সর্ষের তেলের উপকারিতা

Friday, 23 November 2018 05:10 PM

হঠাৎ এমন প্রশ্ন কেন? কারণ সম্প্রতি আমেরিকার "ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন" একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে, যাতে এমনটা দাবি করা হয়েছে যে নিয়মিত সরষের তেল খাওয়া শুরু করলে হার্টের স্বাস্থ্যের এত মাত্রায় উন্নতি ঘটে যে কোনও ধরনের হার্টের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা একেবারে থাকে না বললেই চলে। আসলে এই তেলটির অন্দরে উপস্থিত "ওলেরিক অ্যাসিড" শরীরে প্রবেশ করার পর এমন খেল দেখায় যে করোনারি হার্ট ডিজিজে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা দূরে পালায়। সরকারি এবং বেসরকারি সংস্থার প্রকাশ করা রিপোর্ট অনুসারে গত কয়েক বছরে যে যে রোগের কারণে সব বেশি সংখ্যক মানুষের মৃত্যু ঘটেছে এদেশে, সেই লিস্টের একেবারে উপরের দিকে রয়েছে হার্টের রোগ। শুধু তাই নয়, "গ্লোবাল বার্ডেন অব ডিজিজ স্টাডি" তে দেখা গেছে প্রতি এক লক্ষ ভারতীয়ের মধ্যে প্রায় ২৭২ জন কোনও না কোনও কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজে আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছেন। তাই তো বলি বন্ধু, এমন পরিস্থিতিতে ভারতীয়দের আরও বেশি করে সরষের তেলের উপর ভরসা রাখা যে উচিত, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই! প্রসঙ্গত, নিয়মিত সরষের দিয়ে বানানো নানা পদ খাওয়া শুরু করলে যে কেবল হার্টের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটে, তেমন নয়। সেই সঙ্গে আরও একাধিক শারীরিক উপাকার পাওয়া যায়। যেমন ধরুন - 

১. নানাবিধ সংক্রমণে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কমে: একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে এই তেলটির অন্দরে মজুত রয়েছে প্রচুর মাত্রায় অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টি-ফাঙ্গাল এবং অ্যান্টি-ভাইরাল প্রপাটিজ, যা শরীরে প্রবেশ করার পর এমন খেল দেখায় যে কোনও ধরনের সংক্রমণই ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না। এমনকি ডায়জেস্টিভ ট্র্যাক ইনফেকশানের মতো রোগও দূরে থাকে।

২. হজম ক্ষমতার উন্নতি ঘটে: নানা কারণে কি পেটের বারোটা বেজে গেছে? তাহলে নিয়মিত সরষের তেল দিয়ে বানানো নানা পদ খাওয়া শুরু করুন। দেখবেন অল্প সময়েই হজম ক্ষমতার উন্নতি ঘটবে চোখে পরার মতো। আসলে এই তেলটির শরীরে প্রবেশ ঘটা মাত্র হজমে সহায়ক একাধিক রসের ক্ষরণ বেড়ে যায়। ফলে বদহজম বা ওই জাতীয় সমস্যা মাথা চাড়া দিয়ে ওঠার আশঙ্কা যায় কমে।

৩. ভাজা-ভুজির জন্য আদর্শ: আমরা মানে বাঙালিরা যেহেতু বেশিরভাগ খাবারই উচ্চ তাপমাত্রায় রান্না করে থাকি তাই আমাদের জন্য সরষের তেলের কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। আজকাল অনেকে বাঙালিই স্বাস্থ্যের কথা ভেবে অলিভ ওয়েল ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু একথা জেনে রাখা ভাল যে রকমের খাবার আমরা খেয়ে থাকি তা বানাতে অলিভ অয়েল একেবারেই আদর্শ নয়। কারণ কম তাপমাত্রায় বানানো খাবারে অলিভ অয়েল ব্যবহার করা যেতে পারে। কিন্তু যেসব খাবার বেশি আঁচে বানানো হয়, তাতে অলিভ অয়েল ব্যবহার করলে শরীরের ভাল হওয়ার থেকে খারাপ হয় বেশি।

৪. যে কোনও ধরনের যন্ত্রণা নিমেষে কমে যায়: সরষের তেলে উপস্থিত অ্যান্টি-ইমফ্লেমেটারি উপাদান যে কোনও ধরনের প্রদাহ কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। বিশেষত মাথা যন্ত্রণা এবং তলপেটের অস্বস্তি কমাতে এই প্রকৃতিক উপাদানটি দারুন কাজে আসে।

- Sushmita Kundu

Share your comments



Krishi Jagran Bengali Magazine Subscription Subscribe Online


Download Krishi Jagran Mobile App

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.