Tinda Farming: জেনে নিন টিন্ডা চাষ পদ্ধতি

রায়না ঘোষ
রায়না ঘোষ
Tinda tree (image credit- Google)
Tinda tree (image credit- Google)

ভারতীয় স্কোয়াসের প্রচলিত নাম টিন্ডা, ইংরেজিতে যাকে বলে Apple Squash. এটি সুস্বাদু এবং এর তরকারি স্বাস্থ্যকরও৷ এতে রয়েছে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটারি উপাদান যা পেটের নানা সমস্যা সমাধানে সাহায্য করে৷ তাই এর চাহিদাও প্রচুর৷ চলতি মরসুমে এর চাষ আপনাকে লাভের মুখ দেখাতে পারে৷ ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিলে এর চাষ করা হয়, তবে আপনি জুলাই মাসেও এর চাষ করতে পারেন৷ জলধারণক্ষমতাযুক্ত দোআঁশ মাটি এই চাষের জন্য উপযুক্ত৷ গরম-আর্দ্র জলবায়ুতে এর ফলন ভালো হয়৷ বিশেষজ্ঞদের মতে, ১  বিঘা জমিতে প্রায় দেড় কিলোগ্রাম বীজ বপন করা যেতে পারে৷

জাত:

টিন্ডা এস ৪৮, হিসাপ সলেক্সন ১, বিকানেরি গ্রীন, অর্কা টিন্ডা প্রভৃতি৷

মাটি(Soil):

বেলে দো-আঁশযুক্ত মাটি ও ভাল জলাবদ্ধ জমি এই ফসলের জন্য উপযুক্ত | মাটির পিএইচ মান

৬.৫-৭.৫ এর মধ্যে থাকতে হবে |

জলবায়ু(Climate):

স্কোয়াশ চাষের জন্য উষ্ণ, প্রচুর সূর্যালোক এবং নিন্ম আর্দ্রতা প্রয়োজনীয়। চাষকালীন অনুকূল তাপমাত্রা হলো ২০-২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। চাষকালীন উচ্চতাপমাত্রা ও লম্বা দিন হলে পুরুষ ফুলের সংখ্যা বেড়ে যায় এবং স্ত্রী ফুলের সংখ্যা কমে যায়।

আরও পড়ুন - Groundnut Farming: অর্থকরী ফসল চীনাবাদাম চাষের সহজ পদ্ধতি

চারা উৎপাদন:

শীতকালে চাষের জন্য অক্টোবর-ডিসেম্বর মাসে বীজ বপন করা যায়।  বীজ বপনের জন্য ৮ – ১০ সেমি. বা তার থেকে কিছুটা বড় আকারের পলিব্যাগ ব্যবহার করা হয়। প্রথমে অর্ধেক মাটি ও অর্ধেক গোবর মিশিয়ে মাটি তৈরি করে পলিব্যাগে ভরতে হবে। সহজ অঙ্কুরোদগমের জন্য পরিষ্কার জলে  ১৫-২০ ঘণ্টা অথবা শতকরা এক ভাগ পটাশিয়াম নাইট্রেট দ্রবণে বীজ এক রাত ভিজিয়ে অতঃপর পলিব্যাগে বপন করতে হবে। প্রতি ব্যাগে দুটি করে বীজ বপন করতে হবে। বীজের আকারের দ্বিগুণ মাটির গভীরে বীজ পুঁতে দিতে হবে। বীজ সরাসরি মাদায়ও বপন করা হয়। সেক্ষেত্রে সার প্রয়োগ ও মাদা তৈরির ৪-৫ দিন পর প্রতি মাদায় ২-৩টি করে বীজ বপন করা যেতে পারে। চারা গজানোর ১০-১২ দিন পর ১টি সুস্থ ও সবল চার রেখে বাকিগুলো উঠিয়ে ফেলতে হবে। চারার বয়স ১৬-১৭ দিন হলে তা মাঠে প্রস্তুত মাদায় লাগাতে হবে।

বেড তৈরির নিয়ম:

বেডের উচচতা ১৫-২০ সেমি. ও প্রস্থ ১-১.২৫ মি. থাকতে হবে | এবং লম্বা জমির দৈর্ঘ্য অনুসারে সুবিধামতো নিতে হবে। এভাবে পরপর বেড তৈরি করতে হবে। পাশাপাশি দুইটি বেডের মাঝখানে ৭০ সেমি. প্রশস্ত সেচ ও নিকাশ নালা থাকবে।

রোপণ(Plantation):

বীজ গজানোর পর ১৬-১৭ দিন বয়সের চারা জমিতে লাগানো উচিত। মাঠে প্রস্তুত মাদাগুলোর মাটি ভালোভাবে ওলটপালট করে এক কোপ দিয়ে চারা লাগানোর জন্য জায়গা করে নিতে হবে। অতঃপর পলিব্যাগের ভাঁজ বরাবর পলিব্যাগ সরিয়ে মাটির দলাসহ চারাটি ওই জায়গায় লাগিয়ে চারপাশে মাটি দিয়ে ভরাট করে দিতে হবে। চারা লাগানোর পর গর্তে জল দিতে হবে।

সার প্রয়োগ(Fertilizer):

স্কোয়াশের ভালো ফলন পেতে মাটিতে প্রয়োজনীয় সার প্রয়োগ করতে হবে | সমস্ত গোবর সার, ফসফরাস সার ও পটাশ সারের ৩ ভাগের দুইভাগ শেষ জমি প্রস্তুতের সময় জমিতে মিশিয়ে দিতে হবে। অবশিষ্ট এক ভাগ পটাশ সার বীজ বপনের ৩০ দিন পর প্রয়োগ করতে হবে। তবে নাইট্রোজেন সার তিনটি সমান ভাগে বীজ বপনের ২৫, ৪০ ও ৬০ দিন পর উপরিপ্রয়োগ করতে হবে।

সেচ:

স্কোয়াশ চাষের জন্য সেচ অতন্ত্য প্রয়োজনীয় | সেচ নালা দিয়ে প্রয়োজন অনুসারে নিয়মিত সেচ দিতে হবে। জমিতে কখনও সব জমি ভেজানো বা প্লাবন সেচ দেয়া যাবে না। শুষ্ক মৌসুমে ৫-৭ দিন অন্তর সেচ দেওয়ার প্রয়োজন পড়ে। প্রত্যেক সেচের পর হালকা খড়ের মালচিং করে গাছের গোড়ার মাটির চটা ভেঙে দিতে হবে। এছাড়া, জমি সবসময় আগাছামুক্ত  রাখতে হবে | কারণ, আগাছা জমির অর্ধেক রস শোষণ করে নেয় |

রোগ ও প্রতিকার(Disease management system):

ফলে মাছি পোকার আক্রমণ হতে পারে। এটি থেকে ফসলকে রক্ষা করার জন্য ফেরোমন ফাঁদ এবং পরাগায়নের পর ফ্রুট ব্যাগ ব্যবহার করে মাছি পোকা দমন করা যায়। এ ছাড়াও ইমিডাক্লোপ্রিড গ্রুপের কীটনাশক নির্দেশিত মাত্রায় ১০-১২ দিন পরপর ব্যবহার করে এই পোকার আক্রমণ কমানো যায়।

ফসল সংগ্রহ:

পরাগায়নের ১০-১৫ দিনের মধ্যে ফল সংগ্রহ করতে হবে। তখনও ফলে সবুজ রঙ থাকবে এবং ফল মসৃণ ও উজ্জ্বল দেখাবে। এই ফলের বাজার মূল্য বেশি হওয়ায় কৃষকরা এই ফল চাষে লাভ করতে পারেন |

আরও পড়ুন - Ginger Farming: আদা চাষে লাভ পেতে চাষ করুন এই পদ্ধতিতে

Like this article?

Hey! I am রায়না ঘোষ . Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters