খারিফ মরসুমে চাষ করুন এই শস্যগুলি (Kharif Crop), মুনাফা হবে দ্বিগুণ

Tuesday, 09 June 2020 02:24 PM

এটি সর্বজনবিদিত যে, কৃষিক্ষেত্রই মূল সংস্কৃতি যা ভারতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ভারতের প্রায় ৬০-৭০ শতাংশ মানুষের কৃষিকাজই প্রধান পেশা। এর মধ্যে ফসলের চাষ, পশুপালন, কৃষি-বনায়ন ইত্যাদি রয়েছে। ভারতকে বিভিন্ন ধরণের ফসলের শীর্ষ উত্পাদনকারী দেশ এবং বিভিন্ন ফসলের উপর নির্ভর করে এটি রবি, খারিফ এবং জায়েদ শস্য – এই তিনটি বিভাগে বিভক্ত।

খারিফ মরসুমের সময়সীমা - জুন থেকে শুরু হয়ে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত।

মন্ত্রক সূত্রে খবর, মূলত পশ্চিমবঙ্গে (১১.২৫ লক্ষ হেক্টর), তেলঙ্গানা (৭.৪৫ লক্ষ হেক্টর), ওড়িশা (৩.১৩ লক্ষ হেক্টর), আসাম (২.৭৩ লক্ষ হেক্টর), কর্ণাটক (১.৬৪ লক্ষ হেক্টর) এবং ছত্তিশগড় (১.৫০ লক্ষ হেক্টর), তামিলনাড়ু (১.৩০ লক্ষ হেক্টর), বিহার (১.২২ লক্ষ হেক্টর), মহারাষ্ট্র (০.৬৫ লক্ষ হেক্টর), মধ্য প্রদেশ (০.৫৯ লক্ষ হেক্টর), গুজরাট (০.০৪ লক্ষ হেক্টর) এবং কেরালায় (০.৪6 লক্ষ হেক্টর) খারিফ শস্য চাষ হয়ে থাকে।

খারিফ ফসল বা বর্ষা ফসল -

আগত খরিফ মরসুম। খারিফ মরসুমের প্রধান ফসল ধান। এছাড়া বর্ষাকালে যে সমস্ত সবজি চাষ হয়, সেগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল, কুমড়ো গোত্রীয় সবজি, যেমন- উচ্ছে, পটল, ঝিঙে, চিচিঙ্গা, চালকুমড়ো, কাঁকরোল ইত্যাদি। এই সময় মাঠে ফুলের চাষও লাভজনক। ফলের বাগান থেকে শুরু করে বাগিচা ফসলের অনেক ফসলই এই সময় ফলন দিয়ে থাকে এবং অনেক দিন পর্যন্ত ফসল পাওয়া যায়। এই মরসুমের ফসলগুলির স্থায়িত্বকাল অন্যান্য ফসলের তুলনায় দীর্ঘ হয়। ভারতে বর্ষার সময় উত্থিত খারিফ শস্যগুলির মধ্যে কয়েকটি হ'ল চাল, বাজরা, ভুট্টা এবং মটর।

বর্ষায় উত্পন্ন শীর্ষ খরিফ ফসল:

১) ধান -

বিশ্বে সাধারণ ধান ও বাদামি ধানের অন্যতম বৃহত্তম উত্পাদনকারী ভারত। এটি ভারতের মোট আবাদিত অঞ্চলের এক-তৃতীয়াংশ অংশ জুড়ে চাষ হয়। যদিও, ভারতের বেশিরভাগ রাজ্যেই ধানের চাষ হয়, তৎসত্ত্বেও প্রধান ৩ টি ধান উত্পাদক অঞ্চল হল পশ্চিমবঙ্গ, পাঞ্জাব এবং উত্তর প্রদেশ। ভারত ধানের সর্বাধিক উত্পাদনকারী হিসাবে বর্ষায় উত্থিত শীর্ষ ফসল হিসাবে বিবেচিত হয়। এই ফসল চাষের জন্য গড় তাপমাত্রা ২৫-২৬ ডিগ্রী সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন ১০০ সেমি বৃষ্টিপাতের প্রয়োজন হয়। সমস্ত শহরগুলির মধ্যে, পাঞ্জাব ও হরিয়ানা রফতানির উদ্দেশ্যে ধানের মূল্য বৃদ্ধি করে থাকে।

২) কটন (Cotton) -

কটন হ'ল আরেকটি খরিফ শস্য এবং এটি গ্রীষ্মমন্ডলীয় এবং উপ-ক্রান্তীয় ফসল। এটি ফাইবার ফসল হিসাবে বিবেচিত হয়। এর বীজ উদ্ভিজ্জ তেল হিসাবে ব্যবহৃত হয়। বিশ্বব্যাপী তুলা উৎপাদনে ভারত তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে এবং এই ফসলটি "সাদা সোনা" নামে পরিচিত। খারিফ শস্যের এই ফসলটি দীর্ঘ, মাঝারি ও সংক্ষিপ্ত বিভিন্ন জাতের হয়। তুলা জন্মাতে প্রয়োজনীয় তাপমাত্রা ২১-৩০ ডিগ্রী সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন ৫০-১০০ সেন্টিমিটার বৃষ্টিপাত প্রয়োজন হয়। তুলার প্রধান উত্পাদনকারী রাজ্যগুলি হল গুজরাট, মহারাষ্ট্র, অন্ধ্র প্রদেশ, হরিয়ানা, রাজস্থান, কর্ণাটক, তামিলনাড়ু এবং ওড়িশা। রিপোর্ট অনুযায়ী, গুজরাট এই রাজ্যগুলির মধ্যে শীর্ষস্থানীয়। বর্ষা ঋতুতে প্রায় ৭৫% বৃষ্টিপাত হয়, যা তুলা উৎপাদনের জন্য পর্যাপ্ত।

৩) আখ:

আখ গ্রীষ্মমন্ডলীয় এবং উপশহরীয় অঞ্চলে জন্মে যা অস্ট্রোনেশিয়ান এবং পাপুয়ানদের একটি প্রাচীন ফসল। প্রায় ৭৯% চিনি আখ থেকে উত্পাদিত হয়। আখ থেকে প্রাপ্ত অন্যান্য কয়েকটি পণ্যগুলির মধ্যে রয়েছে ফ্যালারনাম, গুড়, রাম, ইথানল ইত্যাদি। এই ফসলটি খারিফ মরসুমেই বৃদ্ধি পায়। এর চাষের জন্য গরম এবং আর্দ্র আবহাওয়া এবং কৃষি জলবায়ু অঞ্চল উপযুক্ত। উত্তর পশ্চিম, উত্তর মধ্য, উত্তর পূর্বাঞ্চল, উপদ্বীপ অঞ্চল এবং উপকূলীয় অঞ্চলগুলি উন্নত আখ উৎপাদনকারী অঞ্চল হিসাবে চিহ্নিত করা হয়। ফসলের কান্ড কাটার জন্য সর্বোত্তম তাপমাত্রা ৩২-৩৮ ডিগ্রী সেলসিয়াস এবং ফসল পরিপক্ক হওয়ার জন্য ১৪-১৬ ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রা প্রয়োজন হয়।

৪) চা: ভারত বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম চা উত্পাদনকারী দেশ। পশ্চিমবঙ্গ ও আসামের চা বিখ্যাত এবং বিশ্বব্যাপী উত্পাদনের প্রায় ৩০% এখান থেকে সরবরাহ করা হয়। চায়ের চাহিদা সাধারণত জুলাই থেকে দীপাবলির আগে পর্যন্ত ব্যাপক বৃদ্ধি পায় এবং চাহিদাগত কারণে এই সময়ে চায়ের উৎপাদনও ব্যাপক অর্থে করা হয়ে থাকে। এই ফসলটির চাষ সাধারণত দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে উপ-ক্রান্তীয় থেকে ক্রান্তীয় জলবায়ুতে হয়ে থাকে।  

৫) ডাল: ডাল চাষে প্রধান রাজ্যগুলির মধ্যে রয়েছে কর্ণাটক, মহারাষ্ট্র এবং মধ্য প্রদেশ। সবুজ ছোলা, কালো ছোলা জাতীয় ফসল বর্ষায় ভারতের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ শীর্ষস্থানীয় ফসল। তবে বর্ষার কারণে বীজ বপনে বিলম্ব হলেও চাষের ক্ষেত্রে বীজ শোধন জরুরী একটি বিষয়। বর্ষাকালে রোগ-পোকার আক্রমণে ফসল উত্পাদন বিলম্বিত ও ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। সুতরাং, কৃষককে সর্বদা খেয়াল রাখতে হবে শস্য সুরক্ষা এবং পরিচর্যার দিকে। কোনরকম রোগ-পোকা দেখলেই স্থানীয় কৃষি আধিকারিকের পরামর্শ নেওয়া আবশ্যক।

প্রতিটি জেলায় রয়েছে কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্র। চাষের ক্ষেত্রে উন্নত মানের বীজ, ভিন্ন ধরণের প্রজাতি, কৃষিকাজে ভর্তুকি, বৈচিত্র্যপূর্ণ চাষ, লাভের পন্থা, কৃষকদের জন্য নতুন প্রকল্প ইত্যাদি সকল বিষয়ে কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্র থেকে কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হয়। তাই কৃষিক্ষেত্রে কোন রকম সমস্যা হলে কাল বিলম্ব না করে শীঘ্রই কৃষকরা স্থানীয় কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্রে যোগাযোগ করুন।

Related Link -

'প্রধানমন্ত্রী শ্রম যোগী মন ধন যোজনা' (PMSYM)- প্রতি মাসে এখন আপনিও পাবেন সরকার থেকে ৩০০০ টাকা

English Summary: Cultivate these crops in kharif season, Farmers will be profited double

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.