জেনে নিন ভারতের প্রথম মহিলা গোয়েন্দা রজনী পণ্ডিতের অজানা কাহিনী ,হাজার হাজার জটিল মামলার সমাধান করেছেন এই গোয়েন্দা

Saikat Majumder
Saikat Majumder
রজনী পণ্ডিত/ ছবি ফেসবুক থেকে

ভারতের মহিলারা পুলিশ, বিমানবাহিনী, নৌবাহিনী এবং প্রতিরক্ষা বিভাগের সাথে সম্পর্কিত আরও অনেক ক্ষেত্রে কাজ করছেন। খাকি ইউনিফর্ম পরা নারীরা অপরাধীদের গ্রেপ্তার থেকে শুরু করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় কাজ করছে, একই সঙ্গে তারা দেশের সীমান্ত রক্ষায় ফাইটার প্লেন ওড়ানোর দায়িত্বও নিয়েছেন । কিন্তু ভারতে এমন এক নারী আছেন যিনি গুপ্তচরবৃত্তির ক্ষেত্রে জেমস বন্ডের চেয়ে কম কিছু নন ।  দেশের গুপ্তচরদের নাম নিলে প্রথমেই একজন মহিলা গুপ্তচরের কথা উল্লেখ করতে হয়। দেশের প্রথম নারী গোয়েন্দা রজনী পণ্ডিত। রজনী পন্ডিত ভারতের জেমস বন্ড নামেও পরিচিত। তার জীবনে অনেক প্রতিকূলতা ছিল কিন্তু রজনী পণ্ডিত সবার মুখোমুখি হয়েছিলেন এবং কখনও হাল ছাড়েননি। আসুন জেনে নিই রজনী পন্ডিত সম্পর্কে, কীভাবে একজন নারী হয়ে উঠলেন দেশের বিখ্যাত গোয়েন্দা।

রজনী পন্ডিত কে?

রজনী পণ্ডিত ছিলেন সাধারণ পরিবারের মেয়ের মতো। একটি সাধারণ পরিবারের মেয়ে, যে নিজের পায়ে দাঁড়াতে চেয়েছিল। তিনি যখন স্নাতকের প্রথম বর্ষে, এই ইচ্ছা পূরণের জন্য, তিনি একটি অফিসে কেরানির চাকরি নেন। চাকরির সময় নিজ অফিসের এক সহকর্মির বাড়িতে ডাকাতি হয়েছিল । মহিলা তার নতুন পুত্রবধূর উপর এই চুরির দোষ চাপিয়েছিলেন।

আরও পড়ুনঃ তেলেঙ্গানার প্রথম মহিলা মেকানিক একাই ট্রাকের টায়ার ঠিক করার কাজ করেন

এটি ছিল রজনীর প্রথম মামলা। মহিলা রজনীকে তার বাড়িতে চুরির তদন্ত করতে বলেন। রজনী চুরির তদন্ত শুরু করলে জানা যায়, চুরিটি মহিলার পুত্রবধূ নয়, ছেলেই করেছে। জিজ্ঞাসাবাদে ছেলে তার অপরাধ স্বীকার করেছে। রজনী যখন তার প্রথম মামলাটি সমাধান করেছিলেন, তখন তার বয়স ছিল ২২ বছর। 

গোয়েন্দা জীবনের শুরু  

রজনীর বাবা ছিলেন সি আই ডি অফিসার । রজনী তার বাবার থেকে গোয়েন্দাগিরি সম্পর্কে  জ্ঞান অর্জন করতে শুরু করেন । রজনী পণ্ডিত গুপ্তচরবৃত্তির মামলা সমাধানের তথ্য জনগণের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে লোকেরা তাদের মামলা তার কাছে নিয়ে আসত। এরপর রজনী বিখ্যাত হতে থাকে। তিনি ভারতের প্রথম মহিলা গুপ্তচর হিসাবে স্বীকৃত হন। কিন্তু তার বাবা এখন পর্যন্ত রজনীর গুপ্তচরবৃত্তির দক্ষতা সম্পর্কে অবগত ছিলেন না।

রজনীর জীবনের সবচেয়ে কঠিন কেস

একটি কেস রজনীর জন্য খুব কঠিন ছিল। শহরে এক বাবা ও তার ছেলেকে খুন করা হয়। হত্যাকারীর কোনো ক্লু পাওয়া যায়নি। রজনী এই মামলাটি পেয়ে খুনের খবর জানতে দাসীর ছদ্মবেশে ঘটনাস্থলে  পৌঁছায় । ছয় মাস গৃহপরিচারিকার কাজ করার পর সে  আসল খুনির কথা জানতে পারে। বাড়িতে উপস্থিত ওই নারী তার প্রেমিকাকে সঙ্গে নিয়ে বাবা-ছেলেকে হত্যা করেছে।

আরও পড়ুনঃ কল্পনা চাওলা কীভাবে মহাকাশে পৌঁছলেন? জেনে নিন ভারতীয় বংশোদ্ভূত প্রথম মহিলা মহাকাশচারী সম্পর্কে

রজনীর গোয়েন্দা সংস্থা

রজনী ১৯৯১ সালে তার নিজস্ব গোয়েন্দা সংস্থা খোলেন, যেটি একই ধরনের মামলার সমাধান করত। ছোট-বড় মিলিয়ে মোট ৮০ হাজারের বেশি মামলার নিষ্পত্তি করেছেন রজনী। তিনি বহু পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। একটি মামলা চলাকালে তাকেও পুলিশ গ্রেফতার করেছে। মামলাটি সমাধান করতে তিনি ভুলভাবে কল ডিটেইলস পেয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তবে রজনী তার আত্মপক্ষ সমর্থনে বলেছিলেন যে এটি তার গুপ্তচর হিসাবে কাজের অংশ ছিল। 

Published On: 24 March 2022, 05:15 PM English Summary: Find out the unknown story of Rajni Pandit, India's first female detective, who has solved thousands of complex cases

Like this article?

Hey! I am Saikat Majumder. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters