হলুদ চাষে উন্নত ফলনের জন্য রোগ পোকার প্রতিকার (Turmeric Cultivation)

KJ Staff
KJ Staff
Turmeric (Image Credit - Google)
Turmeric (Image Credit - Google)

হলুদ একটি অর্থকরী ফসল। সাথী ফসল রূপে চাষ করে এর থেকে কৃষক ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারেন। বর্তমানে বাজার মূল্য শুকনো প্রতিকেজি ২০০ থেকে ২২০ টাকা এবং কাঁচা হলুদ প্রতি মণ ৪৮০ থেকে ৫২০ টাকা। ফলে বর্তমানে দাম অনুযায়ী প্রতি কাটাতে লাভ থাকে ৩ হাজার থেকে ৪ হাজার টাকা। যা অন্য কোনো কৃষিপণ্যে সম্ভব নয়। উৎকৃষ্ট মানের হলুদ চাষ করে আগামীদিনে চাষীরা আরো বেশী পরিমাণে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

সব ধরণের মাটিতে চাষ করা গেলেও উর্বর দো-আঁশ বা বেলে দো-আঁশ মাটি হলুদের জন্য ভালো। যে কোন ফলের বাগানের শুরুতে সাথী ফসল হিসাবে হলুদ চাষ লাভজনক। সম্পূর্ণ ছায়াযুক্ত ফলের বাগানে চাষ না করে অর্ধেক ছায়া অর্ধেক আলো যুক্ত জায়গায় হলুদ চাষ করলে ফলন ভালো পাওয়া যাবে।

পোকমাকড় ব্যবস্থাপনা (Pest Mangement) - 

১) ডগা ছিদ্রকারী পোকা -

ভূমিকা : কান্ড আক্রমণ করে বলে গাছের বৃদ্ধি ব্যহত হয়। ফলে উৎপাদন কম হয়।

পোকা চেনার উপায় :

এ পোকার মথ (মা) কমলা হলুদ রংয়ের এবং পাখার উপর কালো বর্ণের ফোটা থাকে। কীড়া হালকা বাদামী বর্ণের। গায়ে সুক্ষ্ণ শুং থাকে।

ক্ষতির নমুনা :

পোকা কান্ড ছিদ্র করে ভিতরের দিকে খায় বলে পাতা হলুদ হয়ে যায়। নেক সময় ডেড হার্ট লঙ্গন দেখা যায়। আক্রান্ততা কান্ডে ছিদ্র ও কীড়ার মল দেখা যায়।

অনুকুল পরিবেশ : আদ্র আবহাওয়া। 

জীবন চক্র : স্ত্রী মথ পাতা বা গাছের নরম অংশে ডিম পাড়ে। ৭ দিনে ডিম থেকে কীড়া বের হয় এবং ২-৩ সপ্তাহ কীড়া অবস্থায় থাকে। পুত্তলি ধাপ সম্পন্ন করতে ১ সপ্তাহ লাগে। এরা বছরে ৩ বার বংশ বিস্তার করে।

ব্যবস্থাপনা :

আক্রান্ত ডগা তুলে ফেলা ও সম্ভব হলে পোকার কীড়া ধরে মেরা ফেলা। প্রতি লিটার জলে ৪ মি.গ্রা. হারে বিটি মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে। অধিক আক্রমণে অনুমোদিত কীটনাশক প্রয়োগ করতে হবে।

২) রাইজোম স্কেল পোকা -

ভূমিকা : এ পোকা রাইজোম (হলুদ) আক্রমণ করে বলে ক্ষেতের আইল থেকে সহজে বুঝা যায় না। ফলে প্রভূত ক্ষতি সাধিত হয়।

পোকা চেনার উপায় :

পূর্ণাঙ্গ স্কেল পোকা উজ্জল হলুদ বর্ণের এবং শরীর গোলাকার । এদের শরীর মোমের মত স্কেল দ্ধারা  আবৃত থাকে।

ক্ষতির নমুনা :

ফসলের শেষ পর্যায়ে রাইজোম এ পোকার আক্রমণ দেখা যায়। পূর্নাঙ্গ ও নিম্ফ পোকা রাইজোমের রস চুষে খায় বলে রাইজোম আকারে ছোট হয়। রাইজোম কুঁচকে যায় ও অঙ্কুরোদগম ক্ষমতা কমে যায়। আক্রান্ত রাইজোম গুদামে রাখলে সেখানে পচন ধরতে পারে।
অনুকুল পরিবেশ : আর্দ্র আবহাওয়া।

জীবন চক্র : স্ত্রী পোকা রাইজোমের উপর হলুদ রংয়ের ডিম পাড়ে। ৭-৮ দিনে ডিম থেকে নিম্ফ (বাচ্চা) বের হয়। ২৪ দিন পর নিম্ফ পূর্ণাঙ্গে পরিণত হয়।  এদের জীবনচক্র সম্পন্ন করতে ৩১-৩৫ দিন সময় লাগে।  বছরে এরা ১০ বার বংশ বিস্তার করে।

ব্যবস্থাপনা :

জুলাই- আগস্ট মাসে আক্রান্ত রাইজোম তুলে ধ্বংশ করতে হবে। স্কেল আক্রান্ত রাইজোম বাদ দিয়ে গুদামজাত করতে হবে। মাঠে আক্রমণ দেখা দিলে ও গুদামে রাখার পূর্বে অনুমোদিত কীটনাশক প্রয়োগ করতে হবে।

আরও পড়ুন - রন্ধনশালা থেকে রূপচর্চা, ভেষজ চিকিৎসাতেও গুরুত্বপূর্ণ হলুদের ব্যবহার (Turmeric Uses & Health Benefits)

৩) বিছা পোকা - 

ভূমিকা : এ পোকার কীড়া ছোট অবস্থায় একত্রে থাকে ও বড় হলে পুরো মাঠে ছড়িয়ে পড়ে বিধায় প্রাথমিক অবস্থায় এদের দমন করা উচিৎ।

পোকা চেনার উপায় :

এটি মথ জাতীয় পোকা এবং কীড়ার শরীর লোমে ঢাকা থাকে। কীড়াগুলো ক্ষতিকারক।

ক্ষতির নমুনা :

এ পোকার আক্রমণ মাঝে মাঝে দেখা যায়। কীড়া পাতা ও গাছের নরম অংশ খায়।  আক্রমণের মাত্রা বেশী হলে পুরো গাছ পাতাবিহীন হয়।

অনুকূল পরিবেশ :  বিকল্প পোষক।

জীবন চক্র : স্ত্রী মথ ৪১২-১২৪১ টি ডিম পাড়ে। ৮-১৬ দিনে ডিম হতে কীড়া বের হয়। কীড়া ছোট অবস্থায় দলবদ্ধ থাকে কিন্তু বড় হলে পুরো মাঠে ছড়িয়ে পড়ে। কীড়া অবস্থায়  ৪ সপ্তাহ থাকার পর পুত্তলিতে পরিণত হয়। ১-২ সপ্তাহ পুত্তলি অবস্থা কাটানোর পর পূর্ণাঙ্গ মথ বেরিয়ে আসে, মথ-এর জীব্বদশা ১ সপ্তাহকাল।

ব্যবস্থাপনা :

আলোর ফাঁদ দিয়ে মথ আকৃষ্ট করে মারা। কীড়া দলবদ্ধ থাকা কালীন সংগ্রহ করে হাত দিয়ে পিষে মারা। ক্ষেতের মাঝে কঞ্চি পুঁতে পাখি বসার ব্যবস্থা করলে মথ, কীড়া ইত্যাদি ধরে খায়। শিকারী গান্ধী ও পরজীবী পোকা সংরক্ষণ। আক্রান্ত  ক্ষেতের  চারিদিকে নালা করে কেরোসিন মিশ্রিত জল রাখলে কীড়া ঐ জলে পড়ে মারা যায়। সময়মত আগাছা ও মরা পাতা পরিষ্কার করতে হবে। অনুমোদিত কীটনাশক নির্ধারিত মাত্রায় ব্যবহার করতে হবে।

৪) থ্রিপস -

ভূমিকা : এ পোকা ছোট কিন্তু' পাতার রস চুষে খায় বিধায় গাছ দূর্বল হয়ে পড়ে। সে কারণে ক্ষেতের মধ্যে পাতা বিবর্ণ দেখালে কাছে গিয়ে মনোযোগ সহকারে দেখা উচিৎ, তা না হলে ফলন অনেক কমে যাবে।

পোকা চেনার উপায় :

আকৃতিতে খুব ছোট, স্ত্রী পোকা সরু, হলুদাভ বর্ণের, পূর্ণ বয়স্ক পুরুষ গাঢ় বাদামী বর্ণের। বাচ্চা সাদা বা হলুদ, এদের পিঠের উপর লম্বা দাগ থাকে।

ক্ষতির নমুনা :

এরা রস চুষে খায় বলে আক্রান্ত পাতা রূপালী রং ধারণ করে। আক্রান্ত পাতায় বাদামী দাগ বা ফোঁটা দেখা যায়। অধিক আক্রমণে পাতা শুকিয়ে যায় ও ঢলে পড়ে। রাইজোম আকারে ছোট ও বিকৃত হয়।

অনুকুল পরিবেশ :  বিকল্প পোষক।

জীবন চক্র : স্ত্রী পোকা পাতার কোষের মধ্যে ৪৫-৫০ টি ডিম পাড়ে।
৫-১০ দিনে ডিম হতে নিম্ফ (বাচ্চা) বের হয়। নিম্ফ ১৫-৩০ দিনে দুটি ধাপ অতিক্রম করে। প্রথম ধাপে খাদ্য গ্রহণ করে এবং দ্বিতীয় ধাপে খাদ্য গ্রহণ না করে মাটিতে থাকে। এরা বছরে ৮ বার বংশ বিস্তার করে এবং স্ত্রী পোকা পুরুষ পোকার সাথে মিলন ছাড়াই বাচ্চা দিতে সক্ষম।

ব্যবস্থাপনা : 

সাদা রংয়ের আঠালো ফাঁদ ব্যবহার। ক্ষেতের মাকড়সার সংখ্যা বৃদ্ধি করে এ পোকা দমন করা যায়। অনুমোদিত কীটনাশক নির্ধারিত মাত্রায় প্রয়োগ করতে হবে।

ফসল সংগ্রহঃ 

সাধারণতঃ লাগানোর ৯-১০ মাস পর পাতা শুকিয়ে গেলে হলুদ সংগ্রহ করা হয়। প্রতি হেক্টরে ২৫-৩০ টন কাঁচা হলুদ পাওয়া যায়।

আরও পড়ুন - কোন ট্র্যাক্টর কৃষিকাজে সবচেয়ে ভালো ? ট্র্যাক্টর প্রস্তুতকারক শীর্ষ সাতটি সংস্থা সম্পর্কে (Best Tractor For Farmers)

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters