সয়বিনের (Profitable cultivation of soybean) লাভজনক চাষ

KJ Staff
KJ Staff

সয়াবিনকে বলা হয় হলুদ স্বর্ণ। কৃষকরা বিশ্বাস করেন যে, সয়াবিন চাষ নিশ্চিতভাবে তাদের পক্ষে লাভজনক, কারণ এতে ক্ষতির সম্ভবনা কম। মধ্য প্রদেশ কালো সোনা (আফিম) এবং হলুদ সোনা (সয়াবিন)-র জন্য খ্যাত। বিশ্বের ৬০% সয়াবিন আমেরিকাতে উত্পাদিত হয়, এছাড়াও মধ্য প্রদেশ ভারতের সয়াবিনের বৃহত্তম উত্পাদক। সয়াবিন গবেষণা কেন্দ্রটি ইন্দোরে রয়েছে। সয়াবিনের বৈজ্ঞানিক নাম 'গ্লাইসিন ম্যাক্স'। এতে প্রোটিন বেশি থাকে, নিরামিষ হলেও এর থেকে মানুষ মাংসের মতো প্রোটিন পান। প্রধান উপাদানগুলি হ'ল প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট এবং ফ্যাট। সয়াবিনে ৩৮-৪০ শতাংশ প্রোটিন, ২২ শতাংশ অয়েল, ২১ শতাংশ কার্বোহাইড্রেট, ১২ শতাংশ ময়েশ্চার এবং ৫ শতাংশ কনসাম্পশন রয়েছে। সয়াবিন একটি ডাল ফসল, এটিতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন রয়েছে।

প্রায় ৫৩.০০ লক্ষ জমিতে সয়াবিনের চাষ হয়ে থাকে। পশ্চিমবঙ্গে এখনও ব্যাপকভাবে এর চাষ শুরু হয়নি ঠিকই। আমাদের দেশে মধ্যপ্রদেশে সয়াবিন সবচেয়ে বেশি উৎপাদিত হয়। তবে লাভজনক ফসল হওয়ায় অনেকেই এর চাষে আগ্রহ দেখিয়েছেন।

সয়াবিনের চাষ পদ্ধতি (Soybean Cultivation)-

ক্ষেত্র প্রস্তুত -

সুষম সার এবং মাটির স্বাস্থ্যের জন্য মাটিতে প্রধান উপাদানগুলি - নাইট্রোজেন, ফসফরাস, পটাশ, সালফার, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং জিংক, তামা, আয়রন, ম্যাঙ্গানিজ, মলিবডেনাম, বোরনের পাশাপাশি পিএইচ, ইসি -এর মতো গৌণ পুষ্টি এবং জৈব পদার্থ পরীক্ষা করতে হবে।

সয়াবিন চাষের উপযুক্ত সময় -

জুলাই মাসে খরিফ ফসলের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে, সয়াবিন জমিতে এই সময় বপনের জন্য প্রস্তুত। এটি সয়াবিন চাষের আদর্শ সময়, তাই এখন সয়াবিনের ফসল বেশি পরিমাণে বপন করা হচ্ছে। সয়াবিন বপনের সময় ভাল অঙ্কুরোদগমের জন্য জমিতে ৮-১০ সেমি আর্দ্রতা প্রয়োজন। যদি জমির প্রস্তুতিতে বিলম্ব হয় তবে বীজ ৫-১০ শতাংশ বৃদ্ধি করুন। প্রতি হেক্টরে ৮০/৮৫ কেজি বীজ ব্যবহার করা উচিত।  

বীজ শোধন -

রাইজোবিয়াম মেশানো -

বীজ বপনের দিন রাইজোবিয়াম কালচার বীজের সঙ্গে ভালোভাবে মিশিয়ে দিতে হবে। এর জন্য বীজ প্রথমে ১৫-২০ মিনিট জলে ভিজিয়ে রাখতে হবে। এরপর এক লিটার জলে ১০০-১৫০ গ্রাম গুড় ৩০ মিনিট ধরে ফুটিয়ে তারপর ঠান্ডা করে নিতে হবে। প্রতি একরের জন্য প্রয়োজনীয় বীজের সাথে ৩০০-৪০০ গ্রাম রাইজোবিয়াম স্ট্রেন উক্ত গুড় মিশ্রনের  সাথে মিশিয়ে বীজের গায়ে ভাল ভাবে মাখিয়ে ছায়ায় শুকনো করে বপন করতে হবে।

রাসায়নিক শোধন -          

বীজ বপনের সাত দিন আগে রাসায়নিক শোধন করে নিতে হবে। রাসায়নিক শোধনের ক্ষেত্রে ম্যানকোজেব ৭৫ % ডবলু. পি বা থাইরাম ৭৫ % ডবলু. এস বা ক্যাপটান ৫০ % ডবলু. এস @ ২.৫ গ্রাম হারে প্রতি কেজি বীজের সঙ্গে ভালভাবে মিশিয়ে বীজ শোধন করে নিতে হবে।

চারার সংখ্যা -

সয়াবিন উদ্ভিদ হেক্টর প্রতি ৩/৪ লক্ষ উপযুক্ত। রোপণের সময় এক সারি থেকে অপর সারির দূরত্ব ৪৫ সেমি ও উদ্ভিদের মধ্যে দূরত্ব থাকবে ১৫ সেমি।

সয়াবিনের জন্য জমিতে উপযুক্ত জাত।

নিম্নলিখিত প্রকারের সয়াবিন মধ্য প্রদেশে চাষ হয় - 

জে এস ২০৩, জে এস ২০২, আর বি এস ২০০১-৪ ইত্যাদি।

সয়াবিন কিষাণ ২২৮ -একটি নতুন প্রজাতি। এটি স্বল্প সময়ের মধ্যে ফলন দিতে সক্ষম এবং এর উত্পাদনশীলতা অন্যান্য জাতগুলির চেয়ে ভাল। এই জাতের গাছগুলির উচ্চতা ৭৫/৮০ সেমি হয়।

বীজ সংস্থার নাম -

শাইন ব্র্যান্ড সীডস রিসার্চ সার্টিফায়েড সয়াবিন সীড

মালওয়া সয়াবিন সীডস, ফর এগ্রিকালচার

অরগ্যানিক সয়াবিন মিল ফর এগ্রিকালচার

ক্রাশি সয়াবিন এগ্রিকালচার

Image Source - Google

Related Link - লেবু চাষ (Lemon cultivation) করে কৃষক উপার্জন করতে পারেন ২ কোটি পর্যন্ত

সবুজ ঘাসের সারেই (Organic Manure) হবে ভালো ফসল, কীভাবে করবেন দেখুন

শ্রী পদ্ধতিতে (Sri Method- aman paddy) আমন ধান চাষে দ্বিগুণ লাভ

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters