Oil Seed Farming: ধানের পর জমিতে তৈলবীজ চাষে বিপুল লাভের সম্ভাবনা

Friday, 28 May 2021 02:38 PM
Sunflower (Image Credit - Google)

Sunflower (Image Credit - Google)

এ রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চলে কয়েকটি জেলায় বিশেষত পুরুলিয়ায় ধান চাষের পর বিঘার পর বিঘা জমি খালি পরে থাকে | অথচ পশ্চিমাঞ্চলের পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, ঝাড়গ্রাম ও  মেদিনীপুর জেলাগুলিতে আমন ধানের চাষের পর ডালশস্য বা তৈলবীজের চাষের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে | তাই কৃষি দফতরের উদ্যোগে, ওই এলাকায় কৃষকরা তৈলবীজ চাষ করে মোটা টাকা মুনাফা করতে পারছেন |

কৃষি বিশেষজ্ঞদের মতে, আমন ধানের পরে জমিতে তৈলবীজ চাষ করলে কৃষকরা মোটা টাকা মুনাফা লাভ করতে পারে | ফলত, গ্রামীণ অর্থনীতিতেও ব্যাপক পরিবর্তন হবে | এর ফলে বছরের বেশ কয়েকটা মাস চাষাবাদের সঙ্গে যুক্ত থেকে কৃষকদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার বদল ঘটতে পারে।

এক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, এ রাজ্যে আমন ধানের চাষের পর প্রায় ১১ লক্ষ হেক্টর জমি অনাবাদী অবস্থায় পড়ে থাকে। তার মধ্যে পুরুলিয়ায় আমন চাষের পর পড়ে থাকা জমির পরিমাণ প্রায় ১ লক্ষ হেক্টর। খাদ্য,  শক্তি, কর্মবিনিয়োগ ও বাণিজ্যের ক্ষেত্রে তৈলবীজ চাষের গুরুত্ব অপরিসীম। তাই এই চাষের পদ্ধতি ও প্রযুক্তি নিয়ে কৃষকদের মধ্যে উৎসাহও দেখা গেছে |

এই তৈলবীজ চাষের (oil seed cultivation) ক্ষেত্র বাড়াতে কৃষকদের সচেতন করতে নানাভাবে প্রচার করছে। গত দু’বছরে পুরুলিয়ায় কৃষকরা  প্রায় ৪০০ হেক্টর জমিতে তৈলবীজ চাষ করেছে। তৈরি করেছে একাধিক প্রদর্শনী ক্ষেত্রও। মানবাজার-১, হুড়া ও আড়শা এলাকায় এই কাজ নিরলসভাবে তারা করে চলেছে। আগামী দিনে মানবাজার-১ ব্লকে তারা ৮১০ হেক্টর তৈলবীজ চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। কৃষি অর্থনীতিতে দানা শস্যের পরই বলা যায় তৈলবীজের স্থান। শরীরের প্রয়োজনীয় ফ্যাট এই তেল থেকে পাওয়া যায়। এই রাজ্যে প্রায় ন’ধরনের তৈলবীজের চাষ করা যায়। সরিষা, তিল, বাদাম, সূর্যমুখী, সয়াবিন, নাইজার, তিসি ও রেড়ি। তার মধ্যে পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলিতে সরষে, বাদাম, তিল ও সূর্যমুখী চাষ সম্ভব।

তিল (Sesame):

উন্নত জাত হল তিলোত্তমা, কৃষ্ণা ও রমা। জল নিকাশের সুবিধাযুক্ত, দোআঁশ মাটি প্রয়োজন। একর প্রতি আড়াই থেকে তিন কেজি বীজের প্রয়োজন।

সরষে (Mustard):

মূলত তিন প্রকার সরষের চাষ হয়। টোরি, শ্বেতসরিষা ও রাই। টোরি চাষের ক্ষেত্রে উন্নত জাতগুলি হল অগ্রনী (বি—৫৪), পাঞ্চালী। এই চাষের ক্ষেত্রে বেলে দোআঁশ বা দোআঁশ মাটি প্রয়োজন। যেসব জমি জল নিকাশের সুবিধাযুক্ত সেখানে এই চাষ ভালভাবে করা সম্ভব। আশ্বিন মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে কার্তিকের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে বীজ বোনা যায়। একর প্রতি আড়াই থেকে তিন কেজি বীজ প্রয়োজন হয়। আর শ্বেত সরিষাতে উন্নত জাত হল বিনয় (বি—৯), সুবিনয় ও ঝুমকা। টোরি চাষের মতো বেলে দোআঁশ বা দোআঁশ মাটি এই চাষের ক্ষেত্রে সহায়ক। তবে শ্বেত সরিষার বীজ কার্তিক মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের মধ্যে বুনে ফেলা উচিত। রাই-র উন্নত জাত হল সীতা (বি—৮৫), বরুনা, সরমা ও ভাগীরথী। এই চাষও দোআঁশ মাটিতে সম্ভব। কার্তিকের তৃতীয় সপ্তাহের মধ্যে বীজ রোপন করা উচিত। শ্বেত ও রাই সরষেতেও টোরির মতোই একর প্রতি আড়াই থেকে তিন কেজি বীজের প্রয়োজন হয়।

সূর্যমুখী (Sunflower):

সব ধরনের মাটিতে সূর্যমুখী চাষ করা সম্ভব। তবে জল নিকাশি ব্যবস্থা ভালো থাকা দরকার। মাটির পিএইচ ৬-৬.৫ হলে ভাল। তবে সূর্যমুখী লবণাক্ত মাটিতেও ভাল হয়। জনপ্রিয় হাইব্রিড জাতগুলি হল পিএসি-৩৬ ও সূর্য-৫১। একর প্রতি দু’কেজি বা বিঘা প্রতি ৬৫০ গ্রাম হাইব্রিড বীজের প্রয়োজন।

চিনাবাদাম (Ground nut):

এই চাষে উন্নত জাত হল জেএল-২৪ ও জে-১৮। দোআঁশ মাটি এই চাষের ক্ষেত্রে উপযুক্ত। এই চাষে খোসা ছাড়ানো বাদাম একর প্রতি ২৫ থেকে ৩৫ কেজি লাগবে। এমএইচ-২ উন্নত জাতটির জন্য ৫০ কেজি খোসা ছাড়ানো বাদামের প্রয়োজন।

আরও পড়ুন - Coffee Farming: জেনে নিন কফি চাষের সম্পূর্ণ পদ্ধতি

সুতরাং, কৃষকবন্ধুরা ধান চাষ করার পরে জমিতে খুব অনায়াসে তৈলবীজ চাষ করতে পারেন | এতে খরচ ও খুব বেশি হয়না | সর্বোপরি, কৃষকরা ভালো লাভ ঘরে তুলতে পারেন |

নিবন্ধ: রায়না ঘোষ

আরও পড়ুন - Zinia flower farming: জেনে নিন আকর্ষণীয় জিনিয়া ফুলের চাষ ও পরিচর্যা

English Summary: Oil Seed Farming: After paddy, there is a possibility of huge profit by cultivating oilseeds in the land

আপনার সমর্থন প্রদর্শন করুন

প্রিয় অনুগ্রাহক, আমাদের পাঠক হওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আপনার মতো পাঠকরা আমাদের কৃষি সাংবাদিকতা অগ্রগমনের অনুপ্রেরণা। গ্রামীণ ভারতের প্রতিটি কোণে কৃষক এবং অন্যান্য সকলের কাছে মানসম্পন্ন কৃষি সংবাদ বিতরণের জন্যে আমাদের আপনার সমর্থন দরকার। আপনার প্রতিটি অবদান আমাদের ভবিষ্যতের জন্য মূল্যবান।

এখনই অবদান রাখুন (Contribute Now)

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.