সমগ্র দেশ জুড়ে ঘূর্ণাবর্তের জেরে ভারী বৃষ্টিপাতের সতর্কতা (Heavy rainfall warning issued-IMD) জারি

Wednesday, 24 June 2020 02:09 PM

আবহাওয়া দফতরের প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, মধ্য পাকিস্তান থেকে রাজস্থান, উত্তরপ্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ, পাঞ্জাব থেকে বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত যে নিম্নচাপ অক্ষরেখা অবস্থান করছিল তার প্রভাবে উত্তর ওডিশায় সৃষ্ট হয়েছে ঘূর্ণাবর্ত। এই ঘূর্ণাবর্ত উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হবে বলে জানা গিয়েছে। এর প্রভাবেই পূর্ব দিক থেকে রাজ্যে প্রচুর জলীয়বাষ্প ঢুকছে। সারা সপ্তাহ জুড়েই উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গের আকাশ কখনও মেঘলা, কখনও হালকা কখনও ভারী বৃষ্টিপাত হয়েছে। তবে, অতি ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে।

আইএমডি জানিয়েছে যে, আবহাওয়া পরিস্থিতি অনুকূল হয়ে উঠছে, কারণ দক্ষিণ-পশ্চিম বর্ষা উত্তর আরব সাগরের অবশিষ্ট অংশ, কছের বেশিরভাগ অংশ, গুজরাট অঞ্চলের আরও কিছু অংশ, মধ্য প্রদেশ ও উত্তরপ্রদেশ এবং উত্তরাখণ্ডের কিছু অংশে উন্নীত হয়েছে। এই অবস্থার কারণে, ভারী থেকে অতি ভারী বিচ্ছিন্ন বৃষ্টিপাত আগামী ৫ দিনের মধ্যে উত্তর-পূর্ব এবং পার্শ্ববর্তী পূর্ব ভারতে অব্যাহত থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গে বৃষ্টিপাত (Heavy rainfall in West Bengal)-

আগামী ২৪-৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সক্রিয় মৌসুমী বায়ু এবং ঘূর্ণাবর্তের জেরে উত্তরবঙ্গের দার্জিলিং, কালিম্পং, জলপাইগুড়ি, শিলিগুড়ি এবং কোচবিহার এই পাঁচটি জেলায় ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টির সতর্কতা জারি করেছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। উত্তরের পাশাপাশি দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতেও রয়েছে বৃষ্টির পূর্বাভাস, তবে তা উত্তরের তুলনায় কম। উত্তরের জেলাগুলিতে কোথাও কোথাও ৭ থেকে ২০ সেন্টিমিটার পর্যন্ত বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনাও রয়েছে। দক্ষিণবঙ্গে ২৬ তারিখের পর বৃষ্টির পরিমাণ বাড়তে পারে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

অন্যান্য রাজ্য (Weather report - other state)–

গুজরাট, মধ্য প্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ, সমগ্র পশ্চিম হিমালয় অঞ্চল, হরিয়ানা, চণ্ডীগড় ও দিল্লি, পাঞ্জাবের বেশিরভাগ অংশ এবং রাজস্থানের কিছু অংশে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ুর অগ্রসরের কারণে পরিস্থিতি অনুকূল হয়ে উঠছে এবং সকাল থেকেই শুরু হয়েছে বৃষ্টিপাত। বিচ্ছিন্ন ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাত পরবর্তী ৪-৫ দিনের মধ্যে উত্তরাখণ্ড এবং উত্তর প্রদেশেও শুরু হতে চলেছে বলে স্কাইমেট জানিয়েছে। আজ এবং আগামীকাল পশ্চিম হিমালয় অঞ্চলের অবশিষ্ট অংশ এবং উত্তর-পশ্চিম ভারতের সমভূমিগুলিতেও বিচ্ছিন্ন ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

সর্বোচ্চ এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা -

বিগত ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টি হয়েছে প্রায় ৩৪ মিলিমিটার। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের থেকে ১ ডিগ্রি কম এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ রয়েছে ৭১ শতাংশ। ফলে কোথাও কোথাও হালকা বৃষ্টি হলেও, ভ্যাপসা গরম রয়েছে। আগামী কয়েক দিন এমনই আবহাওয়া থাকবে বলে আইএমডি জানিয়েছে। উত্তর অভ্যন্তর কর্ণাটকের অনেক জায়গায় সর্বাধিক তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে রয়েছে ৩ ডিগ্রি বেশী। পশ্চিম রাজস্থানের কয়েকটি স্থানে এবং জম্মু ও কাশ্মীর, লাদাখ, বালুচিস্তান ও মুজাফফারাবাদ জুড়ে বিচ্ছিন্ন জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস রয়েছে।

Related Article - একদিকে নিম্নচাপ, অন্যদিকে মৌসুমী বায়ুর প্রবেশ – দুয়ের মেলবন্ধনে ভারী বর্ষণ (IMD predicts heavy rainfall) উত্তরবঙ্গে

চলতি মরসুমে এইসব সবজি চাষে (Profitable Farming) হতে পারে প্রচুর মুনাফা

English Summary: Heavy rain warning issued for cyclone across the country

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.