(Disease & pest management) কাঁচা মরিচের রোগ দমন ও কীট পরিচালনা

Friday, 21 August 2020 09:55 PM
Green chilli

Green chilli

মরিচ একটি প্রধান মসলা জাতীয় ফসল। তবে মরিচ মসলা হিসেবে ব্যবহৃত হলেও এতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি সহ পুষ্টির সব উপাদান উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বিদ্যমান। কিন্তু মরিচ উৎপাদনে রোগবালাই একটি প্রধান প্রতিবন্ধক। আমাদের দেশে ফসলের উৎপাদন ৫০ শতাংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয় রোগ-পোকার কারণে। রোগ পোকা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলে ফলন অনেক বৃদ্ধি পাবে, এতে কৃষকের আয় বৃদ্ধি পাবে।

রোগ-পোকা ও তার নিয়ন্ত্রণ (Disease & pest management) -

মুখ্য পোকা-মাকড়:

১) হলদে মাকড়: ছোট ও পূর্ণাঙ্গ উভয় মাকড়ই পাতা থেকে রস চুষে খেয়ে নেয় ফলে পাতা নিচের দিকে মুড়ে যায় এবং উল্টানো নৌকার আকৃতি ধারণ করে।

প্রতিকার: বিউপ্রফেজিন ২৫ এস.সি. @ ১.২ মিলি/লি অথবা ক্লোরফেনপাইরি ১০ এস.সি @ ২ মিলি/লি অথবা ডায়াফেনথিউরোন ৫ ডব্লিউ.পি. @ ১.২ গ্রা/লি অথবা ডাইমিথোয়েট ৩০ ই.সি. @২ মিলি/লি ১০-১৫ দিন অন্তর পর্যায়ক্রমে পাতায় স্প্রে করতে হবে।

২) থ্রিপস বা চুষি পোকা: পাতা ও গাছের কচি অংশ থেকে রস চুষে খেয়ে নেয়, আক্রান্ত পাতা ছোট হয়ে, কুঁকড়ে উপরের দিকে মুড়ে যায় এবং শেষমেষ ঝরে পড়ে।

প্রতিকার: ইমিডাক্লোপ্রিড ৭০ ডব্লিউ.এস @ ৫-১০ গ্রা/কেজি দিয়ে বীজ শোধন করতে হবে। মাঠে নীল আঠালো ফাঁদ পাততে হবে, সেক্ষত্রে একর প্রতি ৮০-১০০ টা ফাঁদ প্রয়োজন। এসিটামেপ্রিড ২০ এস.সি. @ ০.২ মিলি/লি অথবা কার্বফিউরন ৩জি @ ৩৩.৩ কেজি/হে অথবা ডাইমিথয়েট ৩০ ই.সি. @ ১.৫ মিলি/লি অথবা ইথিওন ৫ ই.সি.@ ৩-৪ মিলি/লি অথবা থায়োক্লোপ্রিড ২১.৭ এস.সি.@ ০.৬ মিলি/লি ১০-১৫ দিন অন্তর পর্যায়ক্রমে পাতায় স্প্রে করতে হবে।

৩) সাদামাছি: ছোট ও পূর্ণাঙ্গ উভয় মাছিই গাছের রস খায় এবং গাছের বৃদ্ধিতে বাধা দেয়। চরম পর্যায়ে গাছের পাতা হলুদ হয়ে ঝরে পড়ে যায়। এরা লংকার পাতা কুঁকড়ে যাওয়ার ভাইরাসের বাহক হিসাবে কাজ করে।

প্রতিকার: ইমিডাক্লোপ্রিড ৭০ ডব্লিউ.এস @ ৩-৫ গ্রা/কেজি দিয়ে বীজ শোধন করতে হবে। মাঠে হলুদ আঠালো ফাঁদ পাততে হবে, সেক্ষত্রে একর প্রতি ৮০-১০০ টা ফাঁদ প্রয়োজন। চারাগাছকে বীজতলায় ৪০-৬০ মেসের মশারির আচ্ছাদনে লাগাতে হবে। নিমযুক্ত কীটনাশক যেমন সায়ানট্রানিলিপ্রল ১০ ও.ডি. @ ১.২ মিলি/লি অথবা ইমিডাক্লোপ্রিড ১৭.৮ এস.এল @ ০.৩৫ মিলি/লি অথবা কার্বোসালফান ২৫ ই.সি.@ ২ মিলি/লি ১০-১৫ দিন অন্তর পর্যায়ক্রমে পাতায় স্প্রে করতে হবে।

(Chilli farming in scientific way) আধুনিক বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে লংকা চাষ করে করুন অতিরিক্ত আয়

Pest management

Pest management

মুখ্য রোগ:

১)  ফলপচা ও ডগা শুকনো:

কচি ডগা ও নরম পাতা কালো হয়ে শুকিয়ে যায়। পচন উপর থেকে নিচে নামে। ছালের উপর লম্বাটে কালচে দাগ পড়ে। পাকা ফলের উপর কালো দাগ হয়। ছত্রাক মূলত বীজবাহিত।

প্রতিকার: রোগমুক্ত ফল থেকে বীজ সংগ্রহ করতে হবে। ০.২৫% কার্বেন্ডাজিম দিয়ে বীজ শোধন করতে হবে। টেবুকোনাজল ২৫% ডব্লিউ.জি @০.৫-০.৭৫ কেজি/হে অথবা কপার সালফেট ২.৬৭% এস.সি. ১.০ লি/হে স্প্রে করতে হবে। 

২) চারা ঢলে পড়া:

কচি চারা মাটির ওপরে আসার আগে মারা যায়। আবার জন্মানো চারার মাটি সংলগ্ন গোড়ায় জলে ভেজা বাদামি দাগ দেখা যায় এবং চারার রং হালকা সবুজ হয়।

প্রতিকার: প্রতি কেজি বীজের সঙ্গে ৩ গ্রাম থাইরাম বা ৪ গ্রাম ট্রাইকোডার্মা ভিরিডি মিশিয়ে শোধন করতে হবে। ফসলের অবশিষ্ট অংশ পুড়িয়ে ফেলতে হবে। শস্য চক্র অনুসরণ করতে হবে।

৩) পাতা কোঁকড়ানো:

গাছের পাতা কুঁকড়ে গাছ ছোট হয়ে যায়। গাছে ফুল ফল কম ধরে। সাদামাছি এই রোগের বাহক।

প্রতিকার: সাদামাছি দমন করলে এই রোগ থেকে কিছুটা প্রতিকার পাওয়া যায়। ইমিডাক্লোপ্রিড ৭০ ডব্লিউ.এস @ ৩-৫ গ্রা/কেজি দিয়ে বীজ শোধন করতে হবে। মাঠে হলুদ আঠালো ফাঁদ পাততে হবে, সেক্ষত্রে একর প্রতি ৮০-১০০ টা ফাঁদ প্রয়োজন। চারাগাছকে বীজতলায় ৪০-৬০ মেসের মশারির আচ্ছাদনে লাগাতে হবে। ভুট্টাকে সীমান্ত ফসল হিসাবে ব্যবহার করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

ড. শুভ্রমাল্য দত্ত (বরিষ্ঠ গবেষক, সবজি বিজ্ঞান বিভাগ, উদ্যানবিদ্যা অনুষদ, বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়)

Image source - Google

Related Link - (Green chilli farming) অর্থকরী ফসল মরিচের উন্নত প্রজাতির চাষ ও বীজ বপন পদ্ধতি

(Business idea, 2020) ৫০০০ টাকারও কমে শুরু করুন এই ব্যবসা আর উপার্জন করুন প্রচুর অর্থ

English Summary: Disease control and pest management of green chilli

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.