লিফ কালার চার্টের সাহায্য নিয়ে নাইট্রোজেন সার প্রয়োগ করুন

Tuesday, 19 March 2019 10:26 AM

নাইট্রোজেন সার মাটির নীচে চুঁইয়ে বেশি নষ্ট হয় এবং বিচক্ষণতার সঙ্গে নাইট্রোজেন ব্যবহার না করলে রোগ-পোকার আক্রমণও বেশি দেখা যায়। এল সি সির মাধ্যমে ধানে প্রয়োজনভিত্তিক নাইট্রোজেন সার প্রয়োগ করা হয়। এটি বিশেষ ধরনের প্লাস্টিকের তৈরি একটি ইঞ্চি স্কেল। স্কেলের প্রতিটি  ইঞ্চির রং বিভিন্ন যা ধান গাছের পাতায় ক্লোরোফিলের পরিমাণ মেপে তৈরি করা হয়।

লিফ কালার চার্ট বা এল সি সি একটি খুবই সাধারণ যন্ত্র, যার সাহায্যে ধান গাছে নাইট্রোজেন সার প্রয়োগের সময় নির্ধারণ করা যায়। এটি ব্যবহার করে কৃষকরা সহজেই বুঝতে পারবেন ধান জমিতে কখন নাইট্রোজেন সার প্রয়োগের প্রয়োজন আছে। এটি বিশেষ ধরনের প্লাস্টিকের তৈরি একটি ইঞ্চি স্কেল। স্কেলের প্রতিটি  ইঞ্চির রং বিভিন্ন। এই রং ধান গাছের পাতায় ক্লোরোফিলের পরিমাণ মেপে তৈরি করা হয়। স্কেলের রঙের সাথে ধান গাছের পাতার গুছির রঙ মিলিয়ে দেখলেই বোঝা যাবে নাইট্রোজেন সার প্রয়োগের প্রয়োজন আছে কি নেই। স্কেলটির প্রথম ইঞ্চির রং হালকা হলদে-সবুজ এবং এর নম্বর ২। এই রং পরিবর্তন হতে হতে গাঢ় সবুজ হয়েছে যার নম্বর ৫।

নাইট্রোজেন সার মাটির নীচে চুঁইয়ে বেশি নষ্ট হয় এবং বিচক্ষণতার সঙ্গে নাইট্রোজেন ব্যবহার না করলে রোগ-পোকার আক্রমণও বেশি দেখা যায়। এল সি সির মাধ্যমে ধানে প্রয়োজনভিত্তিক নাইট্রোজেন সার প্রয়োগ করা হয়। এল সি সি ব্যবহারের জন্য ধান রোয়ার সময় সব ফসফেট ও পটাশ ব্যবহার করা হলেও নাইট্রোজেন সার প্রয়োগ করা যায় না। আমন ধান রোয়ার ১৫ দিন পর এবং বোর ধান রোয়ার ২০ দিন পর মাঠে এল সি সি স্কেলটি নিয়ে পরীক্ষা শুরু করা হয়। মাঠে সমান ভাবে বেড়ে উঠেছে এমন জায়গা থেকে ২০ টি গুছি বেছে নেওয়া হয়। একটি গুছিতে সবচেয়ে ওপরের পুরোপুরি বের হয়ে যাওয়া পাতা বেছে নেওয়া হয়। ওই পাতার মাঝের অংশের পাশে এল সি সির রং মেলানো হয়। এল সি সির যে রঙের সাথে পাতার রং মিলবে, তার নম্বর লিখে নেওয়া হয়। যদি পাতার রং ৩ নম্বর ও ৪ নম্বরের মাঝামাঝি হয়, তা হলে তার নম্বর ৩.৫ লেখা হয়। প্রতি ১০ দিন অন্তর এভাবে মাপ নিয়ে নাইট্রোজেন প্রয়োগ করা হয়। যদি দেখা যায় ১০ দিনের মাথায় পরীক্ষায় সার প্রয়োগের দরকার পড়ছে না, তাহলে পরবর্তী চাপান সার হিসাবে নাইট্রোজেন ব্যবহারের জন্য এল সিসি একইভাবে ব্যবহার করা যায়।

দেখা গেছে এল সি সির  ব্যবহারের ফলে ২৫% নাইট্রোজেন কম লাগে। এর ব্যবহারে ধানের শীষে পুষ্ট দানার সংখ্যা বেশী হয় এবং ধানে রোগ পোকার আক্রমণ কম হয়।

- রুনা নাথ (runa@krishijagran.com)



Krishi Jagran Bengali Magazine Subscription Subscribe Online

Download Krishi Jagran Mobile App

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.