(Pink ballworm) মহারাষ্ট্রে পিঙ্ক বলওয়ার্মের হানায় ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা তুলাচাষে

KJ Staff
KJ Staff
Pink ball-worm
Pink ball-worm

তুলাচাষ যাঁরা করেন, তাঁরা জানেন পিঙ্ক বলওয়ার্ম অর্থাৎ পিবিডব্লু শস্যের জন্য কতখানি ক্ষতিকারক। কারণ এই কীট তাদের সম্পূর্ণ জীবনবৃত্ত এই শস্যের মধ্যেই সম্পন্ন করে, ফলে বংশবৃদ্ধিও ঘটায় মারাত্মক আকারে। এরা মূলত ফুল খেয়ে নেয়। যার ফলে গোড়াতেই চাষের মারাত্মক ক্ষতি হয়। আশ্চর্যের ব্যাপার পিবিডব্লু হানার শুরুতেই একে ধরা যায় না। ছড়িয়ে পড়ার পর দেখা যায়, চাষের ক্ষতি হয়ে গিয়েছে ততদিনে।

মহারাষ্ট্রে তুলা চাষের জমিতে পিবিডব্লু-এর হানা চাষীদের সঙ্গে সঙ্গে রীতিমতো চিন্তায় ফেলেছে কৃষি বিভাগকেও। প্রায় ৫১টি গ্রামে এই কীটের হানা দেখা গিয়েছে। এরা মূলত জুনের শুরুতে শস্য বপন করেছিল।

তুলাচাষীরা পিবিডব্লুকে তাঁদের শস্যের জন্য মারণ কীট মনে করেন। এই কীট শস্যের মধ্যেই নিজেদের জীবনবৃত্ত সম্পন্ন করে এবং ফুল ও তুলার তন্তু খেয়ে নেয়। তাই এই কীট হানার সম্ভাবনা দেখা দিলে সমূলে তখনই বিনষ্ট না করলে প্রচুর ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। ২০১৭-১৮ সালেও মহারাষ্ট্রের বিভিন্ন গ্রামে হানা দিয়েছিল পিবিডব্লু। ফলে তখনও অনেকটাই ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়েছিল চাষীদের।

বিদর্ভ অঞ্চলে আকোলা জেলায় তেলহারা তালুকার কয়েকটি গ্রামে কীটের হানার খবর পাওয়া গিয়েছে। আকোলায় পাঞ্জাব্রাও দেশমুখ কৃষি বিদ্যাপীঠের প্রফেসর ডি বি উনদিরওয়াড়ে জানিয়েছেন, তিনি নিজেও বেশ কয়েকটি জমিতে কীটের হানা লক্ষ্য করেছেন। এই শস্য বপন করা হয়েছিল জুনের প্রথম সপ্তাহে অর্থাৎ প্রায় ৪৫-৫০ দিন পুরনো। কিন্তু এখনও পর্যন্ত ফুল না আসাই পিবিডব্লু হানার পরিষ্কার লক্ষণ। আকোলা ছাড়াও পিবিডব্লু-এর হানার খবর পাওয়া গিয়েছে আহমেদনগর, জালনা এবং অমরাবতীতে।

উনদিরওয়াড়ে জানিয়েছেন, কীটের সুপ্ত লার্ভা পুরানো শস্যের বীজে থাকে। যখনই নতুন শস্য ওঠে তারা সেখানে বাসা বাঁধে এবং নিজেদের জীবনবৃত্ত সম্পূর্ণ করে। শুধু তাই নয়, নতুন ফসলেই তারা ডিম পাড়ে। তুলা বীজ রোপন হওয়ার ৪৫-৫০ দিন পর ফুল হয়। এই সময়টা লার্ভাদের বেড়ে ওঠার জন্য যথেষ্ট। মহাত্মা ফুলে কৃষি বিদ্যাপীঠের কটন ইমপ্রুভমেন্ট সেন্টার (সিআইসি)-এর অ্যাসিস্ট্যান্ট এন্টোমোলজি এন কে ভুতে জানিয়েছেন, লার্ভা পাতা না খেয়ে ফুল খেয়ে নেয়, যার ফলে ক্ষতিটা মারাত্মক আকার ধারণ করে। এবার ফুল তৈরি হতে যা সময় নেয়, তাতে একটি লার্ভার পূর্ণ জীবনবৃত্ত পরিপূর্ণ হয় এবং তারা শস্যের ক্ষতি করতেও সক্ষম হয়। এই কীটগুলি মূলত আশ্রয় নেয় মথের মধ্যে। এই মথ যে ফুলে গিয়ে বসে সেই ফুলেরই ক্ষতি সাধন হয়। ভুতে জানিয়েছেন, আহমেদনগর জেলার নেভাসা এবং শ্রীরামপুরে বপনের ৪৫ দিন পরেও ফুল না আসায় চাষীদের মধ্যে সন্দেহ দানা বাঁধে। তাঁরা এরকম আট থেকে দশটি মথকে ধরে। যাদের মধ্যে পিবিডব্লু-এর অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া গিয়েছে।

তুলা চাষীদের আর কয়েকদিন অপেক্ষা করে তুলা বীজ বপনের পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু যেখানে সেচব্যবস্থা উন্নত, সেখানকার চাষীরা তুলাচাষে দেরী করেন না। তবে ২০১৭-১৮ সালের পরিস্থিতি যাতে ফিরে না আসে, সে ব্যাপারে নজর রাখা হচ্ছে। এই মরসুমে মারাঠওয়াড়া এবং বিদর্ভে ৪১.৮ লক্ষ হেক্টর জমিতে তুলাচাষ হয়েছে। কমিশনার অফ অ্যাগ্রিকালচার ধীরজ কুমার জানিয়েছেন, ইতিমধ্যেই ডিপার্টমেন্টের তরফ থেকে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ করা হয়েছে। কীটের আক্রমণ রুখতে স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রোটোকল (এসওপি) প্রয়োগ করা হয়েছে। এছাড়াও উদ্যোগী কৃষকদের সঙ্গেও কথা বলা হয়েছে কীটের পিবিডব্লু-এর আঘাত রুখতে।

ত্রয়ী মুখার্জী

Image source - google

Related Link - (Profitable fish Tilapia farming) তিলাপিয়া মাছের প্রজনন ও ব্রুডস্টক পরিচর্চা

(cultivate okra) বর্ষায় অতিরিক্ত লাভের জন্য চাষ করুন ভেন্ডি

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters