রাষ্ট্রসংঘের রিপোর্ট বলছে তাপপ্রবাহের কবলে পড়তে পারে কলকাতা

Monday, 01 January 0001 12:00 AM

রাষ্ট্রসঙ্ঘের ইন্টারগভর্নমেন্টাল প্যানেল ফর ক্লাইমেট চেঞ্জ (আইপিসিসি) একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে সেই রিপোর্ট অনুযায়ী, যদি পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা ২ ডিগ্রি বেড়ে যায়, তাহলে ভারতকে তীব্র তাপপ্রবাহের সম্মুখীন হতে হবে। সারা বিশ্ব থেকে জলবায়ু সংক্রান্ত প্রায় ছ’হাজার উদাহরণ নিয়ে সেগুলি বিশ্লেষণ ও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে, বিশ্বের কয়েক হাজার পরিবেশ বিশারদ ও বিজ্ঞানীর মতামত নেওয়া হয়েছে এবং ৪০টি দেশের ৯১ জন লেখক ও সম্পাদক এই রিপোর্ট তৈরি করেছেন।

বিশ্ব উষ্ণায়ন নিয়ে আইপিসিসি’র ওই বিশেষ রিপোর্ট বলছে, দিল্লি, মুম্বই, চেন্নাই এবং কলকাতাভারতের এই চার বড় শহরের গড় তাপমাত্রা গত ১৪৭ বছরে অনেকটাই বেড়েছে। প্রথমবারের জন্য পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি পৌঁছে গিয়েছে ১ ডিগ্রিতে। কমার পরিবর্তে বেড়েই চলেছে গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমণ। রিপোর্টে আশঙ্কা করা হয়েছে, ২০৩০ সালের মধ্যে পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়তে পারে। আর তেমনটা হলে ২০৩০ থেকে ২০৫২ সালের মধ্যে বিশ্ব উষ্ণায়নের সূচকে দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধি হতে পারে। ভারতীয় উপমহাদেশের মধ্যে করাচি এবং কলকাতার নাম আলাদা করে উল্লেখ করা হয়েছে ওই রিপোর্টে। বলা হয়েছে, এই দুই শহরে তাপমাত্রা গড়ে ২ ডিগ্রি বাড়বে। তাপমাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে আসবে খাদ্যের সঙ্কট। এর সঙ্গে মূল্যবৃদ্ধি এবং জনস্বাস্থ্যের অবনতির ফলে বাড়বে দারিদ্র।

বলা হয়েছে, ২০১৫ সালের মতো তাপপ্রবাহের কবলে পড়তে পারে করাচি এবং কলকাতা। সেবার এমনই তাপপ্রবাহের জেরে দেশে ২ হাজার ৫০০ জনের মৃত্যু হয়েছিল। এর জন্য ভারত এবং পাকিস্তানের সরকারকে আগেভাগেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে রাখার প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছে। এদিকে, জলবায়ুর এই ব্যাপক পরিবর্তনের ফলে খাদ্যদ্রব্যের দাম যেমন বাড়বে, তেমন দারিদ্রও পাল্লা দিয়ে বৃদ্ধি পাবে। ঘরে ঘরে রোগ-ব্যাধির প্রকোপও বাড়বে বলে উদ্বেগপ্রকাশ করা হয়েছে ওই রিপোর্টে। সবচেয়ে খারাপ অবস্থা হবে মেগাসিটি, উপকূল এলাকা, পার্বত্য এলাকা এবং ছোট দ্বীপ অঞ্চলগুলিতে। সেখানে তাপমাত্রা বাড়ার সঙ্গে বায়ুর দূষণ বাড়তে পারে।

এই রিপোর্টে বলা হয়েছে উষ্ণায়নের কুপ্রভাবগুলি থেকে বাঁচতে কার্বন ডাই অক্সাইড তথা গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমন কমাতে হবে, নয়তো এমন পরিবেশে ছড়িয়ে পড়া গ্রিন হাউস গ্যাস শুষে নেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। এবং এই শুষে নেওয়ার পরিমাণ হতে হবে নির্গমণের থেকে বেশি। অপ্রচলিত শক্তি ব্যবহারে জোর দিতে হবে। সৌরশক্তি, জলবিদ্যুতের ব্যবহার বাড়ালে ২০৫০ সালের মধ্যে পরিস্থিতি কিছুটা সামলানো যাবে বলে আশাপ্রকাশ করেছেন বিজ্ঞানীরা। এর পাশাপাশি, বিশ্ব উষ্ণায়নকে দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াসেই ধরে রাখতে মানুষের দ্বারা কার্বন ডাই অক্সাইড নিঃসরণের মাত্রা ৪৫ শতাংশে নিয়ে আসতে হবে ২০৩০ সালের মধ্যে। এর পাশাপাশি তাপমাত্রা কমাতে হলে পরিবহণ, ভবন নির্মাণ, শিল্প ও শক্তি ক্ষেত্রেও ব্যাপক রদবদল করার পরামর্শ দিয়েছে আইপিসিসি।

বিষ্ণ উষ্ণায়ন রুখতে আইপিসিসি’র প্রকাশিত ওই রিপোর্টে যে সমস্ত প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে, তা নিয়ে আগামী ডিসেম্বরে পোল্যান্ডে আয়োজিত কাটওয়াইস ক্লাইমেট চেঞ্জ কনফারেন্সে আলোচনা হবে।

- রুনা নাথ

Share your comments



Krishi Jagran Bengali Magazine Subscription Subscribe Online


Download Krishi Jagran Mobile App

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.