Benefits of Jackfruit: ভিটামিন, খনিজ উপাদানে ভরপুর কাঁঠাল রোগ প্রতিরোধে খুবই প্রয়োজনীয়, জানুন গুণাগুণ

KJ Staff
KJ Staff

কাঁঠাল, বর্তমান সময়ে  সহজলভ্য একটি ফল৷ কাঁচা অবস্থায় সবজি হিসেবে (এঁচোড়) খাওয়া হয়, আর পাকা অবস্থায় কাঁঠালের কোয়া খাওয়া হয়৷ একটি কাঁঠাল থেকে প্রচুর কোয়া পাওয়া যায়৷ দিনে দু তিনটি কোয়া আমাদের শরীরে একদিনের প্রয়োজনীয় ভিটামিনের চাহিদা মেটায়৷

কাঁঠালের বৈজ্ঞানিক নাম- Artocarpus heterophyllus. ভারতে যে সব প্রজাতির কাঁঠাল চাষ হয় সেগুলি মূলত গালা ও খাজা এই দুই ভাগে বিভক্ত৷ এছাড়া রয়েছে, পদ্মরাজ, রুদ্রাক্ষি, রসখাজা, সিঙ্গাপুর, গোলাপগন্ধা, সিলোন, বারোমাসী, চম্পাগন্ধা প্রভৃতি৷ গলা কাঁঠালে সাধারণত খোসার গায়ে কাঁটাগুলো খুব একটা চ্যাপ্টা হয় না এবং এটি পাকার পর একটু লালচে-হলুদ বর্ণের হয়। খাজা কাঁঠাল অপেক্ষাকৃত কম রসালো এবং এর খোসার রঙ পাকার পরও সবুজ বর্ণের থাকে৷ খাজা কাঁঠালের গায়ের কাঁটাগুলো চ্যাপ্টা, মসৃণ এবং বড় হয়।

এই কাঁঠাল প্রচুর গুণে সমৃদ্ধ৷ শরীরকে বিভিন্ন রোগের হাত থেকে রক্ষা করতে এর জুড়ি মেলা ভার৷ এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, এছাড়া এতে থাকা বিভিন্ন উপাদান ক্যান্সারকে দূরে রাখতে সাহায্য করে৷ এই কাঁঠাল মধুমেহ রোগীদের জন্য উপকারী বলে মনে করা হয়৷ এছাড়া এতে থাকা ভিটামিন কবি ডায়াবেটিসের সমস্যায় যারা ভুগছেন তাদের শরীরের জন্য প্রয়োজনীয়৷ তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে তবেই এই ফল খাওয়া উচিত৷

বিভিন্ন গবেষণার দাবি অনুযায়ী, কাঁঠালে বিদ্যমান ভিটামিন সি, বি ৬, হার্টকে রক্ষা করার পিছনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে৷ এতে থাকা পটাশিয়াম রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রেখে, হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমায়৷

এর পাশাপাশি পরিপাকে সাহায্য এবং ওজন নিয়ন্ত্রণেও কাঁঠাল অবদান রয়েছে৷ ভিটামিন সি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে, যা বর্তমান পরিস্থিতিতে শরীরের জন্য বেশি করে প্রয়োজনীয়৷

এছাড়া ভিটামিন সি, , এই দুটিই আমাদের দৃষ্টিশক্তি উন্নত করতে সাহায্য করে৷ আর এক্ষেত্রে তাই কাঁঠাল খাওয়ার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে৷ আলসার রুখতে কাঁঠালে বিদ্যমান ফাইবার প্রয়োজনীয়৷ সর্দি-কাশি, জ্বরের মতো সাধারণ নানা রোগকে প্রতিহত করে এই ফল৷ সেই সঙ্গে ত্বককে বলিরেখার হাত থেকেও কিছুটা রক্ষা করে৷

কাঁঠালে থাকা ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম হাড়ের জোর বাড়ায়৷ অস্টিওপোরোসিসের ঝুঁকিও হ্রাস করে৷ রক্তাল্পতা ঠিক করতেও সাহায্য করে এই ফল৷ তবে মনে রাখবেন, বেশি পরিমাণ কাঁঠাল বদহজমের কারণ হয়ে দেখা দিতে পারে৷ তাই পরিমিত পরিমাণেই এটি খাওয়া উচিত৷

বর্ষা চ্যাটার্জি

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters