সুখবর, লকডাউনে বাড়িতে বসেই রোজগারের পথ দেখাবে ‘জীবন শক্তি যোজনা’

KJ Staff
KJ Staff

দেশব্যাপী চলছে লকডাউন, এই পরিস্থিতিতে আর্থিক অনটনের মধ্যে রয়েছেন অনেকেই৷ একদিকে কৃষিকাজে ছন্দপতন এবং অন্যদিকে উৎপাদিত ফসলের বিক্রিতে মন্দা, এই দুই নিয়ে কার্যত নাজেহাল কৃষকেরা৷ পুরুষ থেকে মহিলা অনেকেই তাই মাঠ ছেড়ে এখন ঘরবন্দি জীবন কাটাচ্ছেন৷ এই কঠিন পরিস্থিতিতে এবার মহিলাদের জন্য রয়েছে সুখবর৷ এই লকডাউন পরিস্থিতিতে মহিলাদের অর্থোপার্জনের উদ্দেশ্যে মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান প্রচলন করলেন ‘জীবন শক্তি যোজনা’ প্রকল্প- যার মাধ্যমে বাড়িতে বসেই কাজ করে টাকা উপার্জন করতে পারবেন মহিলারা৷

কী এই ‘জীবন শক্তি যোজনা’?

এই জীবন শক্তি যোজনায় কীভাবে উপার্জনের সুযোগ রয়েছে, চলুন জেনে নেওয়া যাক৷ এই যোজনার মাধ্যমে মহিলারা বাড়িতে বসে মাস্ক তৈরি করবেন এবং সরকার প্রতিটি মাস্ক ১১ টাকা মূল্যে ক্রয় করবে৷ বর্তমান পরিস্থিতিতে সবথেকে বেশি প্রয়োজনীয় মাস্ক এবং বাড়িতে বসে খুব সহজেই এই প্রয়োজনীয় জিনিসটি তৈরি করতে পারবেন মহিলারা৷ আর তা সরকারকে বিক্রি করে টাকাও উপার্জন করতে পারবেন তারা৷ টাকা যাতে দ্রুত মহিলাদের হাতে আসে সেই বিষয়ে আশ্বস্ত করেছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী৷

করোনা সংক্রমণের হাত থেকে দেশবাসীকে রক্ষা করতে লকডাউন চলছে, বর্তমানে যার দ্বিতীয় পর্যায় চলছে৷ আগামী ৩ রা মে পর্যন্ত রয়েছে এর মেয়াদ৷ এই লকডাউনে খুব প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বের হচ্ছেন না সাধারণ মানুষ৷ ফলে অনেকের রুজি রোজগার প্রায় বন্ধ বা বন্ধের মুখে৷ বাইরে বের হওয়ার ক্ষেত্রে মাস্ক একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় জিনিস৷ আর তাই এই মাস্ক বাড়িতে বসে তৈরি করেই মহিলারা যাতে রোজগার করতে পারেন, সেই উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে সরকারের পক্ষ থেকে৷

জানা গিয়েছে, সরকার মহিলাদের একবারে ২০০ মাস্ক তৈরির অর্ডার দেবে৷ এই মাস্ক সূতির কাপড় দিয়ে তৈরি করতে হবে৷ সরকারী উদ্যোগেই সেই মাস্ক সংগ্রহ করে নেওয়া হবে৷ যেদিন মাস্ক জমা করা হবে, সেদিন বা তার পরের দিন ওই মহিলা কর্মীদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে টাকা স্থানান্তরিত করা হবে বলেও জানা গিয়েছে৷

বাড়িতে মাস্ক তৈরি করতে যারা ইচ্ছুক সেইসব মহিলাদের ০৭৫৫-২৭০০৮০০ এই নম্বরে ফোন করে নাম নথিভুক্ত করতে হবে৷ তারপরেই তাদের মাস্ক তৈরির অর্ডার দেওয়া হবে৷

জানা যাচ্ছে, মধ্যপ্রদেশের বিভিন্ন জেলার বহু মহিলা ইতিমধ্যেই এই কাজের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন৷ দেওয়াস জেলার গ্রামগুলি থেকে প্রায় ১৫০ মহিলা প্রতিদিন ২০০০-এর ওপর মাস্ক তৈরি করছে৷ মির্জাপুর, রতেড়ি, আকবরপুর, খটাম্বা, মহুখেড়া, দত্তোর, খোখরিয়া, বোরখেড়া, সকতলি প্রভৃতি বিভিন্ন গ্রামের মহিলারা সক্রিয়ভাবে এই মাস্ক তৈরির কাজ করছেন৷ তাদের এই মাস্ক চিকিৎসালয়, গ্রাম পঞ্চায়েত, মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন প্রভৃতি বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করা হয়৷

জীবন শক্তি যোজনা ঘোষণা করার প্রথম ঘন্টায় ৩২৫ জন মহিলা নাম তালিকাভুক্ত করান বলে জানা যায় এবং প্রথমদিনেই এই সংখ্যা দাঁড়ায় ৪২০০-এ৷ রেজিস্ট্রেশন এখনও চলছে, এই প্রকল্পে দুই স্তরযুক্ত মাস্ক তৈরি করা হচ্ছে সুতির কাপড়ের দ্বারা৷ দুটি স্তর থাকায় এটি জীবাণু প্রতিহত করতে অন্যান্য সাধারণ মাস্কের থেকে বেশি প্রভাবশালী এবং এটি বাড়িতে সহজেই তৈরি করা সম্ভব৷ মধ্যপ্রদেশে সরকারের উদ্যোগে বহু মহিলাই সক্রিয়ভাবে এই কাজ করছেন৷

বর্ষা চ্যাটার্জ্জী

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters