বছরের কোন সময়ে কোন ফসল চাষে আয় বাড়বে কৃষকের? খাদ্যশস্য না খাদ্যশস্য নয়- কোন ফসল চাষ করবেন কৃষকবন্ধুরা? জানুন বিস্তারিত

Friday, 19 March 2021 05:25 PM
Crop Cultivation (Image Credit - Google)

Crop Cultivation (Image Credit - Google)

ভারতের জলবায়ু অনুসারে শস্য চাষ প্রধান তিনটি শ্রেণীতে বিভক্ত – খরিফ ফসল, রবি ফসল এবং জায়েদ ফসল। কোন সময়ে কোন ফসল চাষে কৃষকের আর্থিক উন্নতি ঘটবে, তা এই সময়ভিত্তিক ফসলের তালিকা দেখলেই বোধগম্য হবে। মূলত আজ আমরা এই প্রবন্ধে ভারতের প্রধান শস্য এবং তা চাষ সম্পর্কে বিশদে বর্ণনা করতে চলেছি।

খরিফ ফসল, বর্ষা ফসল বা শরতের ফসলের বর্ষা মৌসুমে চাষ ও পরিপক্ক হলে ফসল উত্তোলিত হয়। কৃষক বর্ষা মৌসুমের শুরুতে বীজ বপন করেন এবং মৌসুমের শেষে অর্থাৎ সেপ্টেম্বর থেকে অক্টোবরের মধ্যে তা সংগ্রহ করেন। খরিফ ফসলের যথাযথ বিকাশের জন্য প্রচুর জল এবং শুষ্ক আবহাওয়ার প্রয়োজন হয়।

উদাহরণ: ধান, ভুট্টা, মিলেট, সয়াবিন, অড়হর, তুলা ইত্যাদি।

রবি শব্দের অর্থ আরবি-তে বসন্ত। শীতের মৌসুমে অর্থাৎ অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর এই শস্য জন্মায় এবং বসন্তের মৌসুমে (এপ্রিল-মে) উত্তোলিত করা হয়, এই ফসলগুলিকে রবি ফসল বলা হয়। এই ফসলের বীজ অঙ্কুরোদ্গম এবং পরিপক্কতার জন্য একটি উষ্ণ আবহাওয়া প্রয়োজন এবং তাদের বিকাশের জন্য একটি শীতল পরিবেশ প্রয়োজন। শীতে বৃষ্টিপাত রবি ফসলের ক্ষতি করে তবে তা খরিফ ফসলের জন্য ভাল।

উদাহরণ: গম, ছোলা, বার্লি, মটর, ওটস, মটরশুঁটি, তিসি, সরিষা ইত্যাদি।

জায়েদ ফসলগুলি খরিফ ও রবি মৌসুমের মধ্যে অর্থাৎ মার্চ থেকে জুনের মধ্যে জন্মায়। এই ফসলের বৃদ্ধির জন্য শুষ্ক আবহাওয়া প্রয়োজন। জায়েদ ফসল কৃষকদের জন্য তাৎপর্যপূর্ণ, কারণ এটি কৃষকদের দ্রুত নগদ অর্থ প্রদান করে এবং দুটি প্রধান ফসল খরিফ ও রবির মধ্যবর্তী সময় পূরক হিসাবেও পরিচিত।

উদাহরণ: শসা, কুমড়ো, উচ্ছে, তরমুজ, কস্তুরী, ইক্ষু, চিনাবাদাম, ডাল ইত্যাদি।

এবার আসা যাক খাদ্য শস্য সম্পর্কে বিশদে (Food Grains) :

চাল:

চাল ভারতের প্রধান খাদ্য। ভারত বিশ্বের অন্যতম প্রধান চাল উৎপাদক দেশ। । কিছু ভৌগোলিক অবস্থা যেম ন ক্লে মাটি, এবং বৃদ্ধির  সময় স্থায়ী জল প্রয়োজন। তাপমাত্রা  (২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের  উপরে) এবং ১০০ থেকে ২০০ সেমি পর্যন্ত বৃষ্টিপাতের প্রয়োজন। এটি একটি খরিফ ফসল।পশ্চিমবঙ্গ হচ্ছে চালের অন্যতম প্রধান উৎপাদক রাজ্য।

গম: 

এটি ভারতের  প্রাচীনতম ফসলের মধ্যে একটি। এটি একটি রবি বা শীতকালীন ফসল। শীতকালীন ঋতুতে যখন তাপমাত্রা ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াস কম থাকে এই ফসলের বৃদ্ধি হয়। ৫০ থেকে ৭৫ সেন্টিমিটার বার্ষিক বৃষ্টিপাত ফসলের জন্য পর্যাপ্ত। উত্তর সমভূমির লোমি মৃত্তিকা  এবং ডেকানের কালো মৃত্তিকা গমের চাষের জন্য উপযোগী। সাধারণতঃ  অক্টোবর-নভেম্বরে গমের বীজ বপন করা হয় এবং মার্চ-এপ্রিল মাসে গম চাষ হয়।

মিলেট: 

মিলেটগুলি  ভারতের বিপুল সংখ্যক লোকের জন্য খাবার হিসাবে কাজ করে। এটি খরিফ ফসল এবং কম বৃষ্টিপাত যুক্ত এলাকাতে হয়।এর চাষ হয় এইভাবে রাগি- আর্দ্র এলাকাতে, জোয়ার- আর্দ্র এলাকাতে ) এবং বাজরা - শুষ্ক এলাকাতে ।এদের জন্য উচ্চ তাপমাত্রা এবং কম বৃষ্টিপাত প্রয়োজন। রাগি কর্ণাটক ও তামিলনাড়ুতে, জোয়ার, অন্ধ্রপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র ও কর্ণাটকে   এবং বাজরা মহারাষ্ট্রের  শুষ্ক অঞ্চলে, রাজস্থান,গুজরাট  এবং দক্ষিণ পশ্চিম উত্তরপ্রদেশে  সীমিত।

ভুট্টা: 

একটি আমেরিকান ফসল হিসাবে , তুলনামূলকভাবে নতুন ফসল এবং এটি উচ্চ ফলন এবং বিভিন্ন মৃত্তিকা ও জলবায়ুর অবস্থার সহজে পরিবর্তনের কারণে জনপ্রিয়তা অর্জন করছে। এটি প্রোটিন সমৃদ্ধ এবং মাঝারি বৃষ্টিপাত প্রয়োজন।

ডালশস্য (Pulse Grain) : 

ডালশস্য প্রোটিন সমৃদ্ধ এবং মাঝারি বৃষ্টিপাত এবং তাপমাত্রা  প্রয়োজন। ডাল শস্যের মধ্যে রয়েছে গ্রাম, অড়হর,   মুগ , মটর, মসুর। এটা আদিম উদ্ভিদ ।

খাদ্যশস্য নয় -

১. তৈলবীজ (Oil Seed) : 

ভারত বিশ্বব্যাপী তৈলবীজগুলির অন্যতম প্রধান উৎপাদক দেশ।তৈলবীজ  ভোজ্য তেলের  প্রধান উৎস। এদের মধ্যে  কিছু রঙ, বার্নিশ, সুগন্ধি, ওষুধ, সাবান ইত্যাদি তৈরির জন্য ব্যবহৃত হয়। প্রধান তৈলবীজ চীনেবাদাম (উপদ্বীপে খরিফ ফসল), রেপসিড এবং সরিষা (গম বেল্টে রবি ফসল)। অন্যান্য তৈলবীজগুলি  সিরামাম (উড়িষ্যা, রাজস্থান, পশ্চিমবঙ্গ, তামিলনাড়ু, মহারাষ্ট্র), লিনসিড (মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ ও মহারাষ্ট্র), কাস্টর-বীজ (গুজরাট) এবং তুলা বীজ (গুজরাট, মহারাষ্ট্র এবং পাঞ্জাব) এইসব জায়গাতে পাওয়া যায় ।

২. তুলা : 

এটি একটি খরিফ ফসল। এটার জন্য উষ্ণ জলবায়ু এবং উচ্চ তাপমাত্রা প্রয়োজন। তিন ধরণের তুলা রয়েছে: লং স্ট্যাপল, মাঝারি স্ট্যাপল এবং শর্ট স্ট্যাপল। ভারতে  বেশিরভাগ মাঝারি এবং ছোট স্ট্যাপল  উৎপাদিত হয় । গুজরাট ও মহারাষ্ট্র তুলা উৎপাদনের প্রধান দুটি  রাজ্য।

৩.পাট : 

পাটকে ভারতীয় উপ মহাদেশের সোনালী ফাইবার বলা হয়। বাংলাদেশের  পর বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম পাট উৎপাদক দেশ  ভারত। এটি একটি ফাইবার উদ্ভিদ এর  জন্য এবং  উচ্চ তাপমাত্রা এবং ২০০ সেমি  বৃষ্টিপাত প্রয়োজন।

৪. আখ : 

ভারত আখের মূল জমি হিসাবে পরিচিত হয়। এটি খরিফ মৌসুমের আগে বপন করা হয় এবং শীতকালে কাটা হয়। এটির  জন্য প্রায় ১০০ সেমি বৃষ্টি প্রয়োজন। গুর ও খন্দসারির মতো অনেক নতুন ধরনের চিনি আখের থেকে  উৎপাদিত হয়।

আরও পড়ুন - অর্থকরী ফসল বেবীকর্ন চাষ করে বাড়ছে দরিদ্র চাষিদের উপার্জন

রোপণ ফসল:

চা:

ভারত অন্যতম চা উৎপাদক দেশ , এবং এটির জন্য  তাপমাত্রা ২৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস দরকার । গড় বৃষ্টিপাত ২০০ সেন্টিমিটারের  উপরে হতে হবে। মাটি গভীর উর্বর এবং ভাল নিকাশী ব্যবস্থা থাকতে হবে যাতে করে জল না জমে ।

কফি: 

এটি বিশ্বের পাশাপাশি ভারতেও জনপ্রিয় পানীয় হিসাবে চা এর পরে আছে। এটি সমৃদ্ধ এবং ভাল দ্রবীভূত মাটির মধ্যে বৃদ্ধি পায় এবং ক্রান্তীয় উচ্চভূমিতে সেরা বৃদ্ধি পায়। যদি চা উত্তর-পূর্ব অংশে থাকে, কফি দক্ষিণ-পশ্চিম অংশে সীমিত। ভারতীয় উৎপাদনের প্রায় 50% অন্যান্য দেশে রপ্তানি হয়।

রাবার:

এটির জন্য গরম-আর্দ্র জলবায়ুর প্রয়োজন, ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা এবং ৩০০ সেমি.-এর উপরে বৃষ্টিপাত দরকার ।

ফল:

ভারতে প্রচুর পরিমাণে ফল উৎপাদিত হয়। এর মধ্যে রয়েছে কলা, আনারস, জ্যাক-ফল, কমলা, যা ক্রান্তীয় অঞ্চলে উৎপাদিত  হয়। হিমাচল প্রাদেশে আপেল, প্লাম, পিচ, বাদাম উৎপাদিত হয়।

তামাক: 

ভারত চতুর্থ বৃহত্তম প্রযোজক এবং তামাকের ষষ্ঠ বৃহত্তর রপ্তানিকারক দেশ।এটির জন্য  উর্বর মাটি এবং সারের ভারী মাত্রা প্রয়োজন। অন্ধ্রপ্রদেশ ও গুজরাট তামাক উৎপাদনে এগিয়ে আছে।

আরও পড়ুন - গ্রামীণ অর্থনীতিতে মাছ চাষ কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে উপার্জনে কীভাবে সহায়তা করতে পারে, জানুন বিস্তারিত

English Summary: Food grains or not food grains - which crop will farmers should cultivate to doubling their income Learn the details

আপনার সমর্থন প্রদর্শন করুন

প্রিয় অনুগ্রাহক, আমাদের পাঠক হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আপনার মতো পাঠকরা আমাদের কৃষি সাংবাদিকতা অগ্রগমনের অনুপ্রেরণা। গ্রামীণ ভারতের প্রতিটি কোণে কৃষক এবং অন্যান্য সকলের কাছে মানসম্পন্ন কৃষি সংবাদ বিতরণের জন্যে আমাদের আপনার সমর্থন দরকার। আপনার প্রতিটি অবদান আমাদের ভবিষ্যতের জন্য মূল্যবান।

এখনই অবদান রাখুন (Contribute Now)

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.