মৌমাছি পালন : সমস্যা ও সম্ভাবনা

Friday, 01 March 2019 03:23 PM

সারা দেশেই মৌমাছি পালনে এখন গুরুত্ব আরোপ করা হচ্ছে। সরকার মিষ্টি বিপ্লবের আহ্বান দিয়ে, আমাদের দেশে ফুলে ফুলে যে নেক্টার উৎপন্ন হয় তার সুচারু ব্যবহারের প্রস্তাব রেখেছেন।

নেক্টারের সুচারু ব্যবহার আসলে কি?

সপুস্পক উদ্ভিদে ফুল থেকে পুষ্পরস বা নেক্টার নিঃসরণ একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। পরাগমিলনকারী পতঙ্গকে আকর্ষণ করতেই মূলতঃ এই মিষ্টিরস ব্যবহৃত হয়। আমাদের দেখা জীব বৈচিত্রে সমৃদ্ধ। ফলতঃ পুষ্প বৈচিত্রও বিপুল। এই ফুলগুলি থেকে যে নেক্টার উৎপন্ন  হয় তার ২৫% ও ব্যবহৃত হয় না, দিনের শেষে শুকিয়ে যায়। এই নেকটারের একটা বড় অংশ যদি মৌমাছি পালনের বৃদ্ধি ঘটিয়ে আমরা সংগ্রহ করতে পারি , দেশে মধু উৎপাদনে বিপুল অগ্রগতি ঘটতে পারে। শুধু তাই না এই উদ্যোগ সফল করতে পারলে পরাগ মিলনের উন্নতি ঘটিয়ে, দেশের কৃষি উৎপাদনেও বিপুল অগ্রগতি ঘটানো সম্ভব। পরাগমিলনে অন্যান্য পতঙ্গের তুলনায় মৌমাছি বেশী দক্ষ। কারণ মৌমাছি শুধু নিজের প্রয়োজন মেটাতে নেকটার সংগ্রহ করে না, চাহিদার চেয়ে অতিরিক্ত সংগ্রহ করে, মধু রূপে মৌচাকে জমা করে অসময়ের জন্য বা সন্তান সন্ততির জন্য। ফলে অন্যান্য কীটপতঙ্গের তুলনায় মৌমাছি ফুলে ফুলে ওড়াউড়ি বেশী করে। ফলে পরাগ মিলনে ও সাহা্য্য বেশী হয়।

মৌমাছির বৈচিত্র: পৃথিবীতে এখনও পর্য্যন্ত ২০,০০০ মত প্রজাতির মৌমাছি চিহ্নিত করা গেছে। তার মধ্যে ৭৮৫টি শস্য ক্ষেত্রে পাওয়া যায়। বাক্স বন্দী করে যে মৌমাছিগুলি পালন করা হয় তা মূলতঃ তিন প্রজাতির।

১. এপিস মেলিফেরা বা ইউরোপিয়ান মৌমাছি:  এই মৌমাছির মধু উৎপাদন ক্ষমতা অনেক বেশী, বছরে বাক্স  প্রতি প্রায় ৪০ কেজি। উৎপাদন ও পরিচর্যা ব্যায় অনেক বেশী। নেকটার সমৃদ্ধ ফুলের লভ্যতার ওপর নির্ভর করে মৌমাছি স্থানান্তর করে এই মৌমাছির চাষ করতে হয়।

২. এপিস সেরানা ইন্ডিকা: এশিয়াঞ্চলের মৌমাছি এদের মধু উৎপাদন ক্ষমতা অনেক কম। বাক্স প্রতি বছরে প্রায় ৪ কেজি। কিন্তু বাক্স স্থানান্তর না করেই এই মৌমাছি চাষ করা যায়। উৎপাদন ব্যয়ও অনেক কম।

৩. হুল বিহীন মাছি: এরা এপিস গণ ভুক্ত নয়। সামান্য পরিমানে মধু সংগ্রহ করে। গাছের কোটরে বা বাড়ি ঘর দোরের ফাটলের মধ্যে এরা চাক বাঁধে। এদেরও বাক্স বন্দী করে চাষ করা যায়। মধু উৎপাদনের চাইতে আচ্ছাদনের চাষ (protected cultivation) –এ ফসলের পরাগ মিলনে এই মাছি অনেক বেশী কার্যকরী।

এছাড়া বাক্সবন্দী করা যায় না এমন অনেক মৌমাছি ও রয়েছে। বড় গাছে মস্ত মস্ত চাক বেঁধে থাকে সাধারণত: এপিস ডরসাটা। এরা ডাশ মাছি। আর অপেক্ষাকৃত অনেক ছোট ছোট মাছি হল এপিস ফ্লোরেয়া।

মৌমাছির খাদ্য:

(ক) নেকটার ও মধু: মৌমাছির খাদ্য হিসেবে নেকটারের কথা তো উল্লেখ করেছি। এই নেকটার অপেক্ষাকৃত তরল মিষ্টি রস। এই রসকে মধুতে রূপান্তরিত করে মৌমাছি – যা অপেক্ষাকৃত ভাবে অনেক ঘন। মধুতে জলীয় অংশ থাকে ২০% এর মধ্যে। মৌপ্রকোষ্ঠে জমা করার সময়, মৌমাছি যদি বোঝে, মধুতে জলের অংশ বেশী আছে, তবে ডানা ঝাপটে ঝপটে তারা জলীয় অংশ কমায় ও মৌপ্রকোষ্ঠটিতে capping বা ঢাকনা দিয়ে দেয়। এই হচ্ছে পরিপক্ক মধু বা matured honey – যা সহজে নষ্ট হয় না।

(খ) পোলেন বা পরাগরেণু: নেকটার থেকে মৌমাছির প্রোটিনের চাহিদা মেটে না। সেটা মেটে পরাগরেণু বা পোলেন থেকে। মৌমাছির গায়ের লোমে আটকে থাকা পোলেন যেমন পরাগমিলনের কাজে লাগে, তেমনি কিছু পোলেন জিভ দিয়ে ভিজিয়ে জড়ো করে পেলনের পা জোড়ায় থাকা কোটরে বা পোলেন বা স্কেটে জমা করে ও মৌচাকে গিয়ে জমা করে। এই পোলেনগুলো মধুতে ভিজিয়ে নিয়ে চাকের মধ্যে নির্দিষ্ট প্রকোষ্ঠে জমা করে। এদের বলে পরাগরুটি বা পোলেন ব্রেড। মৌমাছির শাবকের জন্মের কয়েকদিন পর থেকেই এদের পরাগরুটি খেতে দেওয়া হয়।

(গ) রয়াল জেলি: মৌমাছির সমাজের ক্রম ও শ্রেণীবিন্যাস সম্পর্কে কমবেশী আমরা সবাই অবহিত। এই সমাজ মূলতঃ রাণী কেন্দ্রীক। রাণীর কাজ শুধুই ডিম পাড়ার পরদু তিন দিনের মধ্যেই শাবকেরা বেরিয়ে আসে। সন্তান প্রসবের পর স্তন্যপায়ী প্রানীদের মা যেমন সন্তানকে বুকের দুধ পান করায়, এ মৌমাছির ক্ষেত্রে শ্রমিকেরা (যারা ধাত্রী মাছির কাজ করে) সে দায়িত্ব পালন করে। তাদের হাইপোফ্যারিঞ্জিয়াল গ্রন্থী থেকে এক ধরণের জেলি জাতীয় পদার্থ নিঃসৃত হয়। সেই জেলি তারা সন্তান প্রকোষ্ঠগুলিতে খাদ্য হিসেবে ফেলে রাখে। জন্মের পর প্রথম দু/ তিন দিন সবার জন্যই এই খাদ্য বরাদ্দ থাকে। তারপর শাবকদের জন্য বরাদ্দ হয় পরাগরুটি। কেবলমাত্র যে শাবক হবে ভবিষ্যতের রাণী, তার জন্য সারাজীবন ব্যাপী বরাদ্দ এই রয়াল জেলি। নানা ধরনের মিনারেল, ভিটামিন, প্রোটিন সমৃদ্ধ এই খাদ্য। কিন্তু অধুনা বিজ্ঞানীদের নজরে এসেছে, আসলে পোলেন ও মধু না খাইয়েই রাণী তৈরী করা হয়। রয়াল জেলির গুণে শাবক ভবিষ্যতের রাণী হয় না, এটা আসলে জিন নিয়ন্ত্রিত একটি পদ্ধতি। বিষয়টি অবশ্য এখনো বিতর্কের উর্ধে নয়।

আজকাল এই রয়াল জেলিও বাজারজাত করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। মহার্ঘ খাদ্য হিসেবেই, পৃথিবীব্যাপী এখন এর চাহিদা।

আর কি উৎপন্ন করে মৌমাছি?

১. মোমচাক বাঁধার জন্য মৌমাছি নির্দিষ্ট গ্রন্থী থেকে মোম বা wax উৎপন্ন করে। চাক ভাঙ্গার পর সেই মোম ও নিষ্কাশন করে বাজারে বিক্রী করা যায়। মৌপালকেরা এই ভাবে উৎপাদিত মোম সব সময় বাজারে বিক্রী না করে নতুন মৌমাছির ফ্রেম তীরী করার জন্য ব্যবহার করে। ফলে, নতুন কলোনী বা কেস স্থাপন করার সময়, মৌমাছিকেমোম উৎপাদনের জন্য বাড়তি সময় ও শক্তি ব্যবহার করতে হয় না। মধু উৎপাদনেও এর ফলে সহজ হয়।

২. মৌ-বিষ: মৌমাছি সন্ত্রস্ত বোধ করলে শত্রুকে আক্রমণের জন্য হুল ব্যবহার করে। এই হুল ফুটিয়ে শত্রুর শরীরে বিষথলি থেকে তারা বিষ ফেলে দেয়। অবশ্য ফোটানোর পর এই হুল তারা বের করতে পারে না, হুল ওপর থাকা এক ধরণের কন্টক সজ্জার জন্য। শরীরের একটা অংশ ছিঁড়ে তাকে মুক্ত হতে হয় এবং সে মারা যায়।

এই মৌ বিষ খুব সহজেই আমরা নিষ্কাশন করে বাজারজাত করতে পারি। ওষধিশিল্পে এর চাহিদা প্রচুর। মৌ বিষের অ্যান্টি কোয়াগুলেন্ট বৈশিষ্ট্য থাকায় তা মানুষের চিকিৎসাতে ও ব্যবহার করা হয়।

৩. প্রোপালিন: গাছের বিভিন্ন অংশ থেকে নিঃসৃত আঠা মৌমাছি সংগ্রহ করে লালা ও মোমের সাথে মেশায়। এই মিশ্রণ তারা মৌমাছির বাক্সের ফাটল, ফাঁক ফোকরে সংগ্রহ করে ফাটল বন্ধ করার জন্য ব্যবহার করে।

সারা পৃথিবীতেই পরাগ মিলনকারী পোকা ও বিশেষ করে মৌমাছির সংখ্যা কমছে। এটা শুধু মধু উৎপাদন নয়, শস্য উৎপাদনেরও ভয়ঙ্কর ক্ষতি করছে। বলা যায় এভাবে চললে স্বপুষ্পক উদ্ভিদের অস্তিত্বই বিপদাপন্ন হবে। মূলতঃ কৃষিতে রাসায়নিকের ব্যবহার, কীটনাশক বিশেষতঃ নিওনি কটিনয়েডসের ব্যবহার, কৃষিজমিতে বিপুল পরিমানে আগাছানাশকের ব্যবহার , জঙ্গল কমে আসা ও নগরায়নের ব্যাপ্তী পৃথিবী ব্যাপী এক জাতীয় পতঙ্গের সংখ্যা হ্রাসের কারণ হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে।

মৌপালনে বঙ্গের অবস্থা: বিশেষ দক্ষতা ছাড়া মৌপালন সম্ভব নয় । ইউরোপিয়ান মৌমাছি চাষ করতে হলে তো, যেখানে নেকটার সমৃদ্ধ ফুলের ব্যাপ্তি রয়েছে, সেখানেই মৌমাছির বাক্স নিয়ে মৌপালককে জমা করে রাখতে হবে। বিপুল শ্রমসাধ্য এবং ব্যায় বহুল এই চাষ। কিন্তু এই চাষে মৌপালকের নিজস্ব জমি না থাকলেও চলে। মৌপালনের মাধ্যমে কৃষি উৎপাদনে পরাগমিলন পরিষেবাও হয়।

অথচ দরিদ্র মৌপালক উৎপাদিত মধুর যথাযথ দাম পান না। মৌমাছির বাক্স জমির ধারে বসাতে মৌপালককে বাধা দেওয়া হয়। মৌমাছির বাক্স নিয়ে মূলতরাত্রেই যাতায়াত করতে হয়। এই সময় তাদের নানা হয়রানির স্বীকার হতে হয়। এই সমস্যাগুলির নিয়ন্ত্রণে, মৌপালকদের সমবায় গঠন , ‘হানি হাব’ তৈরীর মাধ্যমে মৌপালকদের ঋণদান, মধু প্রক্রিয়াকরণ ও বাজারজাত করণে সহায়তা দেওয়া প্রয়োজন। প্রয়োজন আরো আধুনিক বিজ্ঞান সম্মত প্রশিক্ষণ। যথাযথ ভাবে তা করতে পারলে মৌমাছিপালনে সাফল্য আসা সম্ভব। দেশের মধু উৎপাদনে বিপুল বৃদ্ধি ঘটানো ও পরাগমিলনে উন্নতি ঘটিয়ে শষ্য উৎপাদনেও বিপুল অগ্রগতি সম্ভব।

প্রফেসর শান্তনু ঝা

ড: শান্তনু ঝা ৩২ বছর ধরে কৃষি শিক্ষা ও গবেষণার কাজে যুক্ত,

বর্তমানে বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ব বিদ্যালয়ে কৃষি কীটতত্ব বিভাগের প্রধান।

 সর্বভারতীয় সমন্বিত মৌমাছি ও পরাগমিলনকারী পতঙ্গসংক্রান্ত প্রকল্পের দায়িত্ব প্রাপ্ত।

 বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায়িক মধু উৎপাদন প্রকল্পেরও দায়িত্বপ্রাপ্ত।

- অভিষেক চক্রবর্তী

Share your comments



Krishi Jagran Bengali Magazine Subscription Subscribe Online

Download Krishi Jagran Mobile App

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.