Space Rice: চাঁদকে প্রদক্ষিণ করা ধান বীজ “স্পেস রাইস” চাষ চিনের

রায়না ঘোষ
রায়না ঘোষ
Space Rice (image credit- Google)
Space Rice (image credit- Google)

১৯৮৭ সাল থেকে  থেকে চাল এবং অন্যান্য ফসলের বীজ স্পেসে নিয়ে আসছে চীন (China) | নভেম্বরে চীনের চ্যাং -৫-এর সাথে ২৩ দিনের চন্দ্রযাত্রায় যাওয়া বীজ থেকে চীন প্রথম স্পেস রাইস সংগ্রহ করেছে। ‘মহাজাগতিক চাল’বাজারে আনতে চলেছে চীন | এ এমন চাল যা নাকি খাদ্য সঙ্কট দূর করতে পারে। তাই, মহাকাশ থেকে ঘুরে আসা ধানবীজ রোপন করলো চীন, লক্ষ্য একটাই "সোনার ফসল" ফলানো |

২০২০ সালের নভেম্বর মাসে চাঁদকে প্রদক্ষিণ করেছিল চিনের চন্দ্রযান চ্যাং-৫। ২৩ দিনে ধরে চলেছিল এই চন্দ্র অভিযান। চ্যাং-৫-এ রাখা হয়েছিল ৪০ গ্রাম ধান বীজ। প্রাথমিকভাবে মহাকাশে ভারহীন অবস্থায় এই ধানগুলির উপর কী প্রভাব পড়ে তা খতিয়ে দেখতেই অনুসন্ধান চালিয়েছিল গুয়াংডং প্রদেশের সাউথ চায়না এগ্রিকালচারাল ইউনিভার্সিটি।

এই ধানচারাগুলি থেকে বর্তমানে ধান উৎপাদন করা হচ্ছে। মহাকাশ থেকে ফেরা এই ধানবীজগুলি রোপণ করার পর বর্তমানে সেগুলির উচ্চতা ১, জানাচ্ছে সংশ্লিষ্ট গবেষণাকেন্দ্রের ডেপুটি ডিরেক্টর গুও তাও। গবেষণার পর এই ধানের বীজ মাঠেও চাষের জন্য রোপণ করা হবে। এই বীজগুলি থেকে ধান উৎপাদন অনেক বাড়বে বলে আশাবাদী গবেষকরা।

আরও পড়ুন -Covid-19 Vaccination: রাজ্যে বরাদ্দ মাত্র ৭০ লক্ষ, বাড়ছেনা টিকার জোগান

কি এই "স্পেস রাইস"(What is Space Rice)?

মহাকাশে পরিবেশের সংস্পর্শে থাকা ধানের বীজগুলি পরিবর্তিত হয়ে পৃথিবীতে একবার রোপণ করা হলে তা থেকে উচ্চমানের  ফলন পাওয়া যেতে পারে | ব্লুমবার্গ সূত্রে জানা গেছে যে তুলা এবং টমেটো সহ ২০০ টিরও বেশি স্পেস শস্যের জাত রোপণের জন্য অনুমোদিত হয়েছে। চীনের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ২০১৮ সালে চীনে অনুমোদিত স্পেস ফসলের মোট রোপনের জায়গা  ২.৪ মিলিয়ন হেক্টরের বেশি পৌঁছেছে।

বেইজিং ভিত্তিক অ্যারোস্পেস নলেজ ম্যাগাজিনের মহাকাশ বিশ্লেষক এবং প্রধান সম্পাদক ওয়াং ইয়ান গ্লোবাল টাইমস স্পেস প্রজননকে মাইক্রোগ্রাভিটির প্রভাবের জন্য বৈশ্বিক বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায়ের জন্য অত্যন্ত আগ্রহী বলে দাবি করেছেন | মহাকাশ স্টেশনে দীর্ঘমেয়াদী মানুষের অবস্থান থাকার কারণে গবেষকরা মহাকাশে স্ব-পুনর্ব্যবহারযোগ্য ইকোসিস্টেম পরীক্ষা করার জন্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানোর আশা করছেন, যা ব্যয়কে হ্রাস করবে এবং ভবিষ্যতে পরিচালিত স্পেসফ্লাইটের জন্য প্রয়োজনীয় সংস্থান হ্রাস করবে।

চাইনিজ সোশ্যাল মিডিয়ায় এই চালকে "স্বর্গের চাল" বলে সম্বোধন করা হচ্ছে, গ্লোবাল টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে | এই চাল বাজারে আসতে কমপক্ষে ৩ থেকে ৪ বছর সময় লাগবে | এই পদক্ষেপের একমাত্র লক্ষ্য চীনের ফসল বাড়ানো এবং এর মাধ্যমে দেশের খাদ্য সুরক্ষা সুনিশ্চিত করা |

আরও পড়ুন -IBPS Clerk Recruitment 2021: ৫৮৩০ শূন্যপদে IBPS ক্লার্ক নিয়োগ, চলছে আবেদন

Like this article?

Hey! I am রায়না ঘোষ . Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters