মাটি সম্পর্কে দু-চার কথা

Tuesday, 12 March 2019 10:52 AM

মাটির সংজ্ঞাঃ

মৃত্তিকা-বিজ্ঞানীগণ মাটির নানারূপ সংজ্ঞা দিয়েছেন, যেমনঃ

(১) ভূ-পৃষ্ঠের নরম আবরনের নাম মৃত্তিকা।

(২) উদ্ভিদ জন্মানোর উপযোগী খনিজ, জীব ও জৈব সমন্বয়ে গতিশীল প্রাকৃতিক বস্তুকে মাটি বলে।

(৩) সময়ের ব্যবধানে জলবায়ূ ও জৈব পদার্থের সমন্বিত প্রভাবে রূপান্তরিত উৎস শিলা সৃষ্ট গাছ জন্মানোর উপযোগী ভূ-পৃষ্ঠের প্রাকৃতিক বস্তর সমষ্টিকে মৃত্তিকা বলে।

(৪) পৃথিবীর উপরিভাগের যে নরম স্তরে গাছপালা মূল স্থাপন করে রস শোষণ করে জন্মায় ও বৃদ্ধি পায় তাকে মাটি বলে।

(৫) মাটি হচ্ছে কঠিন পদার্থের ছোট ছোট টুকরা, জল ও বায়ুর সমন্বয়ে গঠিত যৌগিক পদার্থ।

(৬) পৃথিবীর শক্ত আবণের সবচেয়ে উপরের স্তরকে মাটি বলে।

মাটির বৈশিষ্ট্য (Soil properties) - মাটিতে বিদ্যমান কঠিন, তরল বা বায়বীয় পদার্থ যৌথভাবে একটি বিশেষ প্রকৃতি উৎপন্ন করে। মাটির এই প্রকৃতি প্রকাশের জন্য মাটির সকল বৈশিষ্ট্যকে নিম্নরূপ ৩টি শ্রেণীতে বর্ণনা করা হয়। যেমন-

ক) মাটির ভৌত বৈশিষ্ট্য

খ) মাটির রাসানিক বৈশিষ্ট্য

গ) মাটির জৈবিক বৈশিষ্ট্য

জমি চাষাবাদ, ফসল উৎপাদন ও মৃত্তিকা উর্বরতা ব্যবস্থাপনায় মাটির ভৌত রাসায়নিক ও জৈবিক ধর্মের প্রভাব খুব তাৎপর্যপূর্ণ।

মৃত্তিকা বৈশিষ্ট্য প্রভাবিত করে এমন কতগুলি কৃষি প্রক্রিয়া নিচে উল্লেখ করা হলো -

১। বীজের অঙ্কুরোদ্গম

২। তাপমাত্রা ও বায়ুচলাচল

৩।  জল বাহন ও ভুমি ক্ষয়

৪। উদ্ভিদ শিকড়ের প্রতিষ্ঠা

৬। উদ্ভিদ ধারণ ও পুষ্টি 

- রুনা নাথ (runa@krishijagran.com)



Krishi Jagran Bengali Magazine Subscription Subscribe Online

Download Krishi Jagran Mobile App

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.