MFOI 2024 Road Show

ধান চাষিদের জন্য সুখবর! নতুন প্রযুক্তি নিয়ে এলো কৃষি দফতর, ডিআরএসে লাভবান হবেন কৃষকরা

উত্তরপ্রদেশের বান্দায়, কৃষি বিভাগ কৃষকদের একটি নতুন প্রযুক্তিতে ফসল বপন করার জন্য আবেদন করেছে। কৃষি কর্মকর্তা বলেন, এ পদ্ধতিতে বপন করলে কম খরচে ও কম জলে ভালো ফলন পাওয়া যায়। জেলা কৃষি কর্মকর্তা ডাঃ প্রমোদ কুমার জানান, বর্তমানে খরিফ বপনের সময় চলছে। কৃষকদের সরাসরি বপন পদ্ধতির (ডিএসআর) মাধ্যমে ধান চাষ করা উচিত।

KJ Staff
KJ Staff
প্রতীকী ছবি।

উত্তরপ্রদেশের বান্দায়, কৃষি বিভাগ কৃষকদের একটি নতুন প্রযুক্তিতে ফসল বপন করার জন্য আবেদন করেছে। কৃষি কর্মকর্তা বলেন, এ পদ্ধতিতে বপন করলে কম খরচে ও কম জলে ভালো ফলন পাওয়া যায়। জেলা কৃষি কর্মকর্তা ডাঃ প্রমোদ কুমার জানান, বর্তমানে খরিফ বপনের সময় চলছে। কৃষকদের সরাসরি বপন পদ্ধতির (ডিএসআর) মাধ্যমে ধান চাষ করা উচিত। 

কৃষিকাজে প্রচুর পরিশ্রম ও জলের প্রয়োজন হয়। ট্রাক্টর ছাড়াও অন্যান্য যন্ত্রপাতিও প্রচুর ডিজেল খরচ করে এবং আমাদের পরিবেশও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ডিএসআর পদ্ধতি অবলম্বন করলে কম খরচে দারুণ সুবিধা পাওয়া যাবে। 

ডিএসআর পদ্ধতি অর্থাৎ সরাসরি বপন কি?

ডিএসআর-এর পূর্ণ রূপ হল ডাইরেক্ট সিডেড রাইস, অর্থাৎ ধানের সরাসরি বপন পদ্ধতি। এই পদ্ধতিতে কৃষকরা বীজ ড্রিল দিয়ে সরাসরি বপন করে। এই পদ্ধতিতে প্রচলিত পদ্ধতির চেয়ে দ্বিগুণ খরচ হয়। কারণ এতে জমিতে ধান রোপণ করতে প্রথমে ক্ষেত সমতল করা, একটানা জল দেওয়া, মাড়াই, তারপর ধান বপন করা। এতে কম পরিমাণ আর্দ্রতা অর্থাৎজল দিয়েও ভালো ফসল উৎপাদন করা যায়।

আরও পড়ুনঃ বিদেশী ফল অ্যাভোকাডো চাষ করুন, কয়েক বছরের মধ্যে ধনী হয়ে উঠবেন

এই পদ্ধতিতে আমরা প্রথমে বীজ সাজাই, বীজ এমনভাবে নির্বাচন করি যাতে ধান বপনের ১০০ থেকে ১১০ দিনের মধ্যে পেকে যায়। এতে প্রতি হেক্টরে ৪০ থেকে ৫০ কেজি ধানের প্রয়োজন হয়। জুনের শেষ সপ্তাহ থেকে জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত বীজ ড্রিলের মাধ্যমে সরাসরি বপন করা যায়। এই পদ্ধতিতে, এটি মনে রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে বীজ বপনের সময়, ২৫ সেন্টিমিটার দূরত্বে লাইনে বপন করতে হবে। অকৃষি এলাকায় জলের ব্যবহার দিন দিন বাড়ছে, তাই এই পদ্ধতি ব্যবহার করে আমরা ভালো ফসল উৎপাদন করতে পারি।

আরও পড়ুনঃ নারকেল চাষের সময় এই বিষয়গুলির বিশেষ যত্ন নিন, আপনার প্রচুর আয় হবে

কৃষকদের কি লাভ হবে?

১। কম সময়ে ফসল বপন করা যায়।

২। ফসল ৭ থেকে ১০ দিন আগে পাকে। যার কারণে পরবর্তী ফসলের বপন সময়মতো করা যায়।

৩। জল খরচ কম। 

৪।  লাঙ্গল ও বপনের খরচ কম, যা জ্বালানীও সাশ্রয় করে।

৫।  সারিতে বপন করা যান্ত্রিক আগাছা নিয়ন্ত্রণের সুবিধা দেয়।

৬।  উদ্ভিদ সুরক্ষা চিকিত্সাও সহজে করা যেতে পারে।

৭।  মিথেন গ্যাস, যা ধানের ফসল থেকে প্রচুর পরিমাণে নির্গত হয়, তা পরিবেশের জন্য উপকারী।

আধিকারিকরা কৃষকদের এই পদ্ধতি ব্যবহার করার জন্য আবেদন করেছেন, কারণ এই পদ্ধতিটি রোপণ করার ফলে, এই ফসল দ্রুত পাকে, এর সুবিধা হল যে আমাদের পরবর্তী ফসল গম বপন করতে হবে, তাও সময়মতো করা যায়। তাই ধান রোপন না করে সরাসরি বপন করা যেতে পারে। আপনি এটি থেকে আরও সুবিধা পেতে পারেন।

Published On: 20 June 2024, 04:56 PM English Summary: Good news for rice farmers! Agriculture department brought new technology, farmers will benefit from DRS

Like this article?

Hey! I am KJ Staff . Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters