Fish Farming: খাঁচায় মাছ চাষে বিপুল লক্ষীলাভ, নিবন্ধটি পুরো পড়ুন

KJ Staff
KJ Staff
Fish Farming (Image Credit - Google)
Fish Farming (Image Credit - Google)

গ্রামীণ অর্থনীতির বিকাশে কৃষির এক গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো মৎস | যা বিগত তিন দশকের কৃষি অর্থনীতির পরিসরে বিপুল সাড়া জাগিয়েছে | পুকুরে, বা চৌবাচ্চায় অনেকেই মাছ চাষ (Fish cultivation) করে থাকেন| তবে, খাঁচায় মাছ চাষ করে বিপুল পরিমান অর্থ উপার্জন করা যায় |

সাম্প্রতিক কালের প্রধানমন্ত্রী মৎস্য সম্পদা যোজনায় ও খাঁচায় মাছ চাষে চাষীদের প্রোৎসাহিত করার জন্যে প্রচুর ফান্ডের ব্যবস্থা করা হয়েছে যা রাষ্ট্রীয় মৎস্য বিকাশ বোর্ড (NFDB) বা রাজ্যের মৎস্য দপ্তরের মাধ্যমে বন্টনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।এই নিবন্ধে এই দারুন পদ্ধতি সম্পকে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো;

খাঁচা নির্বাচন (Cage Culture) :

এই সব খাঁচার আকার/আকৃতি ৫মি X ৫মি X ৪মি (হাপার দৈর্ঘ্য), সুতারং, উৎপাদনশীল ঘনত্ব ৮৭.৫ ঘন মি.। গোলাকৃতি খাঁচার ক্ষেত্রে হাপার দৈর্ঘ্য ৪ মি. ও ব্যাস ২০ মি. হলে উৎপাদন ঘনত্ব হবে ১০০০ ঘন মি. |

মাছ নির্বাচন (Fish selection):

রুই/কাতলার (Rohu/ Catla fish farming)বাজারীকরণ সাইজের ১-২ কি. গ্রাম এর ৬/৭ মাসে উৎপাদন করা যাবে।

খাবার (Food):

খাঁচায় মাছ চাষের খাবার হিসেবে কার্প জাতীয় মাছের জন্যে ২৫-২৮% প্রোটিন যুক্ত খাবার যথেষ্ট, রাইস ব্রন (তৈল নির্গত), সর্ষের খোল, বাদাম খোল ই যথেষ্ট। এছাড়া পাঙ্গাস জাতীয় মাছের (Pangas  Fish) ক্ষেত্রে ভাসমান খাবার প্রথম দিকে ২৮-৩২% প্রোটিন যুক্ত ও বৃদ্ধির সাথে সাথে ২৪-২৫% প্রোটিন যুক্ত খাবার দিলেই যথেষ্ট।

চাষ পদ্ধতি (farming process):

প্রথম দিকে ভাসমান খাবারের দানার মাপ ১-২ মিলি মিটার ও পরের দিকে ৪-৫ মিলি মিটার দিতে হবে। খাবারের দানা যাতে নেটের (১ ইঞ্চি) ফাঁক দিয়ে গলে বাইরে চলে যেতে না পারে তার জন্যে জলের উপরের অংশে আধা মিটার একেবারেই ছোট ফাঁসের (০-১ মিলি মিটার) নেট দিয়ে চারিদিকে ঘিরে দিলেই হবে। সাধারণত, হাপা জলে স্থাপিত করার এক সপ্তাহ পরে মাছ ছাড়া হয়, না হলে মাছেরা হাপার ধরে গিয়ে তাদের গা ঘষে ঘষে শরীরের রোগ প্রতিরোধক পিচ্ছিল পদার্থের আবরণকে উন্মোচিত করে | ফলত, বহিঃপরজীবীর আক্রমণের শিকার হয় ও মারা যায়।সেইজন্য এক সপ্তাহ জলে ডুবে থাকলে নেটে শৈবাল জুড়ে গিয়ে নেটের গা মসৃণ রাখে ও মাছের প্রাথমিক আবহে খাপ খাওয়াতে ও বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

নেটলন হাপা জলে ডুবে থাকার ফলে নেটের গায়ে অতিরিক্ত শৈবাল/স্পঞ্জ জমে নেটের ফাঁক গুলোকে বন্ধ করে জলে দ্রবীভূত অক্সিজেনের ঘাটতি ঘটে । সেইজন্যে, জলের ফ্লাশিং বৃদ্ধির তাগিদে সাধারণত নরম ব্রাশ ব্যবহার করে নেটের গায়ের জমে যাওয়া অতিরিক্ত শৈবাল/স্পঞ্জ কে তুলে দিয়ে নেটের ফাঁক কে পরিষ্কার রাখা হয়। এছাড়া জৈব পদ্ধতিতে ও প্রতি হাপায় ৫-১0 টি করে ৫-১0 গ্রাম সাইজের জাপানি পুঁটি/কালবোস/মনোসেক্স তিলাপিয়া ছেড়ে দিলে তারা নেটের ফাঁসকে পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে।

চাষ পদ্ধতি (Farming process):

প্রথম দিকে ভাসমান খাবারের দানার মাপ ১-২ মিলি মিটার ও পরের দিকে ৪-৫ মিলি মিটার দিতে হবে। খাবারের দানা যাতে নেটের (১ ইঞ্চি) ফাঁক দিয়ে গলে বাইরে চলে যেতে না পারে তার জন্যে জলের উপরের অংশে আধা মিটার একেবারেই ছোট ফাঁসের (০-১ মিলি মিটার) নেট দিয়ে চারিদিকে ঘিরে দিলেই হবে। সাধারণত, হাপা জলে স্থাপিত করার এক সপ্তাহ পরে মাছ ছাড়া হয়, না হলে মাছেরা হাপার ধরে গিয়ে তাদের গা ঘষে ঘষে শরীরের রোগ প্রতিরোধক পিচ্ছিল পদার্থের আবরণকে উন্মোচিত করে | ফলত, বহিঃপরজীবীর আক্রমণের শিকার হয় ও মারা যায়।সেইজন্য এক সপ্তাহ জলে ডুবে থাকলে নেটে শৈবাল জুড়ে গিয়ে নেটের গা মসৃণ রাখে ও মাছের প্রাথমিক আবহে খাপ খাওয়াতে ও বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

নেটলন হাপা জলে ডুবে থাকার ফলে নেটের গায়ে অতিরিক্ত শৈবাল/স্পঞ্জ জমে নেটের ফাঁক গুলোকে বন্ধ করে জলে দ্রবীভূত অক্সিজেনের ঘাটতি ঘটে । সেইজন্যে, জলের ফ্লাশিং বৃদ্ধির তাগিদে সাধারণত নরম ব্রাশ ব্যবহার করে নেটের গায়ের জমে যাওয়া অতিরিক্ত শৈবাল/স্পঞ্জ কে তুলে দিয়ে নেটের ফাঁক কে পরিষ্কার রাখা হয়। এছাড়া জৈব পদ্ধতিতে ও প্রতি হাপায় ৫-১0 টি করে ৫-১0 গ্রাম সাইজের জাপানি পুঁটি/কালবোস/মনোসেক্স তিলাপিয়া ছেড়ে দিলে তারা নেটের ফাঁসকে পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে।

কিভাবে চাষীরা লাভ করেছেন (Farmers profit):

রাজ্যের উদ্যোগী যুব সংগোষ্ঠী, স্বনির্ভর দল, মৎস্য চাষি সমবায় সমিতি এবং উদ্যোগী মাছ চাষিরা এই বাংলার প্রচুর খোলা জলরাশিতে খাঁচায় মাছ চাষ করে অর্থনৈতিক স্বনির্ভর হাওয়াই শুধু নয়, গ্রাম বাংলার অপুষ্টি দূরীকরণে এক মুখ্য ভূমিকা নিতে পারেন । আগ্রহী সংগঠন/গোষ্ঠী/মৎস্য সমবায় সমিতি/উদ্যোগী ব্যক্তি বা যুবা গণ কেন্দ্রীয় বা রাজ্য স্তরে খাঁচায় মাছ চাষের সরকারি অনুদান গ্রহণ করার জন্যে আবেদন করতে পারেন।

আরও পড়ুন - Black Goat Farming: কম খরচ আর ঝুঁকিতে কালো ছাগল পালনে অধিক লাভ করুন

এছাড়া, খাঁচায় মাছ চাষের দক্ষতা অর্জনের জন্যে কেন্দ্রীয় ও রাজ্য স্তরে বিভিন্ন প্রশিক্ষণেরও বন্দোবস্ত করা হয়েছে। আগ্রহী প্রার্থী ও সংগঠিত গোষ্ঠী এই প্রশিক্ষণের সুফলকে কাজে লাগিয়ে খাঁচায় মাছ চাষের সাথে সাথে খাঁচা নির্মাণ ও সরবরাহ করে অর্থনৈতিক শ্রীবৃদ্ধি ঘটাতে পারেন। আগামী বাংলা তথা গ্রামীণ ভারতে এই খাঁচায় মাছ চাষের উত্তরোত্তর উন্নতির জন্য বেকারদের এগিয়ে আসতে হবে। এর সুফল লাভে সচেষ্ট হলে নিজেদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের নতুন দিশা খুঁজে পাবেন তারা। ফলত, চাষীদের উন্নতির সাথে সাথে গ্রামীণ অর্থনীতিরও বিকাশ ঘটবে বহুল |

নিবন্ধ: রায়না ঘোষ

আরও পড়ুন - Beetal Goat Farming: বিটল জাতের ছাগল পালনে পশুপালকের হবে দ্বিগুন আয়

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters