Covid-19 Vaccination: রাজ্যে বরাদ্দ মাত্র ৭০ লক্ষ, বাড়ছেনা টিকার জোগান

রায়না ঘোষ
রায়না ঘোষ
Covid-19 vaccination (image credit- Google)
Covid-19 vaccination (image credit- Google)

কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউ বেশ ভয়ঙ্কর ছিল, মৃত্যু হয়েছে অনেকের | তাই, তৃতীয় ঢেউ নিয়ে ইতিমধ্যেই চিন্তিত চিকিৎসক মহল থেকে সাধারণ মানুষ সকলেই | এদিকে চলতি বছর শেষের আগেই দেশের সমস্ত প্রাপ্তবয়স্কের (১৮ বছর কিংবা তার বেশি) টিকাকরণ সেরে ফেলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে কেন্দ্র। হলফনামায় তা জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্টে।

আগামী কয়েক মাসে গড়ে ২.৮ কোটি (প্রায় ৩ কোটি) ডোজ় টিকার জোগান প্রয়োজন এই রাজ্যে (West Bengal)। অথচ সম্প্রতি ফি মাসে আপাতত ৬০-৭০ লক্ষ ডোজ় জোগানোর কথা বলেছে কেন্দ্র! ফলে রাজ্যের বক্তব্য, আগামী দিনে টিকার সরবরাহ বহু গুণ না-বাড়ালে, বেঁধে দেওয়া সময়সীমার মধ্যে সকলের টিকাকরণ অসম্ভব হয়ে দাঁড়াতে পারে। মাসে ৬০ লক্ষ করে আসা ডোজ়ে সকলের ২ ডোজ় টিকাকরণে সময় লেগে যেতে পারে প্রায় ২ বছর। সে ক্ষেত্রে কোভিডের তৃতীয় ঢেউ (Corona 3rd wave) সামাল দেওয়া যাবে কী ভাবে, তা নিয়ে শঙ্কিত তারা।

টিকাকরণের তথ্য(Vaccination information):

সরকারি তথ্য অনুযায়ী, প্রায় ৫ লক্ষ জনের প্রথম ডোজ় (কোভিশিল্ড) নেওয়ার পরে ৮৪ দিন পেরিয়েছে। অর্থাৎ, সবার আগে তাঁদের দ্বিতীয় ডোজ় দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে (জেলাগুলিকে এই নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্য ও স্বাস্থ্যসচিব)। ৮৪ দিন এখনও হয়নি, এমন প্রথম ডোজ় প্রাপকের সংখ্যাও প্রায় ৫.৯০ লক্ষ।

আরও পড়ুন -IBPS Clerk Recruitment 2021: ৫৮৩০ শূন্যপদে IBPS ক্লার্ক নিয়োগ, চলছে আবেদন

অর্থাৎ, এর পরেই অগ্রাধিকার তাঁরা। এই পরিস্থিতিতে জোগান নিশ্চিত না-হলে, নতুন করে প্রথম ডোজ় যথেষ্ট সংখ্যায় দেওয়া কঠিন বলে প্রশাসনিক সূত্রে দাবি। প্রতি মাসে জোগান নির্দিষ্ট হলে, ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনামাফিক হওয়া সম্ভব।

অনেকে টিকা নিচ্ছেন বেসরকারি হাসপাতাল থেকে। যা প্রতিষেধক নির্মাতাদের কাছ থেকে সরাসরি কিনছে তারা। ফলে সেই সংখ্যা বাদ যাওয়ার কথা বকেয়া  ১৪ কোটি ডোজ় থেকে। কিন্তু প্রশাসন সূত্রের বক্তব্য, ২০১১ সালের পরে আর কোনও জনগণনার রিপোর্ট প্রকাশিত হয়নি। অথচ মাঝের সময়ে জনসংখ্যা বেড়েছে অনেকখানি। রাজ্যে রেশন কার্ডই ১০ কোটির বেশি। ফলে প্রাপ্তবয়স্কের সংখ্যা প্রাথমিক ভাবে যা অনুমান করা হয়েছিল, বহু জায়গাতেই কাজে নেমে দেখা যাচ্ছে, আদতে তা অনেক বেশি।

তার উপরে, বেসরকারি হাসপাতাল থেকে পকেটের কড়ি গুনে প্রতিষেধক নেওয়া মানুষ মোট জনসংখ্যার অনুপাতে নিতান্ত কম। বেশির ভাগ মানুষ নিখরচার সরকারি টিকার মুখাপেক্ষী। তাই বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে টিকা নেওয়ার হিসেব ধরলেও, রাজ্যকে টিকার জোগান না-বাড়ালে, ২ বছর লেগে যাওয়ার আশঙ্কা অমূলক নয় বলেই প্রশাসনের একাংশের ধারণা।

প্রশাসনিক সূত্রের বক্তব্য, এত দিন টিকা মিলছিল আরও কম। বরং সম্প্রতি এ বার থেকে প্রতি মাসে অন্তত ৬০-৭০ লক্ষ ডোজ় সরবরাহের আশ্বাস দিয়েছে কেন্দ্র। কিন্তু ডিসেম্বরের মধ্যে সম্পূর্ণ টিকাকরণের লক্ষ্যভেদ তাতে অসম্ভব। যেখানে দিনে প্রায় ১০ লক্ষ ডোজ় দরকার, সেখানে মাসে মাত্র ৬০-৭০ লক্ষে টিকাকরণের কাজ প্রায় কষ্টসাধ্য হয়ে উঠেছে |

কেন্দ্র শীর্ষ আদালতে জানিয়েছে, জানুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত ডোজ় দিতে পারেনি কেন্দ্র। তাই আগামী দিনেও তা কী ভাবে অতখানি বাড়বে, সে বিষয়ে খুব নিশ্চিত নয় স্বাস্থ্য দফতর।

টিকার জোগানে সংখ্যার সমস্যা ঘিরে বাড়ছে  অনিশ্চয়তা। স্বাস্থ্যকর্তাদের অনেকে বলছেন, বিগত মাসগুলিতে টিকার জোগান ওঠা-নামা করেছে বিস্তর। আগামী ১৫ দিন কিংবা ১ মাসে শেষমেশ কত টিকা হাতে আসবে, সে বিষয়ে ধোঁয়াশা থাকছে । এই পরিস্থিতিতে টিকাকরণ করতে রাজ্যের ক্রমশ অসুবিধা হয়ে উঠছে |

আরও পড়ুন -UPSC Recruitment 2021: চলছে ৩৬৩ প্রিন্সিপাল পদে নিয়োগ, দেখুন আবেদন পদ্ধতি

Like this article?

Hey! I am রায়না ঘোষ . Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters