জানুন শীতকালীন মটরশুঁটির জাত সমূহ ও চাষের পদ্ধতি (Pea’s Variety & Vultivation)

Tuesday, 05 January 2021 11:28 AM
Pea’s Field (Image Credit - Google)

Pea’s Field (Image Credit - Google)

মটরশুঁটি বিজ্ঞান সম্মত নাম Pisum sativum. প্রতিটি মটরশুঁটির মধ্যে বেশ কয়েকটি বীজ থাকে। যদিও এটি এক প্রকারের ফল,এটি মূলত সবজি হিসাবে রান্নায় ব্যবহৃত হয়। শুকনো মটরশুটি ছিলে ভেঙে দ্বিখণ্ডিত করে মটর ডাল তৈরি করা হয়। মটরশুঁটি আমাদের দেশে একটি জনপ্রিয় শীতকালীন সবজি। আমাদের দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে মটরশুঁটির চাষ হয়ে থাকে। বর্তমানে আমাদের দেশে ব্যাপকহারে মটরশুঁটি চাষ করা হচ্ছে।

মটরশুঁটি চাষ করার পদ্ধতি (Cultivation Method) -

মটরশুটি শীত প্রধান ও আংশিক আর্দ্র জলবায়ুর উপযোগী ফসল। মটরশুঁটি চাষের সবচেয়ে উপযোগী তাপমাত্রা হল ১০ থেকে ১৮ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড। মটরশুঁটি চাষের জন্য দোআঁশ মাটি সর্বোত্তম। এঁটেল মাটিতে চারা রোগে মারা যাওয়ার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়। তবে খেয়াল রাখবেন মাটি অবশ্যই সুনিষ্কাশিত হতে হবে।

মটরশুঁটির জাতসমূহ -

 মটরশুটির বেশ কিছু জাত রয়েছে। এদের মদ্ধে উল্লেখযোগ্য জাত হচ্ছে আরকেল, আলাস্কা, গ্রীন ফিস্ট, স্নো ফ্লেক, বনভীল, সুগার স্ন্যপ নামের জাতগুলোর আবাদ হচ্ছে। এছাড়াও বারি মটরশুটি-১, বারি মটরশুঁটি-২, বারি মটরশুঁটি-৩, ইপসা মটরশুটি-১, ইপসা মটরশুটি-২, ইপসা মটরশুটি-৩, আলাস্কা ইত্যাদি জাতসমুহ বেশ জনপ্রিয়।

জমি তৈরি ও বীজ বপন (Land preparation and sowing of seeds) -

আমাদের দেশে মটরশুঁটি চাষের উপযুক্ত মাস হল নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারী এই চার মাস। কারণ এই চার মাসে অনুকুল জলবায়ুগত পরিবেশ বিরাজমান থাকে। তবে নভেম্বর মাসে মটরশুঁটির বীজ বপন করা সর্বোত্তম। অক্টোবর মাসেও বীজ বোনা যেতে পারে তবে প্রায়ই বৃষ্টি হওয়ার কারণে এ সময় জমি তৈরি করা সম্ভব হয়ে ওঠে না।

তাই সঠিক সময়ে মটরশুঁটির চারা রোপন করতে হবে। মটরশুটির গাছ চারা অবস্থায় অত্যন্ত দুর্বল থাকে। তাই মটরশুঁটি চাষের জন্য জমি খুব ভালো ভাবে তৈরি করতে হবে এর জন্য ৪/৫টি চাষ ও মই দিতে হবে। জমিতে ৪০ সেমি দুরত্বে সারি করে ২০ সেমি পর পর বীজ রোপণ করতে হবে। মটরশুঁটি চাষে জোড়া সারি পদ্ধতিতে চাষ করা ভালো।

সার প্রয়োগ/ব্যবস্থাপনাঃ

মটরশুঁটি চাষের ক্ষেত্রে শতক প্রতি জমিতে ৪০০ গ্রাম ইউরিয়া, ৪০ কেজি গোবর সার, ৬০০ গ্রাম টিএসপি সার প্রয়োগ করতে হবে। ইউরিয়া ও টিএসপি অর্ধেক জমি চাষের সময় ও বাকি অর্ধেক দুবার করে পরে দিতে হবে। শেষ চাষে সার প্রয়োগের অন্তত ৭ থেকে ১০ দিন পরে মটরশুঁটির বীজ বপন করতে হবে।

সেচ ও পানি নিষ্কাশন (Irrigation) -

মটরশুঁটি চাষে ভালো ফলন পাওয়ার জন্য মটরশুঁটির জমিতে শুকনো মৌসুমে কমপক্ষে ২ থেকে ৩ টি সেচ দিতে হবে। ফল ধরলে অন্তত একবার সেচ দেয়া জরুরি। ভালো ফসলের জন্য বাউনী দেয়া দরকার। সারি বরাবর খুটি পুঁতে সুতলি দিয়ে বাউনি দেয়া যায়। জমিতে পানি দাঁড়ানো অবস্থায় যেন না থাকে সেজন্য পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করতে হবে।

আগাছা ও নিড়ানি (Weed Management) -

মটরশুঁটির ক্ষেতে মাঝে মাঝে নিড়ানি দিয়ে সারির দুই পাশের আগাছা তুলে ফেলে জমি আগাছা মুক্ত রাখতে হবে। সারির মাঝে হালকা কোপ দিয়ে মাঝে মাঝে আগাছা নষ্ট করে ফেলতে হবে। এতে করে আগাছা ফসলের ক্ষতি করতে পারে না।

পোকামাকড় ও রোগবালাই দমন -

মটরশুঁটি চাষে পোকামাকড় ও রোগবালাই দমন অতীব গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। মটরশুঁটিতে প্রধানত ড্যাম্পিং অফ, রাস্ট, পাউডারি মিলিডিউ এবং অ্যানথ্রাকনোজ আক্রমণ করে থাকে। এসব রোগ চারা অবস্থায় আক্রমণ করে থাকে। ডাইথেন এম-৪৫ (২ গ্রাম/লিটার) প্রয়োগ করে এ সব রোগ দমন করা যায়। সে সাথে প্রতি লিটার পানিতে রিডোমিল এম. জেড ২ গ্রাম হারে মিশিয়ে ক্ষেতে সেপ্র করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

মটরশুঁটি চাষে কাটুই পোকা সাধারণত চারার গোঁড়া কেটে ফসলের ক্ষতি সাধন করে থাকে। প্রাথমিক অবস্থায় ভোরবেলায় কেটে ফেলা চারার গোড়ায় চারপাশ থেকে পোকা খুঁজে মেরে ফেলে এ পোকার আক্রমণের প্রকোপ কমানো যায়। এছাড়াও আরও আরও কিছু পোকার আক্রমণ দেখা যায়। এগুলো দেখা গেলে সঙ্গে সঙ্গে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

আরও পড়ুন - প্রধান ফসলের সাথে আদা চাষ করে আয় করুন ১ লক্ষ টাকা (প্রধান ফসলের সাথে আদা চাষ করে আয় করুন ১ লক্ষ টাকা (A Complete Guidance Of Ginger Cultivation)

মটরশুঁটির ফসল সংগ্রহ - 

মটরশুঁটির ফসল সংগ্রহ মটরশুঁটি চাষের সর্বশেষ ধাপ। মটরশুঁটির বীজ বপনের এক থেকে দেড় মাসের মধ্যে গাছে ফুল আসে এবং ফুল ফোটার ২০-২৫ দিন পর বীজের জন্য মটরশুঁটি সংগ্রহ করা যেতে পারে।

আরও পড়ুন - আলু ফসল চাষে কোন সার কোন সময়ে প্রয়োগ করলে কৃষকের দ্বিগুণ লাভ হবে? কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা, জেনে নিন লাভের উপায় (Earn Double By Cultivating Potato In This Way)

English Summary: Know the varieties and cultivation methods of winter peas

আপনার সমর্থন প্রদর্শন করুন

প্রিয় অনুগ্রাহক, আমাদের পাঠক হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আপনার মতো পাঠকরা আমাদের কৃষি সাংবাদিকতা অগ্রগমনের অনুপ্রেরণা। গ্রামীণ ভারতের প্রতিটি কোণে কৃষক এবং অন্যান্য সকলের কাছে মানসম্পন্ন কৃষি সংবাদ বিতরণের জন্যে আমাদের আপনার সমর্থন দরকার। আপনার প্রতিটি অবদান আমাদের ভবিষ্যতের জন্য মূল্যবান।

এখনই অবদান রাখুন (Contribute Now)

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.