জারবেরা ফুল সংগ্রহের পরবর্তী ব্যবস্থাপনা ও আর্থিক ক্ষেত্র

KJ Staff
KJ Staff

জারবেরা ফুল চাষ যথেষ্ট লাভজনক, তবে তাকে সঠিক সময়ে বাজারজাত করা প্রয়োজন।

জারবেরা ফুলের সংগ্রহকরণ ও ফলন: ফুলের সংগ্রহকরণ বিপণনের অবস্থানের উপর নির্ভর করে। সাধারণত পরাগকেশরের ২-৩ টি পত্রমূলাবর্ত পূর্ণ বিকশিত হলে বা ক্ষুদ্র ফুলের ডালপালা পুষ্পবৃন্তকে প্রলম্বিত করলে ফুলগুলি সংগ্রহ করা হয়। ভোরের প্রথম দিক বা সন্ধ্যার শেষ দিকটি হল ফুল সংগ্রহ করার জন্য সেরা সময়। ফুল সংগ্রহ করার সময় এটি মনে রাখতে হবে যে, ফুলের যষ্টিসমেত সংগ্রহ করা ফুল কাটার চেয়ে ভাল। ফুল সংগ্রহের সাথে সাথে ফুলের কাটা প্রান্তটি জলে ডুবিয়ে রাখতে হবে এবং পরিবহনের আগে চার থেকে পাঁচ ঘন্টা উচ্চ আর্দ্রতা‍য় ১৫-১৬ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় রাখতে হবে। রোপণের দুই মাস পরে, যখন উদ্ভিদগুলিতে পাতার সংখ্যা ১৫-১৬ টি থাকে, তখন ফুলের কুঁড়ি আসবে। ফুলের কুঁড়ি জারিত হওয়ার ১৮ দিন পর থেকে যষ্টি সংগ্রহ শুরু করা যেতে পারে এবং ফুল সংগ্রহ কার্য পর্যায়ক্রমে ৩৬-৪০ মাস পর্যন্ত চলবে। ফুলের উত্পাদন প্রথম বছরের তুলনায় দ্বিতীয় বছর এবং তৃতীয় বছরে প্রায় দ্বিগুণ প্রাপ্ত হয়েছিল। এটি অনুমান করা হয় যে, প্রতি বছর গড়ে ২০০-২৫০ টি ফুল প্রতি বর্গমিটার এলাকায় পাওয়া যাবে।

ফুল সংগ্রহ করার পরবর্তী ব্যবস্থাপনা : বর্তমানে শ্রমিক ধর্মঘট, সড়ক ধর্মঘট, বিমান বাতিল ইত্যাদির মতো পরিবহনের সময় অনিবার্য পরিস্থিতির অবতরণ হওয়ায়, জারবেরার সঠিক বিপণন অত্যন্ত প্রয়োজন। এটি গবেষণার মাধ্যমে দেখা গেছে যে, সংগ্রহের পর চিকিত্সা সুবিধার অভাবে মোট উত্পাদনের ৩০-৩৫% ফসল উৎপাদন কেন্দ্রেই হ্রাস পায়। সুতরাং, ফসল সংগ্রহ করার পর তার দীর্ঘস্থায়ীত্বের জন্য এইচকিউএস (২০০ মিলিগ্রাম / লিটার জল) + এজিএনও৩ (সিলভার নাইট্রেট) (৫০মিলিগ্রাম / লিটার জল) + ৫ % সুক্রোজ জলে মিশিয়ে এই দ্রবণে ২৪ ঘন্টার জন্য তাকে নিমজ্জিত করতে হবে।

অর্থ ক্ষেত্র : এটি অনুমান করা হয় যে, যদি চাষাবাদ ক্ষেত্রটি ১০০০ বর্গমিটার এলাকা জুড়ে বিস্তৃত হয় তবে, কৃষিক্ষেত্রে ব্যয় হতে পারে ১৮ লক্ষ টাকা (ব্যয় পরিবর্তনশীল) । সমস্ত ফুল সঠিকভাবে বাজারজাত করা গেলে তিন বছর পর থেকে, ২২ লক্ষ টাকা প্রত্যাশা করা যেতে পারে। তবে সর্বমোট লভ্যাংশ পাওয়া যেতে পারে প্রায় ৭ লক্ষ টাকা এবং অতিরিক্ত স্থায়ী সম্পদগুলি অধিকতর ব্যবহারের জন্য রাখা হয়, যার মূল্য প্রায় ১২-১৩ লক্ষ টাকা। সম্প্রতি, জারবেরা চাষের জন্য নাবার্ড, এনএইচবি, এনএইচএম, এপিডা-র মতো সরকারী প্রতিষ্ঠানগুলি কৃষকদের ৩০-৫০% পর্যন্ত সাহায্য করে। 

স্বপ্নম সেন (swapnam@krishijagran.com)

তথ্যসূত্র - ড. তাপস কুমার চৌধুরী

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters