পেঁপে চাষের উপকারিতা

Monday, 01 January 0001 12:00 AM

পেঁপের চাষ আজকের দিনে আম, কলা ও আনারস পরে পশ্চিমবঙ্গের চতুর্থ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ফল। পেঁপে নিয়ে গবেষণা 198২ সালে শুরু হয়েছিল এবং পুরো বছর ধরে এর উৎপাদন নিয়ে কাজের পর মানস্মমত করা হয়েছে। চাষিদের 'রাঞ্চি' এবং 'ওয়াশিংটন' কে টেবিল ফলের জন্য সুপারিশ করা হয়েছিল। পেঁপেকে "কারিকা পাপায়া" নামেও পরিচিত এটি একটি ক্রান্তীয় ফল যা উচ্চ পুষ্টিকর এবং ঔষধি গুনের কারণে বাণিজ্যিক গুরুত্ব অনেক বেশি। পেঁপে চাষ দক্ষিণ মক্সিকো ও কোস্টা রিকাতে প্রথম শুরু হয়েছিল।

পেঁপের মধ্যে ভিটামিন সি, ভিটামিন ই এবং বিটা-ক্যারোটিন মত অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসমূহের সমৃদ্ধ যা আপনার ত্বকের বিভিন্ন ক্ষতিকারক ক্ষতি থেকে বাঁচায় এবং বার্ধক্য বৃদ্ধির অন্যান্য লক্ষণগুলি রোধে সহায়তা করে। পেঁপে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসমূহের একটি সমৃদ্ধ উৎস, ফাইটনট্রিয়েন্টস এবং ফ্ল্যাভোনিয়েডস যা আপনার কোষগুলিকে আণ্ডারগোয়িং রাডিকাল ক্ষতি থেকে আটকাতে সাহায্য করে।

আজকাল ভারতে রেড ল্যাডি নামক ম্যাক্সিকান প্রজাতির পেঁপে চাষ ভীষণ লাভ জনক কারন এই গাছ ২ থেকে ২.৫ বছর বাঁচে, প্রায় প্রতি একরে ৯০০ টি করে গাছ রোপণ করা যায় প্রতি ঋতুতে ৭০ থেকে ১২০ টি ফসল পাওয়া যায় এবং যার বাজার মুল্য ১৫ থকে ২০ টাকা কাঁচা অবস্থায় এবং ৮০ থেকে ৬০ টাকা পাকা অবস্থায়।

  • বীজ থেকে সাধারণ পেঁপে গাছ বানানো একদম সহজ।
  • একটি পাকা পেপের বীজ ধুয়ে নিন।
  • একটি ছায়াযুক্ত জায়গায় সেগুলি শুকিয়ে নিন।
  • একটি শক্তভাবে বন্ধ করা যায় এমন পাত্রে সেগুলি সংরক্ষণ করুন এবং ডিসেম্বর পর্যন্ত রেখে দিন।
  • বীজগুলি ডিসেম্বরে লাগাতে হবে। একটি গর্ত করে 5টি করে বীজ রাখুন। গর্তের মধ্যে কোন কম্পোস্ট বা সার প্রয়োগ করার দরকার নেই।
  • ছোট চাঁড়া বের হলে সেগুলি আর্দ্র রাখুন।

আপনি কেবল ফুল দেখেই বুঝতে পারবেন যে কোন গাছটি মহিলা বা পুরুষ। অতএব, আপনার প্রতি গর্ত প্রতি একাধিক গাছ থাকা উচিত, কারণ তাহলেই আপনি মহিলা গাছ নির্বাচন করতে পারেন। কারন পুরুষ গাছে ফল হবে না। ( স্ত্রী ফুলগুলি অপেক্ষাকৃৎ বড় হবে এবং গাছের ডালের কাছেই থাকবে। 

- অভ্রদীপ দত্ত



Krishi Jagran Bengali Magazine Subscription Subscribe Online

Download Krishi Jagran Mobile App

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.