হলুদের এই উচ্চ ফলনশীল জাতের চাষ করে লাভবান হচ্ছেন কৃষকবন্ধুরা

Thursday, 20 May 2021 11:41 PM
High yield turmeric (Image Credit - Google)

High yield turmeric (Image Credit - Google)

হলুদ বা হলদি (বৈজ্ঞানিক নামঃ Curcuma longa) হলো হলুদ গাছের শিকড় থেকে প্রাপ্ত এক প্রকারের মসলা। ভারত, বাংলাদেশ এবং পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের রান্নায় এটি ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। এটি আদা পরিবারের (Zingiberaceae) অন্তর্গত একটি গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ।

হলুদ গাছের আদি উৎস দক্ষিণ এশিয়া। এটি ২০ থেকে ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার মধ্যে জন্মে থাকে। হলুদ গাছের জন্য প্রচুর পরিমাণে বৃষ্টিপাতের দরকার হয়। বছরে সাধারণত একবার হলুদ গাছের শিকড় তোলা হয়। পরের বছর পুরানো শিকড় থেকে নতুন গাছ গজায়।

হলুদ গাছের শিকড়কে কয়েক ঘণ্টা সিদ্ধ করা হয়, তার পর গরম চুলায় শুকানো হয়। এরপর এই শিকড়কে চূর্ণ করে গাঢ় হলুদ বর্ণের গুঁড়া পাওয়া যায়।এই হলুদ গুঁড়া দক্ষিণ এশিয়া ও মধ্যপ্রাচ্যের নানা দেশের খাদ্য প্রস্তুতে ব্যবহার করা হয়। তবে ঐতিহ্যগতভাবে এই শিকড় ভালোভাবে ধৌতকরণের পর শিল-পাটায় জল সহযোগে বেটে নিয়ে হলুদের লেই তৈরি করা হয় যা সরাসরি রান্নায় ব্যবহার করা হয়।

হলুদের বহুপ্রকার গুণাগুণ যা থেকে আমরা রোজই রোগ প্রতিরোধ থেকে উপকৃত হতে পারি। হলুদ মূলত গাছের কন্দমূল থেকে সংগৃহীত হয়ে থাকে। ভারতসহ গোটা দুনিয়ায় হলুদের ব্যবহার হয়ে থাকে নানারকম ভাবে। রান্নার পাশাপাশি স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রেও হলুদের ব্যবহার হয় বিপুল পরিমাণে।

হলুদের জাত (Turmeric variety) -

পীতাম্বর জাতের হলুদ সেন্ট্রাল ইনস্টিটিউট অফ মেডিসিনাল অ্যান্ড অ্যারোমেটিক প্ল্যান্ট উদ্ভাবন  করেছে। সারা দেশের কৃষকদের এ জাতটি বপন করতে উত্সাহিত করা হচ্ছে। প্রসঙ্গত উল্লেখযোগ্য, দেশে মশলায় মরিচের পরে সুবৃহৎ আকারে হলুদ চাষ করা হয়। পশ্চিমবঙ্গে প্রায়  ৪৫.৫ হাজার মেট্রিক টন হলুদ চাষ হয়ে থাকে।

সিম পীতাম্বর জাতের সুবিধা -

কৃষক যদি এই প্রজাতির হলুদ আবাদ করেন, তবে তিনি ১ হেক্টর থেকে প্রায় ৬৫ টন হলুদ উত্পাদন করতে পারেন। লক্ষণীয় বিষয় হ'ল অন্যান্য জাতের হলুদের চাষে ফসল প্রস্তুত হতে সময় লাগে ৭ থেকে ৯ মাস। তবে এই জাতের বপনের ফলে ফসল মাত্র ৫ থেকে ৬ মাসের মধ্যে প্রস্তুত হয়ে যায়।

হলুদ চাষ করার পদ্ধতি (Cultivation method) –

বর্তমানে আমাদের দেশে উন্নত জাতের ডিমলা ও সুন্দরী হলুদ চাষ করা হলেও দেশীয় জাতের হলুদ বেশী চাষ করা হয়। সাধারণত বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাসে হলুদ রোপণ করা হয়। অগ্রহায়ণ-পৌষ মাসে হলুদ তোলা হয়। রোপণের আগে আড়াআড়ি ৪-৫টি চাষ ও মই দিয়ে জমি তৈরী করে রোপণ করতে হয়। লাঙল দিয়ে ৩-৪ সেমি. গভীর করে লাইন টেনে ৬-৮ ইঞ্চি অন্তর চোখসহ হলুদের দানা রোপণ করে মাটি চাপা দিতে হয়।

উপযুক্ত জমি ও মাটি (Land Preparation) - 

সব ধরণের মাটিতে চাষ করা গেলেও উর্বর দো-আঁশ বা বেলে দো-আঁশ মাটি হলুদের জন্য ভালো। যে কোন ফলের বাগানের শুরুতে সাথী ফসল হিসেবে হলুদ চাষ লাভজনক। আবার সম্পূর্ণ ছায়াযুক্ত ফলের বাগানে চাষ করলে ফলন খুবই অল্প হবে, তবে অর্ধেক ছায়া অর্ধেক আলো এমন বড় ফলের বাগানে চাষ করালে ভালো ফল পাওয়া যাবে।

বীজ বপন (Seed Sowing)-

চৈত্র মাস কন্দ লাগানোর উপযুক্ত সময়। সাধারণতঃ ১৫-২০ গ্রাম ওজনের ১-২টি ঝুঁড়ি বিশিষ্ট কন্দ লাগাতে হয়। ৫০ সেন্টিমিটার দূরে দূরে সারি করে ২৫ সেন্টিমিটার দূরে দূরে ৫-৭ সেন্টিমিটার গভীরে কন্দ লাগাতে হয়। প্রতি হেক্টরে ২৫০০ কেজি কন্দ প্রয়োজন হয়। কন্দ লাগানোর পর ভেলী করে দিতে হয়।

সার ব্যবস্থাপনাঃ

জমির উর্বরতার উপর সারের পরিমাণ নির্ভর করে। সাধারণতঃ প্রতি হেক্টরে সারের পরিমাণ হলোঃ গোবর ৪-৬ টন, ইউরিয়া ২০০-২৪০ কেজি, টিএসপি ১৭০-১৯০ কেজি, এমওপি ১৬০-১৮০ কেজি, জিপসাম ১০৫-১২০ কেজি ও জিংক সালফেট ২-৩ কেজি। জমি তৈরির সময় সমুদয় গোবর, টিএসপি, জিপসাম, জিংক সালফেট ও ৮০ কেজি এমওপি সার মাটির সাথে মিশিয়ে দিতে হয়। কন্দ লাগানোর ৫০-৬০ দিন পর ১০০-১২০ কেজি ইউরিয়া ভেলী হালকাভাবে কুপিয়ে প্রয়োগ করে আবার ভেলী করে দিতে হয়। ১ম কিস্তির ৫০-৬০ দিন পর দ্বিতীয় কিস্তি এবং আরও ৫০-৬০ দিন পর তৃতীয় কিস্তির সার উপরি প্রয়োগ করতে হয়।

সেচ ও আগাছা ব্যবস্থাপনাঃ

মাটিতে রস না থাকলে মাঝে মাঝে সেচ দিতে হবে। বৃষ্টির পানি যাতে গাছের গোড়ায় না জমে সেজন্য নালা করে পানি বের করে দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। আগাছা দেখা দিলে তা পরিষ্কার করতে হবে। তবে সার উপরি প্রয়োগের সময় আগাছা পরিষ্কার করে প্রয়োগ করা ভালো।

পোকমাকড় ব্যবস্থাপনা (Pest Mangement)- 

এই জাতটি পোকামাকড় প্রতিরোধী -

অন্যান্য জাতের হলুদ বপনের ফলে শস্যে পোকার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। তবে সিম পীতাম্বর জাতের হলুদ বপন করলে শস্যে কীটপতঙ্গের আক্রমণের ঝুঁকি হ্রাস পায়। মূলত এই কারণেই জাতটি কীট প্রতিরোধী হিসাবে বিবেচিত হয়েছে। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, এই জাতীয় গাছের পাতাগুলিতে যদি কোন রোগ হয়ও, তাহলেও তা কোনওভাবেই ফসলের ক্ষতি করতে পারে না। এক্ষেত্রে এই জাতীয় হলুদের বপনে কৃষক ফসলের আরও ভাল উত্পাদন পেয়ে থাকেন।

আরও পড়ুন - Ruck tomato cultivation : জেনে নিন আধুনিক পদ্ধতিতে টমেটো চাষাবাদের কৌশল

পরিচর্যা -

হলুদের ফলন বৃদ্ধি এবং জমি থেকে পানি বের হওয়ার সুবিধার জন্য ২ থেকে ৩ বার দুই সারির মাঝখান থেকে মাটি তুলে গাছের গোড়ায় দিতে হবে। হলুদ রোপণ করার পর নালার  উপরে  মাটির রস ধরে রাখার জন্য শুকনো পাতা অথবা খড় দিতে হয়।মনে রাখতে হবে একই জমিতে প্রতি বছর হলুদ বা আদা ফসল চাষ করা উচিত নয়।

আরও পড়ুন - ভেষজ চাষের নতুন দিগন্ত একাঙ্গী চাষ, সুফল পাচ্ছেন কৃষকরা

English Summary: Farmers are benefiting by cultivating this high yielding variety of turmeric

আপনার সমর্থন প্রদর্শন করুন

প্রিয় অনুগ্রাহক, আমাদের পাঠক হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আপনার মতো পাঠকরা আমাদের কৃষি সাংবাদিকতা অগ্রগমনের অনুপ্রেরণা। গ্রামীণ ভারতের প্রতিটি কোণে কৃষক এবং অন্যান্য সকলের কাছে মানসম্পন্ন কৃষি সংবাদ বিতরণের জন্যে আমাদের আপনার সমর্থন দরকার। আপনার প্রতিটি অবদান আমাদের ভবিষ্যতের জন্য মূল্যবান।

এখনই অবদান রাখুন (Contribute Now)

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.