Lavender Cultivation: জেনে নিন সহজ উপায়ে ল্যাভেন্ডার চাষ পদ্ধতি

রায়না ঘোষ
রায়না ঘোষ
Lavender farming (image credit- Google)
Lavender farming (image credit- Google)

ল্যাভেন্ডার গাছটি একটি বহুবর্ষজীবী ফুলের সুগন্ধযুক্ত ঔষধি বা গুল্ম জাতীয় গাছ যা ৪০ সেমি থেকে ৮০ সেন্টিমিটার উচ্চতা পর্যন্ত হয়ে থাকে। ল্যাভেন্ডার উদ্ভিদটি সাধারণত ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে উদ্ভূত। তবে, ল্যাভেন্ডার বাড়ির উঠোনে, ছাদে সব জায়গাতেই হয়ে থাকে | বাণিজ্যিকভাবে ল্যাভেন্ডারের চাষ আপনাকে আর্থিক দিক থেকে লাভবান করতে পারে | সাধারণত, কাশ্মীরে ল্যাভেন্ডার চাষে (Lavender farming) কৃষকরা ব্যাপক সাফল্য পেয়ে থাকে | ভারতের কম বৃষ্টিপাত যুক্ত অঞ্চলে এবং পাহাড়ে মূলত হিমাচল প্রদেশ ও উত্তরপ্রদেশে এর ব্যাপক চাষ হয়ে থাকে |

জলবায়ু(Climate):

ল্যাভেন্ডার শীতকাল ও গ্রীষ্মকাল দুই সময়েই চাষ করা যায় | এটি খরা এবং হিমশীতল সহ্য করতে পারে। উচ্চতর উচ্চতায় যখন চাষাবাদ করা হয় তখন এর ভালো ফলন পাওয়া যায়। ল্যাভেন্ডার চাষে  ভাল সূর্যের আলো প্রয়োজন। কম আলোয় ফুলের পরিমান ও কম হয়ে এবং সাথে তেলও কম উৎপন্ন হয় |

মাটি(Soil):

জৈব পদার্থ সমৃদ্ধ ভাল-বায়ুযুক্ত শুকনো এবং চুনযুক্ত মাটি ল্যাভেন্ডার চাষের জন্য উত্তম | ল্যাভেন্ডার চাষে জমিতে জলাবদ্ধতা থাকা চলবেনা। উচ্চতর প্রয়োজনীয় তেল প্রাপ্তির জন্য আদর্শ মাটির পিএইচ ৭.০  থেকে ৮.৩ অবধি থাকতে হবে | সর্বোপরি, ল্যাভেন্ডার খরা ও রুক্ষ-শুষ্ক মাটিতেও জন্মায় |

আরও পড়ুন -Cowpea Farming: বর্ষায় ছাদে বরবটি চাষে করুন অধিক উপার্জন

জমি তৈরী:

২ থেকে ৩ বার ভালো করে জমি চাষ দিতে হবে | অবশ্যই আগাছা, জঞ্জাল সরানোর পর | এরপরে, মাটির উর্বরতা বৃদ্ধির জন্য মাটিতে পচে যাওয়া সার মেশানো যেতে পারে |

চাষের সময়(Time):

হালকা জলবায়ুতে শরতে রোপণ সবচেয়ে ভাল। সাধারণত, শীতকালের আগে এবং বসন্তে আরও দ্রুত গাছ বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে ভালোভাবে বেড়ে উঠতে পারে। শীতকালীন অঞ্চলে একমাত্র তুষারপাত শেষ হওয়ার পরে রোপণ করা উচিত।

রোপন পদ্ধতি(Plantation):

ল্যাভেন্ডার চারা শরৎকালে বা বসন্তকালে রোপণ করা উচিত। ল্যাভেন্ডার সারিগুলির মধ্যে ৪ ফুট এবং ৩০ সেমি থেকে ৪০ সেন্টিমিটারের মধ্যে দূরে রোপণ করা হয় | প্রতি হেক্টর ২০,০০০  গাছের ঘনত্ব সর্বাধিক ফলন দেয়। মূল স্থাপনের জন্য চারাগুলির চারপাশে মাটি দিয়ে ভালোভাবে ঢেকে দিতে হবে |

সেচ:

বাণিজ্যিক ল্যাভেন্ডার চাষে, ফসল না আসা পর্যন্ত প্রথম ২ বছর সেচ দেওয়া উচিত। হালকা মাটি এবং স্বল্প বৃষ্টিপাতের ক্ষেত্রে গাছের বৃদ্ধির জন্য সঠিকভাবে সেচ দিতে হবে | ফুল ধরণের সময় আপনাকে অবশ্যই সঠিক সেচ দিতে হবে। ওভারহেড সেচ যেমন স্প্রিংকার সেচ এড়িয়ে চলুন কারণ এটি রোগের সমস্যা বাড়াতে পারে। ল্যাভেন্ডার ফসলে ড্রিপ সেচ দিতে হবে কারণ এটি জল বাঁচায় এবং আগাছা বৃদ্ধিকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে |

সার প্রয়োগ(Fertilizer):

ল্যাভেন্ডার চাষে সার প্রয়োগ করলে গাছের দ্রুত বৃদ্ধি ঘটে। নাইট্রোজেন, পটাসিয়াম এবং ফসফেট  হেক্টর প্রতি ১০০ কেজি, ৪০ কেজি, ৪০ কেজি প্রয়োগ করতে হবে। সাধারণত, 20 কেজি নাইট্রোজেন সম্পূর্ণ প্রয়োগ করা যেতে পারে। বাকি ৪০ কেজি নাইট্রোজেন প্রতিবছর ২ ডোজ করে প্রয়োগ করা উচিত।

আগাছা দমন:

মাটির আর্দ্রতা ধরে রাখার জন্য মালচিং-র ব্যবহার করা যেতে পারে | গাছের সঠিক বৃদ্ধির জন্য এগাছ দমন করতে হবে | চাষের জমি পরিষ্কার রাখতে হবে |

রোগ ও প্রতিকার(Disease management system):

ল্যাভেন্ডারে খুব কম কীটপতঙ্গ দেখা দেয় | এর রোগের হারও কম | প্রয়োজনে, জৈব কীটনাশক ব্যবহার করা যেতে পারে, নিম তেল ব্যবহার করা যেতে পারে |

ফসল সংগ্রহ:

প্রতি হেক্টর জমি থেকে প্রায় ১৫ কেজি ফলন পাওয়া যেতে পারে | যার থেকে  ১.২% থেকে ১.৫% পর্যন্ত তেলের পরিমাণ পাওয়া যায় |

আরও পড়ুন -Periwinkle Flower Farming: জুলাই মাসে রোপণ করুন নয়নতারা ফুল

Like this article?

Hey! I am রায়না ঘোষ . Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters