দেশ একজন হর্টিকালচারের মূখ্য ব্যক্তিত্বকে হারালো

Monday, 01 January 0001 12:00 AM

ভারতবর্ষের সনামধন্য হর্টিকালচারিস্ট ড. মনমোহন আটাভার গত ১২ ই ডিসেম্বর ২০১৭, আমাদের বিদায় জানিয়ে এই পৃথিবী ছেড়ে স্বর্গদ্বারের দিকে রওনা হয়ে গেলেন।

মনমোহন আটাভার (১২ জুলাই ১৯৩২ - ১২ ডিসেম্বর ২০১৭) ছিলেন একজন ভারতীয় হর্টিকালচারিস্ট, প্লান্ট ব্রিডার, লেখক ও ইন্দো আমেরিকান হাইব্রিড সিডস (IAHS) এর প্রতিষ্ঠাতা। তিনি ১৯৬৫ সালে  এই হাইব্রিড সিডসের কোম্পানীটির প্রতিষ্ঠা করেন যার মূখ্য কার্যালয় ব্যাঙ্গালুরুতে, এবং যার সারা ভারত জুরে ৯টি শাখা কার্যালয় আছে। তিনি ভারতবর্ষের বানিজ্য মন্ত্রালয়ের বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টা কমিটির ও ফেডারেশন অফ ইন্টারন্যশনাল সিডসমেন, সুইজারল্যান্ড এর সদস্য ছিলেন এবং ন্যাশনাল হর্টিকালচার বোর্ডের মূখ্য অধিকর্তা ছিলেন। তিনি, ফ্লোরিকালচার: টেকনোলজি, ট্রেডস ও ট্রেন্ডস এই বইটির সহ লেখক ছিলেন যেটি অক্সফোর্ড ও আই বি এইচ পাবলিসিং হাউস থেকে ১৯৯৪ সালে প্রকাশিত হয়।

আটাভার অনেক সম্মানে ভূষিত হয়েছিলেন যেমন, ড. এম এইচ মরিগোয়াডা ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড, এপিইডা অ্যাওয়াআর্ড, গোল্ডেন জুবিলি ইন্টারন্যাশনাল অ্যাওয়াআর্ড অফ ইন্টারন্যাশনাল ক্রিসেনথেমাম সোসাইটি, ক্যালিফর্নিয়া ও আই এস এফ অ্যাওয়ার্ড। কর্নাটক সরকার তাঁকে ১৯৯১ সালে রাজ্যতসভা প্রশস্তি সম্মানে ভূষিত করে। তিনি ১৯৯৮ সালে হর্টিকালচারে তাঁর অবদানের জন্য ভারত সরকারের কাছ থেকে ভরতের চতুর্থ সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মান পদ্মশ্রী পদকে ভূষিত হন।

আটাভারের স্ত্রী শ্রীমতি মমতা পূর্বেই গত হয়েছেন তাঁদের দুই সন্তানদের রেখে। তার স্ত্রীর মৃত্যুর পরেই তিনি লোম্বার্ড মেমোরিয়াল হসপিটাল, উদাপিতে একটি মহিলা কার্ডিয়াক থিয়েটার ব্লক তৈরি করে দেন এবং এরপর হসপিটাল এই অংশটির নামকরন করে মার্থা মমতা আটাভার মেমোরিয়াল ব্লক।

English Summary: The country has lost the key personality of a horticulture

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.