প্রধান ফসলের সাথে এই মরসুমে ওলকপি চাষ করে আয় করুন অতিরিক্ত (Earn Extra Money By Cultivating Oleracea) অর্থ

KJ Staff
KJ Staff
Oleracea Cultivation (Image Credit - Google)
Oleracea Cultivation (Image Credit - Google)

ওলকপি শীতের অন্যান্য সবজির চেয়ে শক্ত ধরনের সবজি। এটি ইউরোপীয় দেশগুলো ও দক্ষিণ এশিয়ার দেশসমূহে চাষাবাদ ও খাওয়া হয়। মূলত এটি বাঁধাকপির একটি বিশেষ প্রজাতি, কপি জাতীয় সবজি যেমন ব্রোকলি, ফুলকপি, পাতা-কপি, শালগম গোত্রের। কপির চেয়ে মোটামুটি শক্ত আবরণের মধ্যে বেড়ে ওঠে। সেদ্ধ হতে বেশ সময় নেয়। অনেকটা ব্রোকলির মত ও আপেলের মত কচকচে খেতে। পৃথিবী জুড়ে সালাদ এর জন্য বিভিন্ন উপকরণ হিসাবে এর ব্যবহার হয়ে থাকে। ইউরোপের কিছু দেশে গৃহপালিত পশুকে পর্যাপ্ত পুষ্টি দিতে জন্য খাওয়ানো হয়।

জাত নির্বাচন (Variety Selection )-

আমাদের দেশে সাধারণত ওলকপির দুটি জাত বেশি চাষ করা হয়। জাত দুটি হচ্ছে- হালকা সবুজ রঙের জাত আর্লি হোয়াইট ভিয়েনা এবং বেগুনী রঙের জাত আর্লি পার্পল ভিয়েনা। এছাড়াও আরো কিছু জাত রয়েছে। যেমন- অনুপম, বাম্পার হারভেষ্ট এফ১, আর্লি বল এফ১, ক্রান্তি এফ১, নিমাজিন এফ-১ ইত্যাদি।

ওলকপি চাষের সঠিক পদ্ধতি -

জমি তৈরী ও সার প্রয়োগ -

সাধারণত এটেল বা এটেল-দোআশ মাটিতে এর ফলন ভালো হয়। এছাড়াও দোআশ মাটিতেও এর চাষাবাদ করা হয়। কয়েকটি চাষ ও মই দিয়ে জমি তৈরী করতে হবে। শতক প্রতি ১ কেজী ইউরিয়া, ৫০০ গ্রাম টিএসপি, ৫০০ গ্রাম পটাশ, ৭০০ গ্রাম জিপসাম এবং জিংক ও বোরন সার সামান্য পরিমান দেয়া যায়। গোবর আর টিএসপি সার চাষের সময় দিতে হবে। অর্ধেক পটাশ সার চাষের সময় আর বাকিগুলো চারা রোপনের ১৫-২০ দিন পর পর ২ কিস্তিতে দিতে হবে।

চারা রোপন পদ্ধতি -

৫-৬ টি পাতা হলে চারা রোপনের উপযুক্ত হবে। চারা রোপনের সময় সারি থেকে সারির দুরত্ব ১২ ইঞ্চি বা ১ ফুট আর চারা থেকে চারা ৯ ইঞ্চি দুরত্বে লাগাতে হবে। 

ওলকপির পরিচর্যা -

নিয়মিত আগাছা পরিষ্কার ও সার প্রয়োগ করতে হবে। এ ফসলে বেশি পানির প্রয়োজন হয়, তাই নিয়মিত সেচ দিতে হবে। পাখি বসার জন্য ডাল পুতে দেয়া যেতে পারে। এতে পোকা-মাকড়ের উপদ্রব কম হবে।

পোকা মাকড় -

ওলকপি চাষে তেমন পোকা-মাকড় দেখা যায় না, তবে লেদা পোকা, ঘোড়া পোকা ও জাব পোকা এবং করাত মাছি বেশি দেখা যায়। এর জন্য সাইপারমেথ্রিন বা এমামেকটিন বেনজয়েডের সাথে ইমিডাক্লোরপ্রিড মিক্স করে স্প্রেয়ার দিয়ে স্প্রে করলে সব পোকা মারা পড়বে।

ওলকপির রোগ -

ওল কপির পাতায় দাগ রোগ, চারা ধ্বসা, ক্লাবচরূট, মোজাইক ভাইরাস, পাতার আগা পোড়া ইত্যাদি রোগ হতে পারে। সময়মতো পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্ন চাষাবাদ, নিয়মিত সেচ ও কীটনাশক, ছত্রাকনাষক স্প্রে এবং সঠিক পরিচর্যা এসকল রোগ থেকে দূরে রাখবে। 

ফলন সংগ্রহ (Yield collection) - 

স্বল্প পরিশ্রম ও কম খরচে এর ভালো ফলন পাওয়া যায়। ৪০-৫০ দিন পর থেকেই কচি অবস্থায় ফলন সংগ্রহ করতে হবে। বয়স বেশি হয়ে গেলে আশ হয়ে যাবে এবং বাজার মূল্য কমে যাবে। সাধারণত দেশি জাতে শতক প্রতি ১০০ থেকে ১২০ কেজি ফলন হয়। হেক্টরে ২৫-৩০ টন ফলন হয়। হাইব্রিড জাতগুলোতে হেক্টরে ৫০-৬০ টন ফলন পাওয়া সম্ভব।

আরও পড়ুন - শীতকালীন টমেটো চাষে লাভ হবে অতিরিক্ত (Tomato Cultivation In Winter Season)

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters