যবহারের উপযোগী করে তোলা যায়।

- রুনা নাথ

English Summary: Clean milk

আপনার সমর্থন প্রদর্শন করুন

প্রিয় অনুগ্রাহক, আমাদের পাঠক হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আপনার মতো পাঠকরা আমাদের কৃষি সাংবাদিকতা অগ্রগমনের অনুপ্রেরণা। গ্রামীণ ভারতের প্রতিটি কোণে কৃষক এবং অন্যান্য সকলের কাছে মানসম্পন্ন কৃষি সংবাদ বিতরণের জন্যে আমাদের আপনার সমর্থন দরকার। আপনার প্রতিটি অবদান আমাদের ভবিষ্যতের জন্য মূল্যবান।

এখনই অবদান রাখুন (Contribute Now)

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.