আপনি কি গো-পালন করেন? জেনে নিন (Rashtriya Gokul Mission) সরকারের এই প্রকল্প সম্পর্কে আর আয় করুন দ্বিগুণ

Thursday, 17 September 2020 02:32 PM
Rashtriya Gokul Mission scheme

Rashtriya Gokul Mission scheme

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং কৃষি ও কৃষক কল্যাণ মন্ত্রক কৃষকদের কল্যাণে বিভিন্ন পরিকল্পনা ও মিশন শুরু করেছেন। অনেকগুলি প্রকল্প রয়েছে যার মাধ্যমে কৃষকরা প্রচুর উপকার পেতে পারেন এবং তাদের আয় দ্বিগুণ করতে পারেন। 'আত্মনির্ভর ভারত'-এর আওতায় এই সঙ্কটকালীন পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকার বিভিন্ন খাতে বিভিন্ন তহবিল ঘোষণা করেছে। এমন কয়েকটি সরকারী প্রকল্প রয়েছে, যা কৃষকদের পশুপালনে সহায়তা করতে পারে।

রাষ্ট্রীয় গোকুল মিশন কী (Rashtriya Gokul Mission scheme) -

রাষ্ট্রীয় গোকুল মিশন উচ্চতর পুষ্টি এবং খামার ব্যবস্থাপনার সাথে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে দুধের উত্পাদন ও উত্পাদনশীলতার উন্নয়নের জন্য আদিবাসী গর্ভজাত জাতের বংশবৃদ্ধির বিকাশ ও সংরক্ষণের উদ্যোগ হিসাবে ২০১৪ সালের ডিসেম্বর মাসে প্রচলন করা হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং কৃষি ও কৃষক কল্যাণ মন্ত্রকের সাথে রাষ্ট্রীয় গোকুল মিশন বাস্তবায়নের ঘোষণা করেছেন। এই মিশন দ্বাদশ পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার সময় বোভাইন ব্রিডিং এবং ডেইরি বিকাশের জন্য জাতীয় কর্মসূচির আওতায় প্রচলন করা হয়েছিল।

রাষ্ট্রীয় গোকুল মিশনের উদ্যোগগুলি কী কী?

গোকুল গ্রাম - 

দেশীয় জাতের বিকাশের জন্য বিভিন্ন গবাদিপশু উন্নয়ন কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল। এই উন্নয়ন কেন্দ্রগুলি গোকুল গ্রাম হিসাবে পরিচিত ছিল।

কৃষকদের জন্য গোপাল রত্ন পুরষ্কার -

কৃষকদের এই দেশীয় জাতের প্রতিপালন করতে উত্সাহিত করার জন্য বিভিন্ন পুরষ্কার প্রদান শুরু করা হয়। আদিবাসী জাতের সর্বোত্তম পরিচালন ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রতিষ্ঠান/ট্রাস্ট / এনজিও/গো-শাল বা সেরা পরিচালিত ব্রিডারস সোসাইটি কর্তৃক কামধেনু পুরষ্কার শ্রেষ্ঠ পশুর জন্য দেওয়া হয়েছিল।

Cattle

Cattle

জাতীয় কামধেনু প্রজনন কেন্দ্র (National Kamdhenu Breeding Centre) - 

১) বৈজ্ঞানিক উপায়ে আদিবাসী জাতের বিকাশ ও সংরক্ষণের জন্য শ্রেষ্ঠত্বের কেন্দ্র হিসাবে জাতীয় কামধেনু প্রজনন কেন্দ্র (NKBC) প্রতিষ্ঠা করা।

২) ই পশু হাট - নকুল প্রজনন বাজার - ব্রিডার ও কৃষকদের সংযোগের জন্য একটি ই-মার্কেট পোর্টাল তৈরি করা হয়। এই ই-মার্কেটের পোর্টালটির নামকরণ করা হয়েছিল ‘ই-পশু হাট - নকুল প্রজনন বাজার

৩) পশু সঞ্জীবনী প্রতিষ্ঠা - ‘পশু সঞ্জীবনী’ নামে পশুর সুস্থতা বিষয়ক একটি কর্মসূচী প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, যা প্রাণীর স্বাস্থ্য কার্ডের বিধানকে অন্তর্ভুক্ত করে।

৪) রোগ-মুক্ত মহিলা বোভাইনের জন্য উন্নত প্রজনন প্রযুক্তির ব্যবহার। এই প্রযুক্তির মধ্যে ইন-ভিট্রো ফার্টিলাইজেশন (IVF) এবং একাধিক ওভাল্যুশন এমব্রায়ো ট্রান্সফার (MOET) অন্তর্ভুক্ত ছিল।

৫) আদিবাসী জাতের জন্য জাতীয় বোভাইন জিনোমিক সেন্টার (এনবিজিসি-আইবি) প্রতিষ্ঠা।

গোকুল গ্রাম কী?

ভারতে বিশ্বের ১৪.৫% গবাদি পশু পালন করা হয় এবং এখানে বসবাসকারী জনগোষ্ঠীর অধিকাংশ মানুষই গো পালনের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন। উন্নয়নের স্বার্থে গবাদি পশু কেন্দ্রগুলির বিকাশের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করার লক্ষ্যে তৈরি হয় রাষ্ট্রীয় গোকুল মিশন, যা রাজ্য বাস্তবায়নকারী সংস্থা (SIA) দ্বারা বাস্তবায়িত হয়েছিল। এই গবাদিপশু কেন্দ্রগুলি ‘গোকুল গ্রাম’ নামে পরিচিত।

একটি গোকুল গ্রাম মূলত নিম্নলিখিত বিষয়গুলির উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে কাজ করে -

১) বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে দেশীয় গবাদি পশু পালন ও তাদের সংরক্ষণ প্রচার।

২) দেশীয় জাতের ব্যবহার।

৩) সাধারণ রিসোর্স ম্যানেজমেন্টকে উন্নীত করার সাথে সাথে আধুনিক ফার্ম ম্যানেজমেন্ট অনুশীলনগুলি বিকাশ করা।

৪) অর্থনৈতিক উপায়ে পশুর বর্জ্যকে কাজে লাগানো।

৫) উন্নয়নের জন্য গির, সহিওয়াল, রাঠি, দেউনি, থারপারকার, লাল সিন্ধি জাতীয় অভিজাত জাতের গবাদি পশু পালন করুন।

Image source - Google

Related link - (Karma Sathi Prakalpa) ‘কর্ম সাথী প্রকল্প’ – রাজ্যে ১ লাখ যুবক ও যুবতীর কর্মসংস্থান, আজই আবেদন করুন

(WB Farmer) পুজোর আগেই কৃষকরা পেতে চলেছেন ২০০০ টাকা, ঘোষণা রাজ্য সরকারের

English Summary: Cow-herd should know about the Rashtriya Gokul Mission scheme, the income will be doubled

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.