আফ্রিকান দেশগুলিতে চাহিদা কমে যাওয়ায় ভারতের ধান রপ্তানি হ্রাস পেয়েছে ২৯ %

Sunday, 13 October 2019 08:30 PM

সরকারী তথ্য থেকে জানা গেছে যে, আফ্রিকার দেশগুলি থেকে নন-বাসমতি চালের দুর্বল চাহিদার কারণে আগস্টে ভারতের ধান রপ্তানি ২৯ % হ্রাস পেয়ে ৬৪৪,২৪৯ টনে দাঁড়িয়েছে।

ভারতের ধান ব্যবসায়ের সহসভাপতি নিতিন গুপ্ত বলেছেন, " নন-বাসমতী চালের জন্য পশ্চিম আফ্রিকার দেশগুলির চাহিদা দুর্বল হয়ে পড়েছে। তারা চীন থেকে অনেক কিছু ক্রয় করেছে এবং এখন আর বিপুল পরিমাণে ক্রয়ের দরকার নেই"। ভারত বিশ্বের বৃহত্তম ধান রপ্তানিকারক দেশ, তবে তথ্যানুযায়ী ২০১৯/২০২০ অর্থ বছরের প্রথম পাঁচ মাসে তার রপ্তানি হ্রাস পেয়েছে, ১ এপ্রিল থেকে শুরু হয়ে এর পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩.৮ মিলিয়ন টন। তদুপরি, নয়াদিল্লির এক রপ্তানিকারক বলেছেন, ভারতের বাসমতি ধানের বৃহত্তম ক্রেতা, ইরান গত কয়েক সপ্তাহে নিজস্ব অঞ্চলে ফসল উৎপাদনের কারণে ক্রয় প্রায় বন্ধ করে দিয়েছে। তিনি জানিয়েছেন "স্থানীয় ফসল সংগ্রহ করার পর পরের বছরের প্রথম দিকে ইরান পুনরায় ক্রয় শুরু করতে পারে,"।

নিতিন গুপ্ত জানিয়েছেন যে, ভারতের গ্রীষ্মে-বপন করা ফসলের চাল সরবরাহ আগামী মাসের থেকে উন্নত হবে বলে আশা করা হচ্ছে এবং এটি স্থানীয় মূল্যকে সংযত করতে এবং রপ্তানিকে প্রতিযোগিতামূলক করে তুলতে পারে।

গত মাসে, সরকার প্রকাশ করেছে যে ২০১৯ সালে গ্রীষ্মে-বপন করা ফসল থেকে ধানের উৎপাদন এক বছর আগে তুলনায় প্রত্যাশিত পরিমাণের থেকে ১.৭ % কমে দাঁড়িয়েছে ১০০.৩৫ মিলিয়ন টন

ধান রপ্তানিকারক সংস্থার (আরইএ) সভাপতি বি ভি কৃষ্ণ রাও বলেছেন, "সরকার রপ্তানির জন্য কিছু প্রণোদনা না দিলে এক বছর আগের তুলনায় ২০১৯/২০২০ সালে নন-বাসমতি চাল রপ্তানি ৪০% কমে যেতে পারে"। তিনি বলেছেন, রপ্তানি ত্বরান্বিত করার জন্য এই শিল্পের সরকারের সহায়তার প্রয়োজন"।

প্রতিবেদন অনুসারে, এই বছরের চার মাস ধরে নন-বাসমতী চাল রপ্তানির জন্য প্রণোদনা পেলেও ভারত ২০১৮/১৯ সালে ৩১ শে মার্চের মধ্যে ১১.৯৫ মিলিয়ন টন চাল রপ্তানি করেছে, যা পূর্ববর্তী বছরের তুলনায় ৭.২% হ্রাস পেয়েছে। এটি মনে করা হয় যে, প্রতিযোগীদের কম মূল্যও রপ্তানি হ্রাসের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখে।

স্বপ্নম সেন (swapnam@krishijagran.com)



Krishi Jagran Bengali Magazine Subscription Subscribe Online

Download Krishi Jagran Mobile App

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.