G-20 agri meet: ভারত বাজরার মতো স্বাস্থ্যকর শস্যের ভান্ডার হয়ে উঠেছে

রায়না ঘোষ
রায়না ঘোষ
G-20 agricultural meet (image credit- Google)
G-20 agricultural meet (image credit- Google)

রবিবার কৃষি মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমার জি -২০ কৃষি সভায় জানিয়েছেন, ভারত বাজারের মতো স্বাস্থ্যকর শস্যের সমৃদ্ধময় দেশ হয়ে উঠছে এবং অপুষ্টি মোকাবেলায় সরকার বায়োফোর্টিফাইড জাতের প্রচার করছে | তোমার বলেন, জাতিসংঘ (UN) ভারতের প্রস্তাব গ্রহণ করেছে এবং ২০২৩ কে আন্তর্জাতিক বাজারের বছর হিসেবে ঘোষণা করেছে এবং জি -২০ দেশগুলিকে পুষ্টি ও টেকসই কৃষিকে উৎসাহিত করার জন্য "মিলেট ইয়ার"  উদযাপনকে সমর্থন করার আহ্বান জানিয়েছে। জি -২০ কৃষি মন্ত্রীদের সভা অক্টোবর মাসে ইতালি কর্তৃক আয়োজিত জি -২০  লিডারস সামিট ২০২১ এর অংশ হিসাবে আয়োজিত মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকগুলির মধ্যে একটি।

সম্প্রতি ভারত সরকার মানুষের খাদ্যে বাজরা, অন্যান্য পুষ্টিকর শস্য, ফল ও সবজি, মাছ, দুগ্ধ এবং জৈব পণ্য সহ ঐতিহ্যবাহী খাদ্য সামগ্রী পুনরায় চালু করার উপর জোর দিয়েছে।সাম্প্রতিক বছরগুলিতে ভারতে তাদের উৎপাদন অসাধারণ হয়েছে এবং ভারত স্বাস্থ্যকর খাদ্য সামগ্রীর জন্য একটি গন্তব্য দেশ হয়ে উঠছে, "একটি ভার্চুয়াল ঠিকানায় তোমারের উদ্ধৃতি দিয়ে একটি সরকারী বিবৃতি।

তোমার বলেন, বায়োফোর্টিফাইড-জাতগুলি, যা মাইক্রো-নিউট্রিয়েন্ট সমৃদ্ধ প্রধান খাদ্যের উৎস, অপুষ্টি দূর করতে প্রচার করা হচ্ছে। বিভিন্ন ধরনের ফসলের প্রায় ১৭টি জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে এবং চাষের জন্য ব্যবহার করা হয়েছে |তিনি আরও বলেন, সরকার জলসম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহার বৃদ্ধি, সেচের জন্য অবকাঠামো তৈরি, সারের সুষম ব্যবহারের সাথে মাটির উর্বরতা সংরক্ষণ এবং খামার থেকে বাজারে সংযোগ প্রদানের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

তিনি সভায় "শূন্য ক্ষুধা লক্ষ্য অর্জনের জন্য একসাথে কাজ করা: কৃষি মন্ত্রণালয় কর্তৃক বাস্তবায়িত সফল প্রকল্প" বিষয়ক একটি অধিবেশনে বক্তব্য রাখছিলেন। দেশের স্বাধীনতার পর ভারতীয় কৃষি ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেছে উল্লেখ করে তোমার বলেন, "কোভিড মহামারী চলাকালীনও ভারতীয় কৃষি খাত প্রভাবহীন ছিল।" তিনি বলেন, কোভিড মহামারীর সময় কৃষি-বাজার সরবরাহের শৃঙ্খলের পাশাপাশি কৃষি-বাজারকে গতিশীল রাখার বিভিন্ন সরকারি উদ্যোগ কৃষি খাতকে আরও ভালো কাজ করতে সহায়তা করেছে।

আরও পড়ুন -Crab farming process: জেনে নিন কাঁকড়া চাষের অভিনব পদ্ধতি

ফলস্বরূপ, ২০২০-২০২১ সাল পর্যন্ত, খাদ্যশস্যের উৎপাদনের পাশাপাশি রপ্তানিও বৃদ্ধি পেয়েছে। টেকসই কৃষির দিকে গৃহীত পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, সেচের জন্য 'প্রি-ড্রপ-মোর ফসল' স্কিম এবং জৈব চাষের জন্য 'পরম্পরাগত কৃষি বিকাশ যোজনা' সফলভাবে বাস্তবায়িত হচ্ছে। কৃষকদের জন্য বীমা কভার প্রদানের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ফসল বীমা যোজনা বাস্তবায়িত হচ্ছে। তিনি বলেন, "জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য ভারত তার প্রতিশ্রুতি সম্পর্কে পুরোপুরি সচেতন এবং কৃষিকে টেকসই করার জন্য বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।"

অপুষ্টিজনিত সমস্যা মোকাবেলায় ভারত বিশ্বের সবচেয়ে বড় খাদ্য ভিত্তিক নিরাপত্তা নেট কর্মসূচি পরিচালনা করছে, যার মধ্যে রয়েছে জনসাধারণের বিতরণ ব্যবস্থা এবং মিড-ডে মিল স্কিম। সরকার প্রধানমন্ত্রীর কিষাণ সম্মান নিধি যোজনার আওতায় ৬,০০০ টাকা বার্ষিক আয়ের সহায়তা প্রদান করছে। এই প্রকল্পের অধীনে এখন পর্যন্ত ১১.৩৭ কোটিরও বেশি কৃষকের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ১.৫৮ লক্ষ কোটি টাকা জমা হয়েছে। তিনি আরও বলেন আশ্বস্ত করেছিলেন যে ভারত সেরা অনুশীলনগুলি ভাগ করবে এবং অন্যান্য উন্নয়নশীল দেশের সক্ষমতা তৈরি করবে।

তিনি টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যের অংশ হিসেবে দারিদ্র্য বিমোচন এবং শূন্য ক্ষুধা লক্ষ্য অর্জনের জন্য একসঙ্গে কাজ চালিয়ে যাওয়ার ভারতের সংকল্প পুনর্ব্যক্ত করেন। তিনি গবেষণায় এবং উন্নয়নে সহযোগিতার পাশাপাশি উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির জন্য সর্বোত্তম অনুশীলনের বিনিময়ে ভারতের সংকল্পের পুনরাবৃত্তি করেন।

আরও পড়ুন -Azolla cultivation guide: বেকার সমস্যা দূরীকরণে অ্যাজোলা চাষে লাভ করুন দ্বিগুন

Like this article?

Hey! I am রায়না ঘোষ . Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters