দুগ্ধ উদ্যোক্তা উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় কৃষকরা লোণ পেতে পারেন ২০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত

Friday, 17 January 2020 06:33 PM

ভারতে পশুপালন ক্ষেত্রকে উন্নীত করতে এবং দুগ্ধচাষীদের সহায়তা করার জন্য সরকার বহু পরিকল্পনা চালু করেছে। পশুপালন, গবাদিপশু ও মৎস্য অধিদফতর (ডিএএইচডি এবং এফ) ২০০৫-০৬ সালে দুগ্ধ ও হাঁস-মুরগির জন্য “ভেনচার ক্যাপিটাল স্কিম” নামে একটি পাইলট স্কিম চালু করেছিল।  দুগ্ধ খাতে কাঠামোগত পরিবর্তন আনতে এই প্রকল্পটির লক্ষ্য ছিল ছোট দুগ্ধ খামার স্থাপন ও অন্যান্য উপাদান স্থাপনে সহায়তা বৃদ্ধি। পরে, ডিএএইচডি এবং এফ এর নাম পরিবর্তন করে 'দুগ্ধ উদ্যোক্তা বিকাশ প্রকল্প' (ডিইডিএস) করে এবং সংশোধিত প্রকল্পটি ২০১০ সালের ১ সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হয়।

ন্যাশনাল ব্যাংক ফর এগ্রিকালচার অ্যান্ড পল্লী বিকাশ, যা নাবার্ড নামে পরিচিত, এই প্রকল্প বাস্তবায়নের নোডাল এজেন্সি। সমবায় ব্যাংক, বাণিজ্যিক ব্যাংক ও আঞ্চলিক পল্লী ও নগর ব্যাংক, রাজ্য সমবায় কৃষি ও পল্লী উন্নয়ন ব্যাংক এবং এই জাতীয় সংস্থা যেগুলি নাবার্ড থেকে পুনঃবিবেচনার জন্য যোগ্য, তারাও এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে।

'দুগ্ধ উদ্যোক্তা উন্নয়ন প্রকল্প' এর উদ্দেশ্য -

১)পরিষ্কার দুগ্ধ উৎপাদনের জন্য নতুন / আধুনিক দুগ্ধ খামার স্থাপনের প্রচার ক...

২)গরু বাছুর লালনপালনের জন্য পালককে উত্সাহিত করা।

৩)বাণিজ্যিক স্কেলে দুগ্ধ পরিচালনা করার মান ও ঐতিহ্যবাহী প্রযুক্তির উন্নতিসাধন।

৪)অসংগঠিত খাতে কাঠামোগত পরিবর্তন, যাতে প্রাথমিক পর্যায়ে গ্রাম পর্যায়ে প্রাথমিক দুধ প্রক্রিয়াজাতকরণ করা যায়।

৫)স্ব-কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং মূলত অসংগঠিত খাতের অবকাঠামো সরবরাহ করা।

দুগ্ধ উদ্যোক্তা উন্নয়ন প্রকল্প থেকে কারা উপকৃত হতে পারেন?

  • এই প্রকল্পের আওতায় বেশ কয়েকটি গোষ্ঠী সহায়তা পাবেন। যেমন - কৃষক, স্বতন্ত্র উদ্যোক্তা, সংস্থা, এনজিও, সংগঠিত গোষ্ঠীগুলি (স্বনির্ভর গোষ্ঠী, দুগ্ধ সমবায় সমিতি, দুধ ফেডারেশন, দুধ ইউনিয়ন)।
  • কোনও ব্যক্তি যোজনার আওতাধীন সমস্ত উপাদানগুলির জন্য (প্রতিটি উপাদানগুলির জন্য কেবল একবার) সহায়তা পেতে সক্ষম হবেন।
  • পরিবারের একাধিক সদস্য ডেয়ারি এন্টারপ্রেনারশিপ ডেভলপমেন্ট স্কিমের আওতায় বিভিন্ন স্থানে পৃথক অবকাঠামো সহ পৃথক ইউনিট স্থাপন করলে তাদের সহায়তা করা যেতে পারে।

প্রকল্পটির সুবিধা -

মিল্কিং মেশিন / দুগ্ধ পরীক্ষক / বাল্ক মিল্ক কুলিং ইউনিট কেনার জন্য (৫০০০ লিটার সক্ষমতা পর্যন্ত) - ২০ লক্ষ টাকা এবং দেশি দুগ্ধজাত পণ্য উৎপাদনের জন্য দুগ্ধ প্রক্রিয়াকরণ সরঞ্জাম কেনার জন্য - ১৩.২০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত পশুপালক পেতে পারেন।

স্বপ্নম সেন (swapnam@krishijagran.com)



Krishi Jagran Bengali Magazine Subscription Subscribe Online

Download Krishi Jagran Mobile App

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.