অন্তরবর্তী বাজেট ও পূর্ণাঙ্গ বাজেটের মধ্যে পার্থক্য কী?

Friday, 01 February 2019 04:00 PM

প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী পরিচালিত বিজেপি সরকার ১ই ফেব্রুয়ারি আগামী আর্থিক বৎসরের বাজেট পেশ করেছে। এই বাজেট অধিবেশন এই বৎসর এক মাস এগিয়ে নিয়ে আসা হয়েছে কারণ আগামী এপ্রিল-মে মাসে লোকসভা নির্বাচন শুরু হতে চলেছে।

কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রক এই বাজেটের নাম দিয়েছেন “অন্তর্বর্তী বাজেট” এবং বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম ও অন্যান্য উৎস থেকে জানা গেছে এই অন্তরবর্তী বাজেটের মাধ্যমেই কেন্দ্রীয় সরকার সম্পূর্ণ বাজেট পেশ করতে পারে। ইউনিয়ন মিনিস্টার শ্রী পীয়ুষ গোয়েলকে অস্থায়ী অর্থমন্ত্রক সামলানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তিনিই এই নতুন অন্তরবর্তী বাজেট পেশ করবেন।

এই বিষয়ের মাধ্যমে আমরা পূর্ণাঙ্গ বাজেট ও অন্তরবর্তী বাজেট-এর সম্পর্কে আলোচনা করতে চলেছি।

অন্তরবর্তী বাজেট কী?

অন্তর্বর্তী বাজেট একটি সংগঠিত প্রশাসনিক বাজেট যেটি একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত চলে, এটি একটি সম্পূর্ণ বাজেটের মতই বিষয় যার মাধ্যমে কোনো সরকার চলতি বৎসরের খরচ ও আগামী বৎসরের একটি খরচের নকসা প্রকাশ করতে পারেন। অন্তরবর্তীকালীন বাজেটের মাধ্যমে একটি আর্থিক বৎসরে কত টাকা আয় ও কত টাকা ব্যয় হতে পারে তার একটি পূর্ণাংগ হিসাব পাওয়া সম্ভব হয়।

কখন অন্তরবর্তীকালীন বাজেট পেশ করা হয়?

একটি সরকার তখনি এই ধরণের বাজেট পেশ করতে পারে যখন একটি পূর্ণাংগ বাজেট তৈরির সময় পায় না, বা সামনাসামনি কোনো সাধারণ নির্বাচনের সময় চলে আসলে। আসলে এই ধরণের বাজেট পেশের কারণই হলো, কোনো বিদায়ী সরকার তাঁর চলার সময়টুকুর বাজেট তৈরি করে এবং আগামী সরকার যাতে সেই অন্তরবর্তী বাজেটকে পূর্ণাংগ রূপ দিতে পারে।

আমাদের অন্তরবর্তী বাজেটের প্রয়োজনীয়তা কী?

একটি সরকারের অন্তরবর্তী বাজেটের প্রয়োজনীয়তা তখনি পড়ে যখন সে তাঁর শাসনকালের সময়টুকু সেই বাজাটের মাধ্যমে চলতে পারে, এবং আগামি সরকার যাতে নিজের প্রয়োজনমত তাঁদের আর্থিক পরিকল্পনা গ্রহণ করতে সক্ষম হন। ভারতীয় লোকসভা এই ধরণের বাজেট অধিবেশনের অধিকার দেয় যাতে বিদায়ী সরকার ৩১শে মার্চ পর্যন্ত তাঁদের আর্থিক কার্যাবলী মিটিয়ে নিতে সক্ষম হয়।

যদি কোনো কারণে কোনো সরকার পূর্ণাংগ বাজেট বানানোর সময় না পায় আর্থিক বৎসর শেষ হওয়া পর্যন্ত তবে লোকসভার কর্তৃপক্ষকে সামান্য সময়ের আয় ব্যয়ের হিসাব সামলানোর জন্য এই অন্তরবর্তী বাজেট অধিবেশনের অধিকার দেওয়া হয়। এই লোকসভা অন্তরবর্তী বাজেটের মাধ্যমে একটি ভোট অফ অ্যাকাউন্টস এর অধিকার পায় যতদিন না পর্যন্ত নতুন সরকার বা লোকসভা পূর্ণাংগ বাজেট পেশ করছে। এই ভোট অফ অ্যাকাউন্টসের জন্য বিদায়ী লোকসভা এবং সরকার তাঁদের সমস্ত সরকারী খরচ করতে সক্ষম। নির্বাচনের ক্ষেত্রে এই ভোট অফ অ্যাকাউন্টসের মেয়াদ মাত্র চার মাস।

অন্তরবর্তী বাজেট ও সাধারণ বাজেটের মধ্যে পার্থক্য কী?

অন্তরবর্তী বাজেটের মাধ্যমে একটি সরকার লোকসভার অনুমত্যানুসারে একটি সরকার তাঁর বাকী আর্থিক সময়কালের খরচ নির্বাহ করার ক্ষমতা পায়।অবশ্য এই আয় ও ব্যয়ের হিসাবের নির্ধারণ করা হয় একটি পূর্ণাংগ বছরের হিসেবেই। যদি সরকার পরিবর্তন হয় তাহলে এই অন্তরবর্তী বাজেটের বেশ কিছু প্রনয়ণ নতুন সরকার তাঁর ইচ্ছামতো পরিবর্তন করতে সক্ষম হন।

একটি সরকার কী অন্তরবর্তী বাজেটের মাধ্যমে নতুন করব্যবস্থা বা নতুন নীতি প্রনয়ন করতে পারেন?

সংবিধান অনুসারে কোনো সরকার অন্তরবর্তী বাজেটের মাধ্যমে করকাঠামো পরিবর্তন করতে পারেন। স্বাধীনতার পর থেকে এই পর্যন্ত মোট ১২ টি অন্তরবর্তী বাজেট অধিবেশন হয়েছে যাতে বড়সড় পরিবর্তন হয়েছে ও অনেক নতুন পরিকল্পনা সংযোজিত হয়েছে।

আবার এও দেখা গেছে ২০০৯ সালে কংগ্রেস পরিচালিত ইউ-প-এ সরকার ভোটপূর্ববর্তী অন্তরবর্তী বাজেট পেশ হয়েছিলো তার কোনো পরিবর্তন ঘটায় নি।

- প্রদীপ পাল (pradip@krishijagran.com)

Share your comments



Krishi Jagran Bengali Magazine Subscription Subscribe Online

Download Krishi Jagran Mobile App

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.