(Green chilli farming) অর্থকরী ফসল মরিচের উন্নত প্রজাতির চাষ ও বীজ বপন পদ্ধতি

Friday, 21 August 2020 02:29 PM
Chilli farming

Chilli farming

চিরাচরিত ধান, গম, আলু, এসব চাষের বাইরে যদি কোনও কিছু চাষের কথা পরিকল্পনা করছেন কৃষকেরা, তাহলে মরিচ/লংকা চাষ (Chilli Cultivation) তাদের জন্য লাভজনক হতে পারে৷ এটি একটি অর্থকরী ফসল৷ এর চাষে কৃষকেরা উপার্জনের পাশাপাশি প্রচুর লাভও করতে পারেন৷ লংকাতে ভিটামিন এ, সি ছাড়াও আরও বহু ধরণের উপাদান বিদ্যমান যা আমাদের শরীরের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়৷ তাই রান্নাতে, মশলা বা আচার তৈরিতে লঙ্কা ছাড়া অনেকে ভাবতেই পারেন না৷

যদি উন্নত মানের লঙ্কা চাষ করা হয়, তাহলে তার প্রভাব ফলনে পড়বে৷ সঠিকভাবে চাষ করতে পারলে লাভ নিশ্চিত৷ অর্থাৎ, উন্নত মানের লঙ্কার পাশাপাশি জলবায়ু, মাটি, সার, পরিচর্যা সবকিছু সঠিক হতে হবে, তবেই এই চাষে কৃষক লাভের মুখ দেখবেন।

জেনে নিন লংকা চাষের জন্য আদর্শ জলবায়ু, মাটি, প্রজাতি, বীজ বপন ও অন্যান্য তথ্য সম্পর্কে বিস্তারিত-

জলবায়ু:

লংকা সাধারণত উষ্ণ-আর্দ্র জলবায়ু পছন্দ করে, যদিও ফল পাকার সময় শুষ্ক আবহাওয়াই আদর্শ। ৭৫-১০০ সেমি বার্ষিক বৃষ্টিপাত আদর্শ, যদিও বৃদ্ধির সময় অতিরিক্তি বৃষ্টিপাত পাতাঝরা এবং গাছ পচার মত বিপদ ডেকে আনে। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২০-৩০ ডিগ্রি সে: ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সে: হওয়া বাঞ্ছনীয়। গ্রীষ্মকালে অধিক তাপমাত্রায় ফুল-ফল ঝরে যায়।

মাটি:

নিকাশি ব্যবস্থাযুক্ত বেলে-দোঁয়াশ মাটি লংকা চাষের জন্য উপযুক্ত। মাটিতে অক্সিজেনের অভাব গাছের বৃদ্ধির জন্য হানিকারক। মাটির অম্লতা ৫.৫- ৬.৮ হওয়া বাঞ্চনীয়। লংকা আম্লিক মাটির প্রতি সংবেদনশীল।

রপ্তানিযোগ্য জাত:

কাশি আর্লি, সি.এইচ-১, সি.এইচ-৩, অর্ক মেঘনা, অর্ক শ্বেতা, অর্ক হরিতা, কাশি অনমল, পুসা সদাবাহার, পাঞ্জাব লাল, অর্ক লোহিত, আজাদ মির্চ-১, ভাগ্যলক্ষ্মী, ফুলে সূর্যমুখী, ভাস্কর।

Green chilli

Green chilli

বীজতলা তৈরী:

বীজতলার মাটিকে বারবার কুপিয়ে ঝুরঝুরে করে বীজতলাটি জমি থেকে ১৫সেমি উঁচুতে এবং এক মিটার চওড়া করে বানানো উচিত। ভালোভাবে পচানো গোবর সার বা কম্পোস্ট সার প্রতি বর্গমিটারে ৩-৪ কেজি হিসাবে প্রয়োগ করে মাটিতে ভালোভাবে মিশিয়ে দিতে হবে। ৪.০% ফরমালডিহাইড বা ২-৩ গ্রাম ক্যাপটান প্রতি লিটার জলে গুলে বীজতলা শোধন করে, ৭-১০ দিনের জন্য পলিথিন দিয়ে ঢেকে রাখা উচিত।

বীজের হার:

এক হেক্টর জমি চাষের জন্য সাধারণ জাতের ক্ষেত্রে ৫০০-৬০০ গ্রাম এবং হাইব্রিডের ক্ষেত্রে ২৫০-৩০০ গ্রাম বীজের প্রয়োজন।

বীজ শোধন:

বীজ বপনের পূর্বে বীজকে ক্যাপটান বা থাইরাম প্রতি কেজি বীজে ২-৩ গ্রাম মিশিয়ে শোধন করা প্রয়োজন।

বীজ বপন:

বীজকে মাটির নীচে ৫ সেমি গভীরে লাইন করে রোপন করে তার উপর পাতাপচা সারের স্তর বিছিয়ে বীজতলা শুকনো খড় বা লম্বা ঘাস দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। প্রতিকূল আবহাওয়া যেমন প্রখর রৌদ্র ও অতি বৃষ্টিতে বীজতলাটি দু-পাশ খোলা পলিটানেলের মধ্যে করা উচিত। চারাগুলো যেন পর্যাপ্ত অথচ সরাসরি তীব্র সূর্যালোক না পায় তার জন্য ছায়ার ব্যবস্থা করতে হবে। বীজতলার চারা বেরোনোর ১০-১২ দিনের মাথায় চারা ঘন হলে তাকে পাতলা করতে হবে। প্রয়োজনমত প্রতিদিন বীজতলায় জল দিতে হবে। চারাকে শক্তপোক্ত করার জন্য জমিতে চারা রোপনের ৪-৬ দিন আগে বীজতলায় জল দেওয়া বন্ধ করতে হবে। ৩৫-৪০ দিন বয়সি পুষ্ট ও নীরোগ চারা মূল জমিতে রোপনের উপযোগী। বীজতলার মাটি ভালোভাবে ভিজিয়ে চারা তোলা উচিত যাতে শিকড়ের কোন ক্ষতি না হয়।

বীজ বপনের সময়:

১) মে- জুলাই: শরৎ ও শীতকালীন ফসলের জন্য

২) সেপ্টেম্বর- অক্টোবর: শীত ও প্রাক গ্রীষ্মকালীন ফসলের জন্য।

৩) জানুয়ারি- ফেব্রুয়ারি: গ্রীষ্ম ও বর্ষাকালীন ফসলের জন্য

৪) ফেব্রুয়ারি- এপ্রিল: পার্বত্য অঞ্চলের জন্য

 

ড. শুভ্রমাল্য দত্ত (বরিষ্ঠ গবেষক, সবজি বিজ্ঞান বিভাগ, উদ্যানবিদ্যা অনুষদ, বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়)

Image source - Google

Related link - (Dragon fruit cultivation) সর্বরোগহারা ফল -ড্রাগন ফল, লাভজনক ড্রাগন ফল চাষের সম্পূর্ণ তথ্য

(Chrysanthemum flower cultivation) বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে চন্দ্রমল্লিকা ফুলের চাষ করে উপার্জন করুন অধিক অর্থ

English Summary: Earn more by farming green chilli in this method

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.