কাতলা মাছ সম্পর্কে কিছু তথ্য

Wednesday, 23 January 2019 12:32 PM

কাতলা মাছ দক্ষিণ এশিয়ান অঞ্চলের অর্থনৈতিকভাবে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মিষ্টি জলের মাছ। এটি carp পরিবারের Cyprinidae গোত্রীয়। এটি কাতলা, কাতল, ইন্ডিয়ান মেজর কার্প, চেপটি, বউধেক্রা, বাচা, কারাকাতলা  বিভিন্ন নামে পরিচিত। কাতলা মাছ প্রধানত উত্তর ভারত, বাংলাদেশ, নেপাল, পাকিস্তান এবং মায়ানমারের হ্রদে পাওয়া যায়। মাছটি সাধারণত তাজা অবস্থায় বাজারে ছাড়া হয় এবং এই মাছের ভালো বাজার মূল্য আছে এবং এর চাহিদাও খুব ভালো। আজ, কাতলা মাছ বাণিজ্যিকভাবে  অনেক দেশে পাওয়া যায়।

কাতলা মাছের বড় এবং বিস্তৃত মাথার সঙ্গে স্বাতন্ত্র্যসূচক চেহারা আছে। এদের চোখ বড় হয়। কাতলা মাছের নীচের ঠোঁট খুব পুরু, এবং উপরের ঠোঁট অনুপস্থিত। ১-২কেজি ওজনের কাতলা মাছ সাধারণত বাজারে বিক্রি হয়। কিন্তু কাতলা মাছ ২০ কেজি পর্যন্ত বাড়তে পারে। এদের শরীরের দৈর্ঘ্য প্রায় ১ মিটারে পৌঁছতে পারে। এই মাছ ২৫ -৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে জলের তাপমাত্রায় ভাল হয়। কাতলা মাছ  স্বাভাবিকভাবেই প্রবাহিত জলে প্রজনন করা যেতে পারে। কাতলা মাছ বিশেষ করে নদীতে এবং, বর্ষার সময় প্লাবনভূমিতে প্রজনন করা যায়। কাতলা মাছ সাধারণত তাদের ৩-৫ বছর বয়সে পরিপক্কতায় পৌঁছায়। পুকুরের মতো স্থির জলেও এদের প্রজনন সম্ভব।

কৃত্রিমভাবে কাতলা মাছ প্রজনন অত্যন্ত কঠিন, কারণ ডিম ছাড়ার জন্য সুনির্দিষ্ট পরিবেশগত অবস্থার প্রয়োজন হয়। এটি খুব উপযুক্ত এবং সাধারণত অন্যান্য কার্প মাছ প্রজাতির সাথে প্রজনন করা যায়, বিশেষ করে রুই এবং মৃগাল মাছের সাথে।

আরও পড়ুন মাছ চাষের জন্য পুকুর প্রস্তুতির নিয়ম ও পদ্ধতিঃ

কাতলা মাছ প্রধানত খাওয়ার জন্য প্রজনন করা হয়। কিছু অন্যান্য কার্প মাছ প্রজাতির তুলনায় কাতলা মাছ অপেক্ষাকৃত দ্রুত বৃদ্ধি পায়। কাতলা মাছের মোট উৎপাদন ক্রমবর্ধমান বৃদ্ধি পাচ্ছে। পরিবহনের সময়, এটি সাধারণত বরফের দ্বারা পরিবহন করা হয়। কাতলা মাছ খেতে খুব সুস্বাদু হয়। অনুষ্ঠান বাড়িতে কাতলা মাছ ব্যবহার করা হয়।   

- দেবাশীষ চক্রবর্তী



Krishi Jagran Bengali Magazine Subscription Subscribe Online

Download Krishi Jagran Mobile App

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.