ঋণ মকুব সত্ত্বেও কৃষকের আত্মহত্যা থামছে না

Saikat Majumder
Saikat Majumder
চলতি বছরের নভেম্বর পর্যন্ত ৮০৫ জন কৃষক আত্মহত্যা করেছেন। (প্রতিকি ছবি)
চলতি বছরের নভেম্বর পর্যন্ত ৮০৫ জন কৃষক আত্মহত্যা করেছেন। (প্রতিকি ছবি)

মহারাষ্ট্র সরকার সাম্প্রতিক বছরগুলিতে টানা দুই বছর কৃষি ঋণ মকুবের কথা  ঘোষণা করেছে। ঋণ মকুব হলেও কৃষকের আত্মহত্যা থামছে না। এই বছরের প্রথম ১১ মাসে, শুধুমাত্র রাজ্যের মারাঠওয়াড়া অঞ্চলেই ৮০৫ জন কৃষক আত্মহত্যা করেছেন। মারাঠাওয়াড়া অঞ্চলে মোট ৮টি জেলা রয়েছে।

কৃষকের আত্মহত্যার ৮০৫ টি মামলার মধ্যে ৬০৫ টি ক্ষতিপূরণের জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত হয়েছিল । একই সঙ্গে ১১৫টি মামলার তদন্ত চলছে।  

আরও পড়ুনঃ PM Kisan Yojana: দেশের কোটি কোটি কৃষকের জন্য সুখবর

গত বছর এ অঞ্চলের ৭৭৩ জন কৃষক আত্মহত্যা করেছিলেন। এর মধ্যে ৬১৭ জন ক্ষতিপূরণ পেয়েছেন এবং ১১০ জন আর্থিক সহায়তা পান নি । একই সঙ্গে বাকি মামলার তদন্তও বিচারাধীন । একই সময়ে, ২০১৯ সালে কৃষক আত্মহত্যার ৯৩৭ টি মামলা নথিভুক্ত করা হয়েছিল।

যে রাজ্য সরকার ২০১৭  সালে প্রথমবার ঋণ মকুব করেছিল। এরপর টানা দুই বছর ওই এলাকায় ভারী বৃষ্টিপাত হয় এবং পরবর্তী দুই বছর করোনা মহামারীতে কৃষকদের চরম ক্ষতি হয় । ফলে এই চার বছরে লাখ লাখ টন ফসল, ফলমূল ও শাকসবজি পচে বা নষ্ট হয়ে গেছে। 

আরও পড়ুনঃ  ধান কিনতে অতিরিক্ত স্থায়ী কেন্দ্র গড়বে পণ্য সরবরাহ নিগম

সরকার ১ এপ্রিল ২০১৫  থেকে ৩১ মার্চ ২০২০ পর্যন্ত নেওয়া ২ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ মুকুব  করেছে । মোট ১৯  লক্ষ কৃষক এই ঋণ মকুব থেকে উপকৃত হয়েছেন ।

অন্যদিকে, আরেক কৃষক কর্মী জয়াজিরাও সূর্যবংশী বলেছেন যে রাজ্য সরকারের উচিত কৃষকদের আত্মহত্যা রোধে তেলেঙ্গানা মডেল বাস্তবায়ন করা। তেলেঙ্গানা সরকার সার এবং বীজ কেনার জন্য প্রতি একর ১০০০০ টাকা সাহায্য করে। তিনি বলেছিলেন যে দুই বছরের ভারী বৃষ্টিপাত এবং পরবর্তীতে কোভিড মহামারীর জন্য  ঋণ মুকুবও হয়নি । এটা না হলে পরিস্থিতি অন্যরকম হতো।

Like this article?

Hey! I am Saikat Majumder. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters