Drum Seeder: বৃষ্টিতে চাষের জমি নষ্ট হয়ে গেছে ? "ড্রাম সিডার" যন্ত্রের ব্যবহার হবে মুশকিল আসান

KJ Staff
KJ Staff
Drum seeder (Image Credit - Google)
Drum seeder (Image Credit - Google)

লাগাতার বৃষ্টি ও জল জমে চাষের জমি প্রায় নষ্ট হয়ে যায় | এমনকি নষ্ট হয়ে যায় বীজতলাও | এগুলি পুনরায় তৈরী করাও বেশ কষ্টসাধ্য | ফলত, চাষীদের মাথায় হাত পরে যায় | তাই কৃষি বিজ্ঞানীদের আবিষ্কার "ড্রাম সিডার" যন্ত্র এরম অবস্থায় কৃষকদের সহায়তা করার একমাত্র পন্থা | এই যন্ত্রের মাধ্যমে নতুন করে বীজতলা তৈরী করা যায় |

ড্রাম সিডার কি (What is Drum Seeder)?

ড্রাম সিডার প্লাস্টিকের তৈরি ছয়টি ড্রাম বিশিষ্ট একটি আধুনিক কৃষি বপণ যন্ত্র। প্লাস্টিকের তৈরি ড্রামগুলো ২.৩ মিটার প্রশস্ত লোহার দন্ডে পরপর সাজানো থাকে। লোহার দন্ডের দুপ্রান্তে প্লাস্টিকের তৈরি দুটি চাকা এবং যন্ত্রটি টানার জন্য একটি হাতল যুক্ত থকে। প্রতিটি ড্রামের দৈর্ঘ্য ২৫ সেন্টিমিটার এবং ব্যাস ৫৫ সেন্টিমিটার এবং এর দু’প্রান্তে ২০ সেন্টিমিটার দূরত্বে দুসারি ছিদ্র আছে। প্রয়োজনে রাবারের তৈরি সংযুক্ত বেল্টের সাহায্যে এক সারি ছিদ্র বন্ধ রাখা যায়।

ড্রাম সিডারের সুবিধা (Benefits of Drum Seeder):

এ যন্ত্রের সাহায্যে কাদা মাটিতে অঙ্কুরিত বীজ সারি করে সরাসরি বপণ করা যায়। ফলে আলাদা করে আর বীজতলা তৈরি, চারা উত্তোলন ও রোপণ করতে হয় না | যার ফলে শ্রম ও উৎপাদন ব্যয় অনেকটা কমে যায় | এই প্রযুক্তির মাধ্যমে ধান ও অন্যান্য সব্জি চাষ (vegetables cultivation) সহজে করা যায় | এই যন্ত্রের মাধ্যমে ধানের বীজ বপণ করলে বীজের পরিমাণ ৩০ শতাংশ কম লাগে। সারিবদ্ধ ও সার্বিক ঘনত্ব অনুযায়ী বীজ বপণের কারণে জমিতে নিড়ানিসহ অন্যান্য পরিচর্যা অনেক সহজ হয় এবং রোগপোকার উপদ্রপ কম হওয়ায় ফসলের ফলন গড়ে ২০- ২৫ শতাংশ বৃদ্ধি পায়। সর্বোপরি, এই যন্ত্র হালকা হওয়ায় সহজেই বহনযোগ্য | ১ জন লোক ঘণ্টায় অন্তত ১ বিঘা জমিতে বীজ বপণ করতে পারে।

ড্রাম সিডারের সাহায্যে বীজ বপণ :

প্রথমত, ড্রামের ড্রামের দুই-তৃতীয়াংশ অঙ্কুরিত বীজ দ্বারা ভর্তি করতে হবে | এরপর অঙ্কুরিত বীজগুলিকে ছায়াযুক্ত জায়গায় প্রায় ২ ঘন্টা শুকিয়ে নিতে হবে | ছয়টি ড্রামে বীজ ভরে ড্রামসিডার যন্ত্রটি দিয়ে একসঙ্গে ১২ লাইনে বীজ বপণ করা যায়। অঙ্কুর খুব ছোট হলে অতিরিক্ত বীজ পড়ে যাবে, আবার অঙ্কুর বেশী লম্বা হলে ড্রামের ছিদ্র দিয়ে পড়বে না। সাধারণত অঙ্কুরের দৈর্ঘ্য ৪-৫ মিলিমিটার, অর্থাৎ একটি ধানের সমান লম্বা হলেই ভালো হয়। অঙ্কুরিত বীজ ড্রামে ভরার সময় লক্ষ্য রাখতে হবে যেন ড্রামের এক তৃতীয়াংশ অবশ্যই খালি থাকে। ড্রামের গায়ে আঁকা ত্রিভূজাকৃতি চিহ্ন যেন সবসময় সামনের দিকে থাকে। সাধারণত একক ঘন সারিতে বীজ বপন করা বেশ ভালো এবং এতে বিঘা প্রতি ৩.৫-৪.০ কেজি বীজ প্রয়োজন হয়।

সার প্রয়োগ:

বীজ বপণের প্রথম ৪ থেকে ৫ দিন জল দেওয়ার দরকার থাকেনা | পরে গাছের বৃদ্ধির সাথে প্রয়োজনমতো জলের পরিমান বাড়াতে, কমাতে হবে | ইউরিয়া সারের কার্যকারিতা জমিতে কম সময় থাকে বলে কিস্তিতে প্রয়োগ করতে হবে। ১ম কিস্তি জমি তৈরির শেষ পর্যায়ে, ২য় কিস্তি ধানের গোছায়  (Paddy cultivation) ৪-৫ টি কুশি অবস্থায় ও ৩য় কিস্তি কাইচথোড় আসার ৫-৭ দিন আগে দিতে হবে। ইউরিয়া উপরি-প্রয়োগের সময় ক্ষেতে ২-৩ সেন্টিমিটার জল থাকতে হবে। ইউরিয়া প্রয়োগের সাথে সাথে আগাছা পরিস্কার করতে হবে। ইউরিয়া সার প্রয়োগের পরেও ধান গাছ যদি হলদে থাকে এবং বাড়বাড়তি কম হয় তাহলে গন্ধকের অভাব হয়েছে ধরে নেওয়া যায়। সে ক্ষেত্রে সাথে সাথে জমি থেকে জল সরিয়ে দিতে হবে । এরপর হেক্টর প্রতি ৬০ কেজি বা বিঘা প্রতি ৮ কেজি জিপসাম সার উপরি-প্রয়োগ করতে হবে।

আরও পড়ুন - শ্রী পদ্ধতিতে ধান চাষ, রুখবে জলের অপচয়

আগাছা পরিষ্কার:

ড্রাম সিডার যন্ত্রে বীজ বপণ করলে আগাছা দমন সহজ হয়। আগাছা দমনের জন্য আগাছানাশকও ব্যবহার করা যেতে পারে। জমিতে কম জল দাঁড়ানো থাকা অবস্থায় আগাছানাশক প্রয়োগ করতে হবে এবং পরের ৩-৫ দিন অবশ্যই হালকা জল রাখতে হবে | যে জমিতে আগাছা কম হয় সেখানেই ড্রাম সিডার পদ্ধতি ব্যবহার করাই ভালো এবং আগাছা বেশি হলে পরিষ্কার করা জরুরি |

নিবন্ধ: রায়না ঘোষ

আরও পড়ুন - Digital farming technique Krish-e: কৃষক স্বার্থে মাহিন্দ্রা গ্রুপ ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে চালু করেছে "কৃষ-ই" প্ৰযুক্তি

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters