Intercropping – অতিরিক্ত লাভের উদ্দেশ্যে একই জমিতে দুই ফসলের চাষ পদ্ধতি

স্বপ্নম সেন
স্বপ্নম সেন
Mixed Farming (Image Credit - Google)
Mixed Farming (Image Credit - Google)

বাগানে সাধারণত দুটি গাছের মধ্যে মোটামুটি ৩-১০ মিটার পর্যন্ত দূরত্ব বজায় রাখা হয়। এই ফাঁকা জায়গা ফেলে না রেখে কৃষক বন্ধুরা বাগানে সাথী ফসল হিসাবে নানা ধরনের স্বল্পমেয়াদী ফসল উৎপাদনের ব্যবস্থা করে যথেষ্ট লাভবান হতে পারেন।  

সুঁয়োযুক্ত ধান যেমন সুঁয়োকলমা, তুলাইপাঞ্জী ইত্যাদ ধান জমির চারপাশে লাগালে ধান কাটার সময় গরু ও ছাগলের উপদ্রব কমে। জমির চারপাশে তিল লাগালে গরু ও ছাগলের উপদ্রব কমে।

কীভাবে করবেন (How to do) -

গভীর জল যেখানে জমে না এবং যেখানে জল নিয়ন্ত্রণ করা যাবে সেখানে ১২-১৫ দিনের ধান চারা এক কলি (একটি চারা) করে ১০ ইঞ্চি * ১০ ইঞ্চি দূরত্বে লাগালে বীজের খরচ বাচে এবং ফলন ভালো হয়। বহু দেশী ধানের ফলন যথেষ্ট ভালো এবং সুগন্ধি ধানের ফলন কম হলেও চাহিদা বেশী, দামও ভালো পাওয়া যায়। ধান মাছ ব্যবস্থাপনায় কৃষকের লাভ হয়। সেই ভাবে দেশী মুড়ির চাল, সরু ধানের চাষে খরচ কম হয়।

দক্ষিন ২৪ পরগনায় আলে ঢ্যাড়শ + শীম (সামান্য দেরীতে লাগিয়ে আগা ছেটে রাখা হয় যাতে ঢ্যাড়শ গাছের ক্ষতি না হয়। কয়েক মাস পর থেকে শীমের বৃদ্ধি হতে থাকে, ছাটা হয় না। ঢ্যাঁড়শ উঠে যাওয়ার পর শীমে ফুল আসার সময় হয়। একই পরিচর্যায় দুটি ফসল হল।

বাঁধাকপির চারিদিকে বা আট লাইন অন্তর অন্তর সরিষা দু লাইন করে লাগাতে হবে। বাঁধাকপি লাগানোর ১৫ দিন আগে। জাব পোকা , করাত মাছি হীরকপৃষ্ঠ মথ সবার আগে সরিষাতে আক্রমণ করবে এবং মূল ফসল বাঁধাকপি রক্ষা পাবে।

টমাটোর সাদা মাছি ঠেকাতে চারিদিকে শশা লাগানো হয়। ফসলের চারিদিকে তুলসি, চাকুন্দে, আকন্দ, বাসক, ভাট ইত্যাদি থাকলে পোকা বিতারকের কাজ করে। এই রকম প্রমানিত বহু সাথী ফসলের উদাহরণ আছে। সব জমিতে একই ফসল প্রযোজ্য হবে তা নয়, পরিবেশ ও পরিস্থিতি আনুযায়ী করতে হবে।

জলমগ্ন ধানের জমিতে রাসায়নিক সার ও কৃষিবিষ না ঢুকলে সহজেই মাছ জন্মায়। আগে সাড়ে চার মাস সময়ে এক বিঘা ধান জমি থেকে প্রায় ৩০-৪০ কেজি মাছ পাওয়া যেত। ধানের সঙ্গে সহজ লভ্য প্রোটিন হিসাবে মাছটাও সহজে মিলে যেত, ধানের ফলন কম হলেও পুষিয়ে যেত। সেই অবস্থা আবার ফিরিয়ে আনা সম্ভব। এখন কম করে এক বিঘা জমিতে ২০ কেজি মাছ হলে, ৬০ টাকা কেজি হিসাবে ১২০০ টাকা আর্থিক মূল্য হয় যা শুধু ধান চাষ করে পাওয়া যায় না। শস্য পর্যায় অনুসরণ করতে হবে যাতে একই জমিতে একই রকম ফসল বারবার না চাষ করা হয়।

বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া মাটিকে রোদ খাওয়ানোর প্রয়োজন নেই। মাটির রস সংরক্ষণ বড় কথা। গ্রীষ্মকালে জমিতে আচ্ছাদন ফসলের যেমন মুগের চাষ করা। এই সময় রাসায়নিক কৃষির মত গভীর চাষ করতে হবে না। এতে মাটির রস উঠে যাবে।

জমির আগাছা সম্পূর্ণ নির্মূল না করা, কিছু আগাছা রেখে দিতে হবে, এগুলিই শত্রু ও বন্ধু পোকার আশ্রয়স্থল। বছরের কোন না কোন সময়ে অবশ্যই ডাল শস্য চাষ করতে হবে, এতে জমির উর্বরতা বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া মাচায় চাষ ও সুসমন্বিত চাষ ব্যবস্থার ওপর জোর দিতে হবে।

আরও পড়ুন - Low Cost Cultivation - স্বল্প খরচে আধুনিক পদ্ধতিতে চাষ করে আয় করুন দ্বিগুণ মুনাফা

Like this article?

Hey! I am স্বপ্নম সেন . Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters