ভারতে কৃষি ঋতু ও প্রধান ফসলের বিবরণ

Friday, 11 January 2019 04:47 PM

ভারত প্রধানত একটি কৃষি দেশ। কৃষি আমাদের অর্থনীতির মূল কেন্দ্র।

কৃষি উন্নয়ন

স্বাধীনতার পরও কৃষি উৎপাদন বেশ কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে, তবে কিছু বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা সুষম বৃদ্ধি ও উন্নয়নে বাধা দেয়। তাই আমাদের দেশকে স্বাবলম্বী করার জন্য ফসলের প্যাটার্নে কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে যেমন:

১. জমিদারি ব্যবস্থা বাতিল করা হয়েছে

২. ছোট ভূমি হোল্ডিং (বেশ অস্বাভাবিক) সংহত করা হয়

৩. নতুন ধরনের উন্নত উচ্চ ফলনশীল বীজ  তৈরি করা হয়েছে  ।

৪. কৃষকদের  নিজস্ব নলকূপ ইনস্টল করার জন্য বিদ্যুত সরবরাহ করা হয়েছে।

৫. কৃষকদের আরও ভালো বিপণন ও পরিবহন সুবিধা প্রদানের প্রচেষ্টা।

ভারতে কৃষি ঋতু:

খরিফ ঋতু:

দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমীর  শুরুতে বপন করা হয় এবং দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মৌসুমী  শেষে ফসল কাটা হয়।

বপন ঋতু:  মে থেকে জুলাই।

ফসল কাটার ঋতু: সেপ্টেম্বর থেকে অক্টোবর

গুরুত্বপূর্ণ ফসল: জোয়ার, বাজরা, চাল, ময়দা, তুলা, চীনাবাদাম, পাট,  তামাক ইত্যাদি।

আরও পড়ুন হরিয়ানায় শুরু হতে চলেছে ঢিংরী মাশরুমের

রবি ঋতু:

ফসল বৃদ্ধির সময় শীতল জলবায়ু প্রয়োজন কিন্তু বীজ পরিপক্বতা এবং  অঙ্কুরের   সময় গরম জলবায়ু প্রয়োজন।

 বীজ বপন সময় : অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর।  

ফসল কাটার ঋতু: ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল।

গুরুত্বপূর্ণ ফসল: গম, বার্লি,  সরিষা, মাসুর এবং মটরশুটি।

জেড ঋতু :

এই ফসল কৃত্রিম সেচের কারণে সারা বছর ধরে উৎপাদন করা যায়।

জেড খরিফ ফসলঃ

বপন ঋতু: আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বর

ফসল কাটার ঋতু: ডিসেম্বর-জানুয়ারী

গুরুত্বপূর্ণ ফসল: চাল, জোয়ার, রেপসিড, তুলা, তৈলবীজ।

জেড রবি ফসল:

বপন ঋতু: ফেব্রুয়ারি থেকে মার্চ।

ফসল কাটার ঋতু: এপ্রিল-মে।

গুরুত্বপূর্ণ ফসল: তরমুজ,  শসা  এবং অন্যান্য সবজি।

প্রধান ফসল:

ফসল দুটি প্রধান গ্রুপে বিভক্ত করা হয়। খাদ্যশস্য এবং খাদ্যশস্য নয় ।

খাদ্য শস্য:

চাল: চাল ভারতের প্রধান খাদ্য। ভারত বিশ্বের অন্যতম প্রধান চাল উৎপাদক দেশ। । কিছু ভৌগোলিক অবস্থা যেম ন ক্লে মাটি, এবং বৃদ্ধির  সময় স্থায়ী জল প্রয়োজন। তাপমাত্রা  (২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের  উপরে) এবং ১০০ থেকে ২০০ সেমি পর্যন্ত বৃষ্টিপাতের প্রয়োজন। এটি একটি খরিফ ফসল।পশ্চিমবঙ্গ হচ্ছে চালের অন্যতম প্রধান উৎপাদক রাজ্য।

গমএটি ভারতের  প্রাচীনতম ফসলের মধ্যে একটি। এটি একটি রবি বা শীতকালীন ফসল। শীতকালীন ঋতুতে যখন তাপমাত্রা ২0 ডিগ্রি সেলসিয়াস কম থাকে এই ফসলের বৃদ্ধি হয়। ৫০ থেকে ৭৫ সেন্টিমিটার বার্ষিক বৃষ্টিপাত ফসলের জন্য পর্যাপ্ত। উত্তর সমভূমির লোমি মৃত্তিকা  এবং ডেকানের কালো মৃত্তিকা গমের চাষের জন্য উপযোগী। সাধারণতঃ  অক্টোবর-নভেম্বরে গমের বীজ বপন করা হয় এবং মার্চ-এপ্রিল মাসে গম চাষ হয়।

মিলেট: মিলেটগুলি  ভারতের বিপুল সংখ্যক লোকের জন্য খাবার হিসাবে কাজ করে। এটি খরিফ ফসল এবং কম বৃষ্টিপাত যুক্ত এলাকাতে হয়।এর চাষ হয় এইভাবে রাগি- আর্দ্র এলাকাতে, জোয়ার- আর্দ্র এলাকাতে ) এবং বাজরা - শুষ্ক এলাকাতে ।এদের জন্য উচ্চ তাপমাত্রা এবং কম বৃষ্টিপাত প্রয়োজন। রাগি কর্ণাটক ও তামিলনাড়ুতে, জোয়ার, অন্ধ্রপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র ও কর্ণাটকে   এবং বাজরা মহারাষ্ট্রের  শুষ্ক অঞ্চলে, রাজস্থান,গুজরাট  এবং দক্ষিণ পশ্চিম উত্তরপ্রদেশে  সীমিত।

ভুট্টাএকটি আমেরিকান ফসল হিসাবে , তুলনামূলকভাবে নতুন ফসল এবং এটি উচ্চ ফলন এবং বিভিন্ন মৃত্তিকা ও জলবায়ুর অবস্থার সহজে পরিবর্তনের কারণে জনপ্রিয়তা অর্জন করছে। এটি প্রোটিন সমৃদ্ধ এবং মাঝারি বৃষ্টিপাত প্রয়োজন।

ডালসশ্যডালশস্য প্রোটিন সমৃদ্ধ এবং মাঝারি বৃষ্টিপাত এবং তাপমাত্রা  প্রয়োজন। ডাল শস্যের মধ্যে রয়েছে গ্রাম, অড়হর,   মুগ , মটর, মসুর। এটা আদিম উদ্ভিদ ।

খাদ্যশস্য নয়

১. তৈলবীজভারত বিশ্বব্যাপী তৈলবীজগুলির অন্যতম প্রধান উৎপাদক দেশ।তৈলবীজ  ভোজ্য তেলের  প্রধান উৎস। এদের মধ্যে  কিছু রঙ, বার্নিশ, সুগন্ধি, ওষুধ, সাবান ইত্যাদি তৈরির জন্য ব্যবহৃত হয়। প্রধান তৈলবীজ চীনেবাদাম (উপদ্বীপে খরিফ ফসল), রেপসিড এবং সরিষা (গম বেল্টে রবি ফসল)। অন্যান্য তৈলবীজগুলি  সিরামাম (উড়িষ্যা, রাজস্থান, পশ্চিমবঙ্গ, তামিলনাড়ু, মহারাষ্ট্র), লিনসিড (মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ ও মহারাষ্ট্র), কাস্টর-বীজ (গুজরাট) এবং তুলা বীজ (গুজরাট, মহারাষ্ট্র এবং পাঞ্জাব) এইসব জায়গাতে পাওয়া যায় ।

২. তুলাএটি একটি খরিফ ফসল। এটার জন্য উষ্ণ জলবায়ু এবং উচ্চ তাপমাত্রা প্রয়োজন। তিন ধরণের তুলা রয়েছে: লং স্ট্যাপল, মাঝারি স্ট্যাপল এবং শর্ট স্ট্যাপল। ভারতে  বেশিরভাগ মাঝারি এবং ছোট স্ট্যাপল  উৎপাদিত হয় । গুজরাট ও মহারাষ্ট্র তুলা উৎপাদনের প্রধান দুটি  রাজ্য।

৩.পাটপাটকে ভারতীয় উপ মহাদেশের সোনালী ফাইবার বলা হয়। বাংলাদেশের  পর বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম পাট উৎপাদক দেশ  ভারত। এটি একটি ফাইবার উদ্ভিদ এর  জন্য এবং  উচ্চ তাপমাত্রা এবং ২০০ সেমি  বৃষ্টিপাত প্রয়োজন।

৪. আখভারত আখের মূল জমি হিসাবে পরিচিত হয়। এটি খরিফ মৌসুমের আগে বপন করা হয় এবং শীতকালে কাটা হয়। এটির  জন্য প্রায় ১০০ সেমি বৃষ্টি প্রয়োজন। গুর ও খন্দসারির মতো অনেক নতুন ধরনের চিনি আখের থেকে  উৎপাদিত হয়।

রোপণ ফসল:

চা: ভারত অন্যতম চা উৎপাদক দেশ , এবং এটির জন্য  তাপমাত্রা ২4 ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে 30 ডিগ্রি সেলসিয়াস দরকার । গড় বৃষ্টিপাত ২০০ সেন্টিমিটারের  উপরে হতে হবে। মাটি গভীর উর্বর এবং ভাল নিকাশী ব্যবস্থা থাকতে হবে যাতে করে জল না জমে ।

কফি: এটি বিশ্বের পাশাপাশি ভারতেও জনপ্রিয় পানীয় হিসাবে চা এর পরে আছে। এটি সমৃদ্ধ এবং ভাল দ্রবীভূত মাটির মধ্যে বৃদ্ধি পায় এবং ক্রান্তীয় উচ্চভূমিতে সেরা বৃদ্ধি পায়। যদি চা উত্তর-পূর্ব অংশে থাকে, কফি দক্ষিণ-পশ্চিম অংশে সীমিত। ভারতীয় উৎপাদনের প্রায় 50% অন্যান্য দেশে রপ্তানি হয়।

রাবার: এটির জন্য  গরম-আর্দ্র জলবায়ুর   প্রয়োজন,২0 ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা এবং 300 সেমি উপরে বৃষ্টিপাত দরকার ।

ফল: ভারতে প্রচুর পরিমাণে ফল উৎপাদিত হয়। এর মধ্যে রয়েছে কলা, আনারস, জ্যাক-ফল, কমলা, যা ক্রান্তীয় অঞ্চলে উৎপাদিত  হয়। হিমাচল প্রাদেশে আপেল, প্লাম, পিচ, বাদাম উৎপাদিত হয়।

তামাকভারত চতুর্থ বৃহত্তম প্রযোজক এবং তামাকের ষষ্ঠ বৃহত্তর রপ্তানিকারক দেশ।এটির জন্য  উর্বর মাটি এবং সারের ভারী মাত্রা প্রয়োজন। অন্ধ্রপ্রদেশ ও গুজরাট তামাক উৎপাদনে এগিয়ে আছে।

- Debasish Chakraborty

Share your comments



Krishi Jagran Bengali Magazine Subscription Subscribe Online

Download Krishi Jagran Mobile App

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.